Home /News /south-bengal /
The University of Burdwan: কোটি টাকা কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ! রেজাল্ট দুর্নীতি! বিক্ষোভ বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে!

The University of Burdwan: কোটি টাকা কাটমানি খাওয়ার অভিযোগ! রেজাল্ট দুর্নীতি! বিক্ষোভ বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে!

The University of Burdwan: দিনের পর দিন নানা দুর্নীতি চলছে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে! এমনকি কোটি কোটি টাকার কাটমানি? কী চলছে এসব? অবশেষে বিক্ষোভে ছাত্ররা

  • Share this:

#বর্ধমান: বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ে বিক্ষোভ। সময়ে ফলাফল প্রকাশ না হওয়া, রেজাল্টের হার্ড কপি না দেওয়া সহ পরীক্ষা সংক্রান্ত দুর্নীতির প্রতিবাদে বিক্ষোভ। মঙ্গলবার দুপুরে বিক্ষোভ দেখালো এসএফআই। বিক্ষোভ শেষে পরীক্ষা নিয়ামকের কাছে ডেপুটেশন দেওয়া হয়। বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের রাজবাটি ক্যাম্পাসে এই বিক্ষোভ হয়।

এসএফআই এর জেলা কমিটির সম্পাদক অর্নিবান রায়চৌধুরীর অভিযোগ, ২০১৪ সালের পর থেকে রেজাল্ট সমস্যায় ভুগছে পড়ুয়ারা।যে বেসরকারি সংস্থা  রেজাল্ট প্রকাশে  ব্যর্থ হয়েছিলো আবার সেই স্টুডেন্ট সার্কেল নামে সংস্থাকে ২৭ কোটি টাকা ব্যয় বরাদ্দ করে বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন কলেজ গুলোর এ্যাডমিট কার্ড ও রেজাল্ট প্রকাশের দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর এ বিষয়ে সরব হয়ে এসএফআই এর অভিযোগ, কেন  ব্যর্থ সংস্থাকে ফের এ কাজে যুক্ত করা হল? পাশাপাশি তাদের আরও অভিযোগ, আড়াই লক্ষ টাকা করে এক একটি কলেজে খরচ হয়। সেখানে বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন ৬৫ টি কলেজে ১ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা খরচ হয়।সেখানে কেন ৭ কোটি টাকা খরচ করা হবে? তবে কি তা শুধু পাইয়ে দেওয়ার জন্যই। এখানেও বর্ধমান বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ কাটমানির টাকা খেয়েছে বলে অভিযোগ।

আরও পড়ুন: অচিন্ত্যর সোনা জয় কী ফেরাবে গ্রামের ভাগ্য? বন্ধ প্রশিক্ষণ! প্রতিশ্রুতিই সার!

পূর্ণাঙ্গ তদন্ত দাবি করে তাদের আরও অভিযোগ,স্টুডেন্ট সার্কেল নামে যে সংস্থা আছে,সেই সংস্থার হয়ে পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের ঘনিষ্ঠ বান্ধবী তার ঘনিষ্ঠ মহলের ব্যক্তিদের দিয়ে এই কাজ করা হচ্ছে। অন্যদিকে এসএফআইয়ের বক্তব্য, পি এইচ ডি, এমফিলের পড়ুয়ারা সচিত্র অ্যাডমিট কার্ড ছাড়াই পরীক্ষা দিচ্ছে। কর্তৃপক্ষ ছাত্রছাত্রীদের বেনিয়মের সঙ্গে পড়ুয়াদের পরীক্ষায় বসার ব্যবস্থা করে দিলো। ইচ্ছাকৃত ভাবে কর্তৃপক্ষ এটা করেছে বলে অভিযোগ । এছাড়াও আর্ট ও ডিজাইন কলেজ এর ছাত্র ছাত্রীরা এখনও রেজাল্ট হাতে পা নি। ফলে তারা অন্য কোথাও ভর্তি  হতে পারছে না বলেও অভিযোগ তুলেছে তারা। এইসব অভিযোগের যৌক্তিকতা খতিয়ে দেখতে সোমবারই প্রো ভাইস চ্যান্সেলরের নেতৃত্বে একটি ফ্যাক্ট ফাইন্ডিং কমিটি গড়েছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।

শরদিন্দু ঘোষ 

Published by:Piya Banerjee
First published:

Tags: Burdwan, Burdwan University, The University of Burdwan

পরবর্তী খবর