Home /News /birbhum /
Birbhum: অভাবনীয়! ১০ বছর আগে চুরি যাওয়া মোটরবাইক ফিরে পেলেন মালিক

Birbhum: অভাবনীয়! ১০ বছর আগে চুরি যাওয়া মোটরবাইক ফিরে পেলেন মালিক

কখনও হয়তো বাইকের মালিক ভাবেননি এক দশক পর তাঁর সাধের বাইক ফিরে পাবেন। এমনটা না ভাবলেও সেই কাজই করে দেখালেন বীরভূমের দুবরাজপুর থানার পুলিশ।

  • Share this:

    #বীরভূম : কখনও হয়তো বাইকের মালিক ভাবেননি এক দশক পর তাঁর সাধের বাইক ফিরে পাবেন। এমনটা না ভাবলেও সেই কাজই করে দেখালেন বীরভূমের দুবরাজপুর থানার পুলিশ। পুলিশের উদ্যোগে এক দশক আগে চুরি যাওয়া বাইক ফিরে পেলেন বোলপুরের বাসিন্দা নাড়ুগোপাল ঘোষ। নাড়ুগোপাল বাবু বোলপুরে ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের ধর্মরাজতলার বাসিন্দা। তিনি জানান, ২০১২ সালের ২৮ অগাস্ট তিনি যে কোম্পানিতে কাজ করেন সেই কোম্পানির কাজে রাত্রিবেলায় ইলামবাজার যাচ্ছিলেন। সঙ্গে ছিল তার সাধের বাইক। সেই সময় রায়পুর বাসস্ট্যান্ডের কাছে কালভার্টে বেশ কয়েকজন দুষ্কৃতী তার পথ আটকায় এবং তাঁর কাছ থেকে মোটরবাইকটি কেড়ে নিয়ে হাত-পা ও মুখ বেঁধে রাস্তা থেকে প্রায় অনেকটাই দূরে ফেলে রেখে পালিয়ে যায়। দুষ্কৃতীরা যখন বাইকটা ছিনতাই করেছিল তখন বাইকটি নতুনই ছিল। নাড়ুগোপাল বাবু আরও জানান, স্বপ্নেও কোনও দিন ভাবেননি যে চুরি যাওয়া এই বাইকটি তিনি আবার ফিরে পাবেন। স্বভাবতই তাঁর সাধের বাইক ফিরে পেয়ে খুশি তিনি। ধন্যবাদও জানিয়েছেন দুবরাজপুর থানার পুলিশকে।

    তিনি কখনওই স্বপ্নেও ভাবেননি সেটাই করে দেখাল দুবরাজপুর থানার পুলিশ। এছাড়াও দুবরাজপুর থানার পুলিশের কাছ থেকে তিনি যা ব্যবহার পেয়েছেন তা তিনি কোনও দিন ভুলবেন না বলেই জানিয়েছেন। নাড়ুগোপাল ঘোষের বন্ধু লালমোহন সিং জানান, দশ বছর আগে হারিয়ে যাওয়া বাইক আমাদের মাথা থেকেই হারিয়ে গিয়েছিল।

    আরও পড়ুনঃ প্রয়াত পদ্মশ্রী প্রাপ্ত এক টাকার চিকিৎসক সুশোভন ব্যানার্জি

    দুবরাজপুর থানার প্রচেষ্টায় এভাবে বন্ধুর বাইক ফিরে পেয়ে স্বভাবতই খুশি। দুবরাজপুর থানার পুলিশকে অসংখ্য ধন্যবাদ। প্রসঙ্গত, দুবরাজপুর থানার পুলিশ গত ২৯ জুন দুবরাজপুর শহরের ৫ নম্বর ওয়ার্ডের মনিমোহন দাসকে গ্রেফতার করে তার কাছে থেকে নয়টি চোরাই মোটরবাইক উদ্ধার করেছিল। পরে তাঁকে নিজেদের হেফাজতে নিয়ে আরও দুটি মোটরবাইক উদ্ধার করে।

    আরও পড়ুনঃ সিউড়ির এই ব্যাঙ্কে RBI-এর বিধিনিষেধ হওয়ায় গ্রাহকদের টাকা কতটা সুরক্ষিত!

    মনিমোহন দাসের কাছ থেকে মোট ১১টি বাইক উদ্ধার করে দুবরাজপুর থানার পুলিশ। পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, মনিমোহন দাসের কাছ থেকে যে ১১টি চোরাই মোটরবাইক উদ্ধার হয়েছিল সেগুলির মধ্যে একটি ছিল নাড়ুগোপাল বাবুর। তার বাইকের সামনে ও পেছনের নম্বর প্লেট পাল্টে দিয়েছিল। ইঞ্জিন ও চ্যাসিস নম্বর দেখে আসল মালিকের পরিচয় বের করা হয়।

    Madhab Das
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Birbhum, Dubrajpur

    পরবর্তী খবর