Home /News /international /
Mountain Gorilla Death: 'বন্ধু'র বুকে মাথা রেখে সেলফি-কুইন সেই গরিলার মৃত্যু, দাকাশি-কে হারিয়ে স্তম্ভিত বিশ্ব!

Mountain Gorilla Death: 'বন্ধু'র বুকে মাথা রেখে সেলফি-কুইন সেই গরিলার মৃত্যু, দাকাশি-কে হারিয়ে স্তম্ভিত বিশ্ব!

'বন্ধু'র বুকে মাথা রেখে সেলফি-কুইন সেই গরিলার মৃত্যু, দাকাশি-কে হারিয়ে স্তম্ভিত বিশ্ব!

'বন্ধু'র বুকে মাথা রেখে সেলফি-কুইন সেই গরিলার মৃত্যু, দাকাশি-কে হারিয়ে স্তম্ভিত বিশ্ব!

অবশেষে দাকাশির (Ndakasi) মৃত্যুর ঘটনায় শোকের ছায়া তার ভক্তদের মনে (Mountain Gorilla Death)।

  • Share this:

    #কলকাতা: দাকাশি (Ndakasi)। বিরল প্রজাতির এক মাউন্টেন গরিলা। আচমকাই বিশ্বজুড়ে খবরের শিরোনামে। ডেমোক্র্যাটিক রিপাবলিক অফ কম্বোর এই গরিলাটি এর আগেও খবরে এসেছিল। কিন্তু এবার এল একেবারে মন খারাপ করে দিতে। ১৪ বছরের এই বিরল প্রজাতির গরিলাটি মারা গিয়েছে (Mountain Gorilla Death)। দীর্ঘদিন ধরে অসুস্থতার কারণেই তার মৃত্যু হয়েছে (Mountain Gorilla Death)। ২০১৯ সালে দাকাশি (Ndakasi) আলোড়ন ফেলে দিয়েছিল এক বনকর্মীর সেলফিতে ফটোবম্ব করে। অর্থাৎ, ছবিটি যখন ওই বনকর্মী তুলছিলেন, পিছনে দাঁড়িয়ে ক্যামেরায় লুক দিয়ে দাঁড়িয়েছেল দাকাশিও (Ndakasi)। সেই সময় ওই ছবিটি ভাইরাল হয়েছিল সারা পৃথিবীতে। অবশেষে দাকাশির মৃত্যুর ঘটনায় শোকের ছায়া তার ভক্তদের মনে (Mountain Gorilla Death)।

    ইনস্টাগ্রামে একটি বিবৃতি জারি করে দাকাশির মৃত্যুর খবর জানানো হয়েছে। সেখানে লেখা হয়েছে, 'দুঃখের সঙ্গে জানাচ্ছি আমাদের প্রিয় অনাথ মাউন্টেন গরিলা দাকাশি মারা গিয়েছে। এক দশকেরও বেশি সময় ধরে পার্কের সেনকোয়েকি সেন্টারে ছিল সে।' নিজের কেয়ারটেকার ও প্রিয় বন্ধু আন্দ্রে বৌমার বুকে মাথা রেখেই শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেছেন ওই মাউন্টেন গরিলাটি। সোশ্যাস মিডিয়ায় ভিরুঙ্গা জাতীয় উদ্যানের তরফে তাঁর মৃত্যুর খরের পাশাপাশি শেয়ার করা হয়েছে সেই ছবিটিও। বিশ্বজুড়ে এই ছবি মন খারাপ করে দিয়েছে অসংখ্য মানুষের।

    ২০০৭ সাল থেকে দাকাশিকে রক্ষণাবেক্ষণের কাজ করেছেন আন্দ্রে বৌমা। মৃত মায়ের কোলে শুয়ে থাকা অবস্থায় দাকাশি মাত্র ২ বছরের ছিল। সেই সময় সেখান থেকেই রেঞ্জার উদ্ধার করেছিল দাকাশিকে। জঙ্গলে একা ফিরে যেতে ভয় পেয়েছিল দাকাশি, তাই বনকর্মীরা তাকে উদ্ধার করে অনাথ মাউন্টেন গরিলা সেন্টারে নিয়ে গিয়েছিল। তার পর থেকেই সেখানেই বড় হয়ে উঠেছিল দাকাশি। এবং আন্দ্রেই তার দেখভালের দায়িত্বে ছিলেন।

    আন্দ্রে বৌমা দাকাশির স্মৃতিচারণে বলেছেন, 'এরকম একটা প্রাণীকে দেখাশোনা ও যত্ন করার সুযোগ পাওয়া গর্বের। বিশেষ করে এত ছোট বয়সে এত কষ্ট সহ্য করেছে দাকাশি। দাকাশি খুবই মিষ্টি স্বভাবের ও বুদ্ধিমতী ছিল। ও আমাকে বুঝিয়েছিল মানবজাতির সর্বশক্তি দিয়ে প্রাণীদের রক্ষার কাজ করা উচিত। আমি দাকাশিকে আমার বন্ধু বলতে পেরে গর্বিত। ওকে আমি একটা শিশুর মতো ভালোবেসেছি। যখনই ওর সঙ্গে দেখা হয়েছে, আমার মুখে হাসি ফুটিয়েছে দাকাশি।'

    আরও পড়ুন: ডিয়ার পার্ক থেকে পালাল চিতাবাঘ, চরম আতঙ্কে গোটা ঝাড়গ্রাম!

    Published by:Raima Chakraborty
    First published:

    Tags: Animal, Death, Viral

    পরবর্তী খবর