Home /News /kolkata /
Calcutta High Court: ঘরে ফিরুক আদরের ঘনা, হাইকোর্টের দ্বারস্থ আইনজীবীরা! কড়া নির্দেশে বিপাকে পুলিশ

Calcutta High Court: ঘরে ফিরুক আদরের ঘনা, হাইকোর্টের দ্বারস্থ আইনজীবীরা! কড়া নির্দেশে বিপাকে পুলিশ

ঘনার খোঁজ পেতে পুলিশকে কড়া নির্দেশ হাইকোর্টের৷

ঘনার খোঁজ পেতে পুলিশকে কড়া নির্দেশ হাইকোর্টের৷

বছর চারেক আগেও অবশ্য ঘনা হারিয়ে গিয়েছিল৷ সেবার কল্যাণী আদালতের এসিজেএম-এর কড়া নির্দেশে ঘনাকে উদ্ধার করে ফের আদালত চত্বরে ফিরিয়ে এনেছিল৷

  • Share this:

#কলকাতা: নাম তার ঘনা৷ বয়স মাত্র চার৷ আর এই ঘনাকে নিয়েই ঘটনার ঘনঘটা৷ কল্যাণী আদালত চত্বর পেরিয়ে ঘনাকে নিয়ে এখন চর্চা কলকাতা হাইকোর্ট৷ নিখোঁজ ঘনাকে উদ্ধারে শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি শম্পা সরকার যে নির্দেশ দিয়েছেন, তাতে বেকায়দায় পুলিশও!

ঘনার পরিচয় তাহলে খুলেই বলা যাক৷ ঘনা আসলে একটি শুয়োরের নাম৷ নদিয়ার কল্যাণী আদালতের আইনজীবী, বিচারকদের কাছে অবশ্য ঘনা নিছক একটি শুয়োর নয়, তাদের অত্যন্ত আপনজন৷ বলা ভাল আইনজীবী, বিচারক, আদালত কর্মীদের ভালবাসা আর স্নেহতে আদালত চত্বরেই ঘনার বেড়ে ওঠা৷

বছর চারেক আগেও অবশ্য ঘনা হারিয়ে গিয়েছিল৷ সেবার কল্যাণী আদালতের এসিজেএম-এর কড়া নির্দেশে ঘনাকে উদ্ধার করে ফের আদালত চত্বরে ফিরিয়ে এনেছিল৷ তার পরে সব দিব্যিই চলছিল৷ সবাই ঘনাকে চোখে চোখেও রাখতেন৷

আরও পড়ুন: বাম আমলে বিধানসভা ভাঙচুরে কী ব্যবস্থা? হঠাৎ হাই কোর্টে উঠে এল 'সেই' প্রসঙ্গ! কেন?

কিন্তু বিপত্তি বাঁধল এ বছরের ২৫ মার্চ৷ অভিযোগ, ওই দিন ভোর ৫.৩০ থেকে ৫.৪০-এর মধ্যে একটি সাদা গাড়িতে করে এসে চারজন কল্যাণী আদালত চত্বর থেকেই ঘনাকে তুলে নিয়ে যায়৷ সেই ছবি ধরা পড়ে সিসিটিভি ক্যামেরায়৷

ঘনাকে খুঁজে পেতে তড়িঘড়ি কল্যাণী থানায় অভিযোগ দায়ের করেন আইনজীবী অনুমিতা ভদ্র। তারপর থেকে এখনও ঘনার খোঁজ পায়নি কল্যাণী থানার পুলিশ। কল্যাণী থানার পুলিশ এই ঘটনায় নিষ্ক্রিয়, এই অভিযোগ তুলে কলকাতা হাইকোর্টের বিচারপতি শম্পা সরকারের এজলাসে মামলা দায়ের হয়৷

আরও পড়ুন: টেটে পাওয়া অতিরিক্ত এক নম্বর যেন নিউটনের আপেল পড়া, খোঁচা আদালতের

ঘনার দ্রুত খোঁজ চেয়ে, আইনজীবী অতসী চক্রবর্তী সহ ৬ জন কলকাতা হাইকোর্টের দ্বারস্থ হয়েছেন।সেই মামলার শুনানি চলাকালীন ঘনাকে উদ্ধারের জন্য পুলিশকে সক্রিয় হতে কড়া নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি শম্পা সরকার৷ পুলিশি তদন্তে যে আদালত খুশি নয়, তাও জানিয়ে দেন বিচারপতি৷ একই সঙ্গে কল্যাণী থানার তদন্ত নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন বিচারপতি৷

