সাউন্ডওয়াচ! বধির ব্যক্তিদের আশেপাশের শব্দের জানান দিতে তৈরি হল নতুন ঘড়ি!

সাউন্ডওয়াচ! বধির ব্যক্তিদের আশেপাশের শব্দের জানান দিতে তৈরি হল নতুন ঘড়ি!

মাসখানেক আগে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলেছিল বিশ্বকে।

মাসখানেক আগে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলেছিল বিশ্বকে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: মাসখানেক আগে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলেছিল বিশ্বকে। বিশ্ব দৃষ্টি দিবস উপলক্ষে করা এই সমীক্ষা এক মর্মান্তিক সত্য চোখে আঙুল দিয়ে দেখিয়ে দিয়েছিল আমাদের। আমরা জানতে পেরেছিলাম যে কোভিড ১৯-এর সংক্রমণ এবং তার জেরে ঘটে যাওয়া লকডাউন, শারীরিক দূরত্ববিধি আরোপের বিষয়গুলি কতটা মাসখানেক আগে প্রকাশিত একটি সমীক্ষা যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলেছিল বিশ্বকে।সমস্যায় ফেলে দিয়েছে দৃষ্টিহীনদের! বধির ব্যক্তিদের ক্ষেত্রে ঠিক এ সমস্যা না থাকলেও সন্দেহ নেই যে তাঁদেরও জীবনযাত্রা একেবারে মসৃণ নয়! প্রতিবন্ধকতাই তার প্রধান কারণ। আর এই লক্ষ্যেই চমকে দিচ্ছে ইউনাইটেড স্টেটসের এক বধির ভারতীয় বিজ্ঞানী ধ্রুব জৈনের নতুন আবিষ্কার। স্মার্টওয়াচ আমাদের নানা নোটিফিকেশন পাঠায় ঠিকই, কিন্তু সেই কাজটিকেই কেবল একটি বিশেষ ক্ষেত্রে সীমিত রেখে তিনি উদ্ভাবন করেছেন সাউন্ডওয়াচ। অর্থাৎ যে স্মার্টওয়াচ কেবল আশেপাশের সব্দ শুনে তা সম্পর্কে সজাগ করবে বধির ব্যক্তিদের। জৈন জানিয়েছেন যে তিনি প্রথম এই সাউন্ডওয়াচের কার্যবত্তা পরীক্ষা করে দেখেন নিজের ক্ষেত্রে। তাঁর বক্তব্য, হাইকিংয়ের সময়ে পাখির ডাক এবং ঝরনার জলের শব্দের নোটিফিকেশন তিনি সেট করে রেখেছিলেন। যা কি না তাঁকে প্রকৃতির সান্নিধ্যে থাকার আস্বাদন দেয়।

আর এর পরেই সিয়াটলের ৬টি বধির পরিবারকে নিয়ে তিনি সাউন্ডওয়াচের কার্যকারিতার সমীক্ষা চালান। এই পর্বটির নাম দেওয়া হয়েছে হোম সাউন্ড। অর্থাৎ দৈনন্দিন জীবনে বাড়ির মধ্যে যে সব শব্দ সম্পর্কে আমাদের সজাগ না থাকলে চলে না, সেগুলো নিয়েই কাজ করেছে সাউন্ডওয়াচ। মাইক্রোওভেনের শব্দ, ফোনের শব্দ, কলিং বেলের শব্দ, পোষ্যের ডাক- এমন অনেক কিছু সম্পর্কে সে ঠিক ঠিক তথ্য সরবরাহ করেছে পরিবারগুলোকে। সদস্যরা কোনও প্রয়োজনে বাইরে গেলেও বাড়িতে ফিরে আসার পরে এই নোটিফিকেশনগুলো দেখতে পেয়েছেন। জৈন বলছেন যে এটাই হল তাঁর তৈরি সাউন্ডওয়াচের বৈশিষ্ট্য, ফোনে মেসেজ আসার মতো করেই তা সব নোটিফিকেশন জমা করে রাখবে বধির ব্যক্তিদের জন্য। তাঁরা বাড়ির বাইরে একে নিয়ে গেলে গাড়ির হর্ন বা অন্য কোনও শব্দ শুনেও সেই মতো নোটিফিকেশন পাঠিয়ে সতর্ক করতে পারবে ইউজারকে। এখনও পর্যন্ত অবশ্য এই যন্ত্র কেনাকাটার জন্য বাজারে আসেনি! দেখা যাক, কবে সে ধাপ সম্পূর্ণ হয়!

Published by:Akash Misra
First published: