Home /News /kolkata /
Rampurhat Update: ১০ পরিবারকে চাকরি, রামপুরহাট কাণ্ডে মৃতদের পরিবারপিছু চাকরির প্রস্তাব এল নবান্নে

Rampurhat Update: ১০ পরিবারকে চাকরি, রামপুরহাট কাণ্ডে মৃতদের পরিবারপিছু চাকরির প্রস্তাব এল নবান্নে

রামপুরহাট কাণ্ড

রামপুরহাট কাণ্ড

Rampurhat Update: মোট দশটি পরিবারের নিকট আত্মীয়দের চাকরি দেওয়ার প্রস্তাব আনা হয়েছে নবান্নে।

  • Share this:

কলকাতা: রামপুরহাট কাণ্ডে নিহত পরিবারের নিকটাত্মীয়দের চাকরি। ১০ টি পরিবারের নিকট আত্মীয়কে ক্ষতিপূরণ হিসাবে দেওয়া হবে চাকরি। আজ চাকরির প্রস্তাব এল নবান্নে। ভাদু শেখের পরিবারের নিকট আত্মীয়কেও চাকরির প্রস্তাব এল নবান্নে। রামপুরহাটে ঘটনাস্থল পরিদর্শনের সময়ই মুখ্যমন্ত্রী প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন নিকটাত্মীয়দের চাকরি দেওয়া হবে। সেই মোতাবেক জেলা প্রশাসন থেকে শুক্রবার রিপোর্ট এল নবান্নে।

আরও পড়ুন : বগটুই কাণ্ডে নিহতদের ডিএনএ পরীক্ষা করাবে সিবিআই, দিল্লি পাঠানো হচ্ছে নমুনা

খুব শীঘ্রই ক্যাবিনেট বৈঠক করেই এই সিদ্ধান্তে সিলমোহর দেওয়া হতে পারে বলে নবান্ন সূত্রে খবর। মোট দশটি পরিবারের নিকট আত্মীয়দের চাকরি দেওয়ার প্রস্তাব আনা হয়েছে নবান্নে। প্রসঙ্গত গত ২৪ মার্চ রামপুরহাটে ঘটনাস্থলে পৌঁছে নিহতদের পরিবারকে ৫ লক্ষ টাকা আর্থিক সাহায্য এবং পরিবারের একজনকে চাকরি দেওয়ার প্রতিশ্রুতি দেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়া যে সকল বাড়িগুলি আগুনে পুড়ে যায়, সেইসব বাড়ির খরচ বাবদ দু’লক্ষ টাকা করে দেওয়ার ঘোষণা করেন। মুখ্যমন্ত্রীর সেই ঘোষণা অনুযায়ী আজ নবান্নে এসে পৌঁছেছে দশটি পরিবারকে কম্পেন্সেশন গ্রাউন্ডে চাকরি দেওয়ার প্রস্তাব।

অন্যদিকে, বগটুই কাণ্ডে (Bagtui Violence) নিহতদের ডিএনএ পরীক্ষা করানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে সিবিআই (CBI)৷ ইতিমধ্যেই নিহতদের ডিএনএ-এর (DNA Test) নমুনা সংগ্রহ করে তা দিল্লির সেন্ট্রাল ফরেন্সিক সায়েন্স ল্যাবরেটরিতে পাঠানো হয়েছে৷ পাশাপাশি নিহতদের পরিবারের সদস্যদেরও ডিএনএ নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য দিল্লিতে পাঠানো হবে (Rampurhat Violence)৷

আরও পড়ুন : SSC গ্ৰুপ ডি মামলা, স্বস্তিতে এসএসসি কর্তা, আপাতত FIR করতে পারবে না CBI

বগটুই কাণ্ডের পর নিহতদের পরিবারের অভিযোগ ছিল, আগুনে পুড়ে নিহতদের শনাক্ত করার সময় তাঁদের ডাকা হয়নি৷ এই অভিযোগের ভিত্তিতেই নিহতদের ডিএনএ-এর সঙ্গে তাঁদের পরিবারের সদস্যদের ডিএনএ-র নমুনা মিলিয়ে দেখতে চায় কেন্দ্রীয় তদন্তকারী সংস্থা৷

উল্লেখ্য, বগটুই কাণ্ডে এখনও পর্যন্ত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে৷ এর মধ্যে গত ২১ মার্চ রাতে সোনা শেখের পুড়ে যাওয়া বাড়ি থেকে সাত জনের দেহ উদ্ধার হয়৷ এই সাতজনের দেহের শনাক্তকরণের প্রক্রিয়া নিয়েই বিতর্ক তৈরি হয়েছে৷ কারণ নিহতদের পরিবার অভিযোগ করেছিল, তাঁদের দিয়ে শনাক্তকরণ হয়নি৷ বগটুই কাণ্ডে আর এক নিহত নাজিমা বিবিকে অবশ্য তাঁর স্বামী শনাক্ত করেন৷

Published by:Sanjukta Sarkar
First published:

Tags: Nabanna, Rampurhat

পরবর্তী খবর