শুক্রবার কলকাতা হাইকোর্ট নির্দেশ দিয়েছে, রানাঘাটের পুলিশ সুপারের নজরদারিতে ঘনাকে খুঁজে বের করার তদন্ত চলবে৷ পাশাপাশি অভিযোগের ভিত্তিতে কেন প্রিভেনশন অফ অ্যানিমেল অ্যাক্ট- এই ধারায় অভিযোগ আনা হয়নি? তার জন্য তদন্তকারী অফিসারের বিরুদ্ধে পুলিশ সুপারকে উপযুক্ত ব্যবস্থা নিতেও নির্দেশ দিয়েছেন বিচারপতি সরকার৷

পাশাপাশি, গাড়ির ছবি থাকা সত্ত্বেও ওই গাড়ি সহ ঘনার অপহরণকারীদের এখনও কেন চিহ্নিত করা গেল না, সেই প্রশ্ন তুেলও ক্ষোভ প্রকাশ করেন বিচারপতি৷ অবিলম্বে দ্রুত তদন্ত করে পুলিশকে ব্যবস্থা নিতে নির্দেশ দেন তিনি৷ ল্যাণী আদালতের উপযুক্ত নিরাপত্তার ব্যবস্থার জন্য পুলিশকে বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা করতে হবে বলে জানিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট৷ আবেদনকারীর আইনজীবী শিবাজী কুমার দাস আবেদনে আর্জি জানিয়ে বলেন,

২৫ মার্চ অভিযোগ দায়ের পরেও পুলিশ নিষ্ক্রিয় হয়ে থেকেছে৷ এখনও পর্যন্ত তারা ঘনাকে খুঁজে দিতে পারেনি। পুলিশ কোনও ব্যবস্থা গ্রহণ করছে না। আরও অভিযোগ,কল্যাণী আদালত চার দেওয়ালে ঘেরা। সেখানে কী করে একটি গাড়ি প্রবেশ করল এবং বিনা বাধায় সেখান থেকে বেরিয়ে গেল? ঘনার উধাও হওয়া পরোক্ষে কল্যাণী আদালতের নিরাপত্তা নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিয়েছে বলেও যুক্তি দেন মামলাকারীদের আইনজীবী৷

এ দিন শুনানি শেষে শিবাজী কুমার দাস বলেন, 'আজকের হাইকোর্টের নির্দেশের পর আমরা আশাবাদী ঘনার খোঁজ মিলবে। কল্যাণী থানার পরবর্তী পদক্ষেপের দিকে আমরা নজর রাখবো।'

হাজারো মামলা নিয়ে প্রতিদিন সরগরম থাকে কলকাতা হাইকোর্ট চত্বর৷ ব্যতিক্রমী কিছু মামলা হাইকোর্টের আইনজীবীদেরও চর্চার বিষয় হয়ে ওঠে৷ কিন্তু সেসবকে ছাপিয়ে গিয়েছে ঘনার নিখোঁজ মামলা৷ ঘনার নিখোঁজ হওয়ার সঙ্গে অনেকেই ভানু বন্দ্যোপাধ্যায় অভিনীত বিখ্যাত বাংলা ছবি যমালয়ে জীবন্ত মানুষ-এর গল্পের মিল পাচ্ছেন৷ সেই ছবিতেও প্রিয় পোষ্য কমলার খোঁজ পেতে ব্যাকুল হয়ে উঠেছিলেন তাঁর প্রভুর চরিত্রে অভিনয় করা ভানু বন্দ্যোপধ্যায়৷ আপাতত ঘরের ঘনা কবে ঘরে ফেরে, সেই অপেক্ষাতেই ব্যাকুল কল্যাণী আদালতের আইনজীবী থেকে বিচারকরা!

Published by:Debamoy Ghosh
First published:

Tags: Calcutta High Court

পরবর্তী খবর