• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Slim and trim belly : অপ্রস্তুত অবস্থা এড়াতে পেটের মেদ কমাতে চান? আজ থেকেই শুরু করুন এই নিয়মগুলি

Slim and trim belly : অপ্রস্তুত অবস্থা এড়াতে পেটের মেদ কমাতে চান? আজ থেকেই শুরু করুন এই নিয়মগুলি

পেটের মেদ কমানোর মূল অস্ত্র হল নিয়মিত শারীরিক অনুশীলন

পেটের মেদ কমানোর মূল অস্ত্র হল নিয়মিত শারীরিক অনুশীলন

Slim and trim belly : দেহের মধ্যপ্রদেশ বাড়তি মেদবর্জিত (Slim and trim belly) রাখলে যে শুধু দেখতেই ভাল লাগে, তা নয়৷ বরং এর ফলে সুস্থতা নিশ্চিত হয় অনেকটাই৷ পাশাপাশি আয়ুবৃদ্ধিও হয়৷

  • Share this:

    দেহের মধ্যপ্রদেশ বাড়তি মেদবর্জিত (Slim and trim belly) রাখলে যে শুধু দেখতেই ভাল লাগে, তা নয়৷ বরং এর ফলে সুস্থতা নিশ্চিত হয় অনেকটাই৷ পাশাপাশি আয়ুবৃদ্ধিও হয়৷ কোমরের আয়তনের উপর নির্ভর করে হৃদরোগের ঝুঁকি (cardiovascular disease) কম থাকা, মধুমেহ নিয়ন্ত্রণে থাকা এবং  ক্যানসারের মতো অসুখের আশঙ্কা কম হওয়ার বিষয়ও৷ ওজন কম থাকলে, বিশেষ করে তলপেট মেদবর্জিত (abdomen fat) হলে শরীরে রক্তপ্রবাহ ভাল হয়৷ দূর হয় অনিদ্রা সমস্যাও৷

    পেটের মেদ কমানোর মূল অস্ত্র হল নিয়মিত শারীরিক অনুশীলন, পুষ্টিকর খাওয়া, পর্যাপ্ত ঘুম এবং মানসিক উদ্বেগ নিয়ন্ত্রণে রাখা৷ কঠোর এবং নিরবচ্ছিন্ন শারীরিক অনুশীলন প্রয়োজন পেটের মেদ নিয়ন্ত্রণ করার জন্য ৷ দু’দিন করেই শরীরচর্চা বন্ধ করে দিলে হবে না৷ উইকএন্ড বাদ দিলেও সপ্তাহে অন্তত ৫ দিন রোজ কমপক্ষে আধঘণ্টা শরীরচর্চা করতে হবে৷ কিছু না হলে অন্তত জোরে জোরে হাঁটুন বেশ কয়েক পা৷ মন্থর গতিতে মৃদু ছন্দে হাঁটলে কিন্তু হবে না৷

    আরও পড়ুন : ধনতেরসে গয়না কিনবেন? দেখে নিন কোনটা আপনার পছন্দ

    পেটের মেদ কমানোর জন্য নির্দিষ্ট কোনও ডায়েট নেই৷ ডায়েটে বেশি করে ফাইবার রাখুন৷ দু’টো ছোট আপেল এবং এক কাপ মটরে যে পরিমাণ ফাইবার থাকবে, সেটা দৈনিক ডায়েটে থাকতেই হবে৷

    সারা দিনে পর্যাপ্ত ঘুম খুবই দরকার৷ যাঁরা রাতে গড়ে ৬ থেকে ৭ ঘণ্টা নিরচ্ছিন্ন ঘুমোন, তাঁরা সুস্থ থাকেন৷ রাতে ৫ ঘণ্টা বা তার থেকে কম এবং অন্যদিকে ৯ ঘণ্টা বা তার বেশি ঘুম পূর্ণবয়স্ক মানুষের জন্য ক্ষতিকর৷ মেদবর্জিত সুস্থ শরীরের জন্য নির্দিষ্ট সময়ের ঘুম অত্যাবশ্যকীয়৷

    আরও পড়ুন : গয়না ছাড়া আর কোন কোন জিনিস কিনতে পারেন ধনত্রয়োদশীতে

    আজকের জীবনে স্ট্রেস বা মানসিক উদ্বেগ থেকে দূরে দিন কাটানোর উপায় কার্যত নেই৷ তার থেকেও বেশি গুরুত্বপূর্ণ হল আপনি কী করে স্ট্রেস নিয়ন্ত্রণ করেন, সেটি৷ কাজের চাপ থাকবেই৷ কিন্তু তার মাঝেই সময় বার করে বন্ধুদের সঙ্গে আড্ডা দেওয়া, ধ্যানে মনঃসংযোগের মতো কাজ আপনাকে উদ্বেগের মোকাবিলা করতে সাহায্য করবে৷ তার পরও সমস্যা সমাধান না হলে কাউন্সেলিং করানো যেতে পারে৷

    আরও পড়ুন : রঙে যেন ঠিকরে পড়ে সোনার আলো; দীপাবলিতে সঙ্গে থাক ঘিয়ের আদরে মাখানো মিষ্টি পদ মাইসোর পাক

    সবথেকে শেষে আরও একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়৷ তা হল, একটানা বেশি ক্ষণ বসে থেকে কাজ করবেন না৷ কাজের মাঝে ক্ষণিকে বিরতি নিয়ে হেঁটে আসুন কয়েক পা৷ তার পর আবার ফিরে এসে কাজ শুরু করুন৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: