দু’‌মাস বন্ধ থাকার পর খুলল তারকেশ্বর মন্দির, কড়া স্বাস্থ্যবিধি মেনেই চলবে সব

এর আগে পঁচিশে জুন একদিনের জন্য খোলা হয় তারকেশ্বর মন্দির। শর্তসাপেক্ষে দু'দফায় সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য মন্দির খোলে কর্তৃপক্ষ।

এর আগে পঁচিশে জুন একদিনের জন্য খোলা হয় তারকেশ্বর মন্দির। শর্তসাপেক্ষে দু'দফায় সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য মন্দির খোলে কর্তৃপক্ষ।

  • Share this:

#‌তারকেশ্বর:‌ করোনা সংক্রমণের শুরু থেকেই ভিড় এড়াতে কোপ পড়ে ধর্মস্থানগুলিতে। ধর্মস্থানে সাধারণত হাজার হাজার ভক্ত সমাগম হয়, তাই সেগুলি প্রথমেই বন্ধ করে দেওয়া হয়। কিন্তু আনলক পর্ব শুরু হওয়ার পর থেকে ধীরে ধীরে ধর্মস্থানে নিয়ম মেনে ছাড় দিতে শুরু করে প্রশাসন। সেই নিয়ম মেনেই একবার খোলার পরেও বন্ধ হয়ে যাওয়া তারকেশ্বর মন্দির ফের খুলল। দু'মাস বন্ধ থাকার পর শুক্রবার থেকে খুলে গেল মন্দিরের দরজা। করোনা সংক্রমণ এড়াতে সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা হয়েছে মন্দির। মন্দিরে ঢুকতে মাস্ক বাধ্যতামূলক করা হয়েছে। অর্থাৎ, মন্দিরে ঢুকতে গেলেই মানতে হবে সমস্ত স্বাস্থ্যবিধি। তবে গর্ভগৃহে ঢুকতে পারবেন না দর্শনার্থীরা। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে বাইরে থেকেই শিবলিঙ্গ দর্শন করতে হবে।

এর আগে পঁচিশে জুন একদিনের জন্য খোলা হয় তারকেশ্বর মন্দির। শর্তসাপেক্ষে দু'দফায় সাড়ে পাঁচ ঘণ্টার জন্য মন্দির খোলে কর্তৃপক্ষ। করোনা সংক্রমণ বাড়ায়, ফের বন্ধ হয়ে যায় মন্দিরের দরজা। এমনটা দেশের অনেক ধর্মস্থানের ক্ষেত্রেই ঘটেছে। তারপর ধীরে ধীরে পরিস্থিতি আরও স্বাভাবিক হয়েছে। সরকার অনেকগুলি ক্ষেত্রে ছাড় দিতে শুরু করেছে। সেই পরিস্থিতিতেই শুক্রবার তারকেশ্বর মন্দিরের মোহন্ত মহারাজের নির্দেশে সমস্ত রকম স্বাস্থ্যবিধি মেনে আবারও খুলল মন্দিরের দরজা। এবারে মন্দিরে ঢুকতে মাস্ক বাধ্যতামূলক। ঢোকা যাবে না গর্ভগৃহে। বাইরের চাতাল থেকেই তারকনাথ দর্শন করতে হবে।আপাতত ভোর ৬ থেকে দুপুর ১২ পর্যন্ত খোলা থাকবে মন্দির।

যেমন করে আমাদের চারপাশটা বদলেছে। যেমন করে করোনা মোকাবিলায় বাধ্য হয়ে চারপাশের অনেক নিয়মকানুন বদলাতে হয়েছে সাধারণ মানুষকে, তেমন করেই মন্দিরের ক্ষেত্রেও পাল্টে যাচ্ছে নিয়ম। নতুন করে স্বাস্থ্যবিধি মেনে মন্দির খোলার পর থেকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে, বাইরে থেকে জল এনে বাবা তারকনাথের মাথায় ঢালা যাবে না। মন্দির চত্বরে রাখা চোঙায় দুধপুকুর থেকে নেওয়া জলই ঢালতে হবে। ভিড় এড়াতে ১৫ মিনিট অন্তর মন্দিরের ৪টি গেটের একটি করে খোলা হচ্ছে। মন্দিরে ঢোকার ক্ষেত্রে সামাজিক দূরত্ব বিধি বজায় রাখতে বাড়তি তৎপর মন্দির কর্তৃপক্ষ। এতদিন পর মন্দির খোলায় খুশি ভক্তরা।

ভক্তদের সচেতন করতে মন্দির চত্বরে চলছে মাইকিং। আগামী কয়েকদিন পরিস্থিতি বুঝে পরে এক ঘণ্টা করে মন্দির খোলা রাখার সময় বাড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

Debapriya Dutta Majumdar

Published by:Uddalak Bhattacharya
First published: