হোম /খবর /দক্ষিণবঙ্গ /
বারবার ডেকেও মেলেনি সাহায্য, যুবতীর মর্মান্তিক পরিণতি

বারবার ডেকেও মেলেনি সাহায্য, যুবতীর মর্মান্তিক পরিণতি

জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

  • Share this:

#পূর্ব বর্ধমান: চিকিৎসার গাফিলতিতে এক প্রসূতির মৃত্যুকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল পূর্ব বর্ধমানের জামালপুর থানার কাড়ালাঘাটে। নার্সিংহোমের গাফিলতিতে ওই প্রসূতির মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ। এ ব্যাপারে পুলিশের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন মৃতার আত্মীয়-পরিজন। যদিও চিকিৎসায় গাফিলতির অভিযোগ অস্বীকার করেছে ওই নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ।

জামালপুর থানার আঝাপুরের রিম্পা ক্ষেত্রপাল প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে মঙ্গলবার কাড়ালাঘাটের একটি নার্সিংহোমে ভর্তি হন। বুধবার সিজার করে তাঁর দুটি সন্তান প্রসব করানো হয়। প্রসূতিকে অপারেশন থিয়েটার থেকে বের করে বেডে দেওয়া হয়। কিছুক্ষণ পর অস্ত্রপচারের জায়গা থেকে রক্তক্ষরণ শুরু হয়। দীর্ঘক্ষণ পর নার্সিংহোমে নার্স ও এক স্বাস্থ্যকর্মী প্রসূতিকে থেকে দেখতে যান। তাঁরা ব্যবস্থা নিলেও রক্তপাত বন্ধ হয়নি।

এরপর নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষ প্রসূতিকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে দেয়। পরিবারের লোকজন তড়িঘড়ি তাঁকে বর্ধমান হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানে চিকিৎসক তাঁকে মৃত বলে ঘোষণা করেন।

মৃতের আত্মীয়দের অভিযোগ, রিম্পাকে বেডে দেওয়ার পর সিজারের জায়গা থেকে রক্ত বের হতে থাকে। বার বার নার্সিংহোম কর্তৃপক্ষকে বিষয়টি জানানো হয়। কিন্তু ওরা কোনও ব্যবস্থা নেয় নি। তার বদলে বিনা চিকিৎসায় দীর্ঘক্ষণ ফেলে রাখা হয়েছিল। অনেক পরে নার্সিংহোমের এক স্বাস্থ্যকর্মী ও নার্স এসে ব্যান্ডেজ করেন। তারপরেও রক্তপাত বন্ধ হয়নি।

এরপরেই তাঁরা তাঁকে বর্ধমান মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে রেফার করে দেয়। পরিবারের দাবি, সময়মতো ব্যবস্থা নেওয়া হলে মৃত্যু হত না। নার্সিংহোমের গাফিলতিতেই তাঁদের মেয়ের মৃত্যু হয়েছে বলে দাবি করেছেন রিম্পার বাবা ঝন্টু ক্ষেত্রপালের।

আরও পড়ুন, বিশ্বকাপের খেলা দেখার মজা আরও বাড়িয়ে দিল JIO, জানুন এই প্ল্যান সম্পর্কে

নার্সিংহোমের তরফে মোহাম্মদ আজিজ বলেন, গাফিলতি অভিযোগ ঠিক নয়। রক্তক্ষরণের বিষয়টি জানার পরই দ্রুত ব্যবস্থা নেওয়া হয়। চিকিৎসক প্রসূতিকে দেখেন। চিকিৎসকের পরামর্শ মতোই প্রসূতিকে হাসপাতালে রেফার করা হয়।

আরও পড়ুন, আজও মেলেনি 'মুক্তি', এর মাঝেই ফের বিপাকে অনুব্রত, ইডি-র হাতে কোন নতুন তথ্য?

জেলা পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, এই ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে। সত্যিই ওই নার্সিংহোমের কোনও গাফিলতি ছিল কিনা তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

Published by:Suvam Mukherjee
First published:

Tags: Bardhaman, Hospital, Nursing Home, Police