Home /News /kolkata /
Tarun Majumder Passed Away || লড়াই শেষ, প্রয়াত চিত্র পরিচালক তরুণ মজুমদার, শোকবার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

Tarun Majumder Passed Away || লড়াই শেষ, প্রয়াত চিত্র পরিচালক তরুণ মজুমদার, শোকবার্তা মুখ্যমন্ত্রীর

Tarun Majumdar

Tarun Majumdar

সোমবার সকাল ১১.১৭ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি৷

  • Share this:

    #কলকাতা: প্রয়াত বর্ষীয়ান চিত্রপরিচালক তরুণ মজুমদার৷ সোমবার সকাল ১১.১৭ মিনিটে শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন তিনি৷ হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে৷ দীর্ঘদিন ধরেই বয়সজনিত কারণে ভুগছিলেন তিনি৷ ভর্তি ছিলেন হাসপাতালে৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকপ্রকাশ করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

    আরও পড়ুন: যখন পড়বে না মোর পায়ের চিহ্ন...

    লিখেছেন,  "বিশিষ্ট চিত্রপরিচালক তরুণ মজুমদারের প্রয়াণে আমি গভীর শোক প্রকাশ করছি। তিনি আজ কলকাতায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন। বয়স হয়েছিল ৯১ বছর। ভিন্নধারার রুচিসম্মত সামাজিক চলচ্চিত্র নির্মাণে তরুণ মজুমদার উজ্জ্বল নিদর্শন রেখে গেছেন। তাঁর ছবিতে রবীন্দ্রসংগীতের প্রয়োগ দর্শককে আবিষ্ট করে রাখে। তরুণ মজুমদার পরিচালিত উল্লেখযোগ্য চলচ্চিত্র , বালিকা বধূ, শ্রীমান পৃথ্বীরাজ, ফুলেশ্বরী, দাদার কীর্তি, ভালবাসা ভালবাসা, সংসার সীমান্তে, গণদেবতা, শহর থেকে দূরে, পথভোলা, চাঁদের বাড়ি, আলো ইত্যাদি উল্লেখের দাবি রাখে। তিনি পদ্মশ্রী, জাতীয় পুরস্কার, বিএফজেএ পুরস্কার, ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড-সহ বিভিন্ন পুরস্কারে সম্মানিত হয়েছেন। তাঁর প্রয়াণ চলচ্চিত্র জগতে এক অপূরণীয় ক্ষতি। আমি তরুণ মজুমদারের পরিবার-পরিজন ও অনুরাগীদের আন্তরিক সমবেদনা জানাচ্ছি।"

    আরও পড়ুন: বর্ষীয়ান চিত্রপরিচালক তরুণ মজুমদার

    বিগত কয়েকদিন ধরেই অসুস্থ ছিলেন তরুণ মজুমদার। হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন পরিচালক। সঙ্কটজনক হলেও স্থিতিশীল ছিল তাঁর শারীরিক অবস্থা। কিন্তু রবিবার হঠাৎই ফের শারীরিক অবনতি হয় তাঁর। হঠাৎ সেকেন্ডারি ইনফেকশন হয় বর্ষীয়ান পরিচালকের। জানা যাচ্ছে, শনিবার থেকেই তাঁর স্বাস্থ্যের অবনতি হচ্ছিল।

    রবিবার দ্রুত শরীর খারাপ হয়ে পড়ায় শ্বাসকষ্ট শুরু হয় তরুণ মজুমদারের। তখনই তাঁকে ভেন্টিলেশনে দিতে হয়। রক্তে ক্রিয়েটিনিন এর মাত্রা অনেকটা বেড়ে গিয়েছে। রক্তচাপ স্বাভাবিকের চেয়ে অনেক কম। ৯২ বছর বয়সে একদিকে বয়স জনিত রোগে ভুগছিলেন তিনি ৷ গত ২২ বছর ধরে কিডনির সমস্যায় আক্রান্ত, হাই ডায়াবেটিসও রয়েছে তাঁর ৷ তার সঙ্গে নতুন করে ফুসফুসের সংক্রমণ নিয়ে হাসপাতালে ভর্তি হন তিনি। ৫ জন চিকিৎসকের মেডিক্যাল বোর্ড তৈরি করা হয়৷ মেডিসিন বিশেষজ্ঞ সৌমিত্র ঘোষ এবং চেস্ট মেডিসিনের সোমনাথ কুন্ডু-র তত্ত্বাবধানে ছিলেন তরুণ মজুমদার ৷

    প্রসঙ্গত, পরিচালনায় তাঁর অভিষেক ‘যাত্রিক’-এর হাত ধরে ৷ ১৯৬৩ পর্যন্ত শচীন মুখোপাধ্যায়, দিলীপ মুখোপাধ্যায়ের সঙ্গে ‘যাত্রিক’-এর মাধ্যমেই ছবি পরিচালনা করেন তরুণ মজুমদার ৷পরিচালনার কাজে সম্প্রতি তাঁকে পাওয়া না গেলেও চিন্তন ও অন্যান্য ভূমিকায় এখনও সক্রিয় ৷ কিছু দিন আগেই প্রেক্ষাগৃহে গিয়ে তিনি দেখেন অনীক দত্ত পরিচালিত ‘অপরাজিত’ ৷ ছবি দেখে মুগ্ধতার কথা তিনি জানান পরিচালক অনীককেও ৷ তাঁর মৃত্যুতে শোকের ছায়া চলচ্চিত্র জগতে।
    Published by:Rachana Majumder
    First published:

    Tags: Mamata Ban, Tarun Majumdar

    পরবর্তী খবর