• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Protein Poisoning : আপনার শরীরে প্রোটিন কি বিষ হয়ে যাচ্ছে? এই লক্ষণ থাকলে এখনই সতর্কতা নিন

Protein Poisoning : আপনার শরীরে প্রোটিন কি বিষ হয়ে যাচ্ছে? এই লক্ষণ থাকলে এখনই সতর্কতা নিন

কিছু উপসর্গ দেখা দিলেই সতর্ক হতে হবে

কিছু উপসর্গ দেখা দিলেই সতর্ক হতে হবে

দেখা দেয় জটিল শারীরিক সমস্যা (Protein poisoning)

  • Share this:

    আমাদের শরীরের জন্য প্রোটিন (Protein) অন্যতম গুরুত্বপূ্র্ণ ম্যাক্রোনিউট্রিয়েন্ট ৷ আমিষ ও নিরামিষ খাবারে প্রোটিনের উৎস একাধিক ৷ স্কিনটোন এবং চুল উজ্জ্বল করা, ওজন হ্রাস এবং হাড় মজবুত করার জন্য প্রোটিন প্রয়োজনীয় ৷ কিন্তু প্রয়োজনের অতিরিক্ত প্রোটিন শরীরে প্রবেশ করলে হিতে বিপরীত হয় ৷ উপকারের পরিবর্তে প্রভূত ক্ষতিসাধন হয় ৷ দেখা দেয় জটিল শারীরিক সমস্যা (Protein poisoning) ৷

    পুষ্টিবিদরা মনে করেন, আমাদের প্রতি কেজি ওজনের জন্য এক গ্রাম প্রোটিন যথেষ্ট ৷ কার্বোহাইড্রেটস ও ফ্যাটের কম্বিনেশন ছাড়া এর থেকে বেশি প্রোটিন খাওয়া হলে দেখা দেবে ‘প্রোটিন পয়জনিং’-এর সমস্যা ৷ এই শারীরিক সমস্যার শিকার হলে কী করে বুঝবেন? কিছু উপসর্গ দেখা দিলেই সতর্ক হতে হবে ৷

    আরও পড়ুন : শরীরে থাবা বসিয়েছে থাইরয়েড; সমস্যা কী ভাবে বুঝবেন জেনে নিন বিশদে

    জলশূন্যতা

    অতিরিক্ত প্রোটিন খাদ্যতালিকায় থাকলে কিডনির উপর চাপ পড়ে ৷ কারণ মূত্রের মধ্যে দিয়ে বেশিমাত্রায় প্রোটিন তখন বেরিয়ে যায় ৷ এর ফলে শরীরে ডিহাইড্রেশন বা জলশূন্যতা দেখা দেয় ৷ তাই ডায়েটে সব সময় বেশি করে ফলের রস ও অন্য জলীয় পদার্থ রাখতে বলা হয় ৷

    ওজন বৃদ্ধি

    মাত্রাতিরিক্ত প্রোটিন খেলে ওজন কমানোর প্রক্রিয়া ব্যাহত হয় ৷ উল্টে অপ্রয়োজনীয়, বাড়তি ওজন জমতে থাকে ৷ তাই ওজন বৃদ্ধি পেলে সেটা প্রোটিন পয়জনিং-এর লক্ষণও হতে পারে ৷

    আরও পড়ুন : গ্যাস, অম্বলে কষ্ট পান? রেহাই পাবেন এই খাবারগুলিতে

    নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ

    সম্পূর্ণ প্রোটিন বেসড ডায়েটের আর এক নাম কেটোজেনিক ডায়েট (Ketogenic Diet) ৷ এতে কার্বোহাইড্রেটস থাকে না একদমই ৷ এই ডায়েটের ফলে শরীরের ফ্যাট ও কার্বস খরচ হয়ে যায় দ্রুত হারে ৷ ফলে নিঃশ্বাসে দুর্গন্ধ চলে আসে ৷

    মানসিক সমস্যা

    ডায়েটে অতিরিক্ প্রোটিন থাকলে এবং কার্বোহাইড্রেটস না থাকলে শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি দেখা দেয় নানারকম মানসিক সমস্যাও ৷ উদ্বেগ, হতাশা, ঘন ঘন মুড পরিবর্তন, নেগেটিভ চিন্তা বেড়ে যাওয়া-সহ নানা মানসিক সমস্যা দেখা দেয় ৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published: