• Home
  • »
  • News
  • »
  • south-bengal
  • »
  • Kali Puja 2021 | Bangla news: প্রেতদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়ার পরে মিলছে মায়ের দেখা! গড়িয়া শ্মশানের পুজোয় বিশেষ আকর্ষণ

Kali Puja 2021 | Bangla news: প্রেতদের সঙ্গে সাক্ষাৎ হওয়ার পরে মিলছে মায়ের দেখা! গড়িয়া শ্মশানের পুজোয় বিশেষ আকর্ষণ

Kali Puja 2021 | Bangla news: অন্ধকার রাতে কৃষ্ণ পক্ষের দেবী কালী। সেই কালীর আরাধনায় ভুতুড়ে ভুতুড়ে পরিবেশ তৈরির সঙ্গে মায়ের উগ্র মূর্তি দর্শন। সমস্ত মনটাই যেন কেড়ে নেয়, শ্মশান কালীর আবহ।

Kali Puja 2021 | Bangla news: অন্ধকার রাতে কৃষ্ণ পক্ষের দেবী কালী। সেই কালীর আরাধনায় ভুতুড়ে ভুতুড়ে পরিবেশ তৈরির সঙ্গে মায়ের উগ্র মূর্তি দর্শন। সমস্ত মনটাই যেন কেড়ে নেয়, শ্মশান কালীর আবহ।

Kali Puja 2021 | Bangla news: অন্ধকার রাতে কৃষ্ণ পক্ষের দেবী কালী। সেই কালীর আরাধনায় ভুতুড়ে ভুতুড়ে পরিবেশ তৈরির সঙ্গে মায়ের উগ্র মূর্তি দর্শন। সমস্ত মনটাই যেন কেড়ে নেয়, শ্মশান কালীর আবহ।

  • Share this:

#দক্ষিণ২৪পরগনা: দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার সব থেকে পুরানো আদি মহাশ্মশানের কালীর আরাধনা। এই পুজো কয়েক শ বছর ধরে চলে আসছে। এই শ্মশানের ইতিহাস অনেক পুরনো। মূলত আদি গঙ্গা নদীর পাড়ে ছিল এই শ্মশান। এই শ্মশানটি অবস্থিত গড়িয়া হাটের পাশে। ধনপতির চাঁদ সদাগরের ছেলে লক্ষীন্দর সওদাগর তাঁর বাণিজ্যে যাওয়ার সময়ে এখানে উঠেছিলেন। সেই সময়ে এখানে একটি কালী মন্দির এবং একটি শিব মন্দির তৈরি করেছিলেন তিনি।

যদিও ধনপতি সওদাগর শৈব ছিলেন। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা থেকেই শ্মশানের মা কালীর পুজো দেখার জন্য অসংখ্য মানুষ ভিড় করেন। প্রতিবছরেরই রীতি এটি। তবে শ্মশানের ভিতরে ঢুকতে হয় খুব সাবধানে। একে তো অমাবস্যার রাত। অন্যদিকে সবাই বলেন আত্মারা জেগে ওঠে। হাঁটতে হাঁটতে ভিতরের দিকে গেলে হঠাৎ করে সামনে ঝাঁপিয়ে পড়তে পারে কোনও পেত্নী। কোনও ভাবে পাশ কাটিয়ে এগিয়ে গেলে আবার দেখবেন, বসে রয়েছেন যম দূত। প্রথম থেকেই মা কালী দর্শন করতে গিয়ে ভূতেদের সঙ্গে একটা লড়াই করতে হয়। সব কাটিয়ে তারপরে দেখা মেলে মায়ের।

আরও পড়ুন- বর্ধমানে রাতারাতি তৈরি জোড়া বুর্জ খলিফা! শ্রীভূমির জনপ্রিয়তা দেখেই উদ্যোগ পুজো কমিটির

শ্মশানের ভিতরে হয়তো দেখবেন উপর থেকে একটা ভূত হাত বাড়াচ্ছে আপনার দিকে। কোনও ভূত আবার হনুমানের মতো গাছের ডালের, এপাশ থেকে ওপাশ ঘুরে বেড়াচ্ছে। তবে বাচ্চাদের নিয়ে গেলে মজা পাবেন বটে, কিন্তু বাড়িতে এসে সামলানো মুশকিল হবে। আর বেশ কয়েকদিনের গল্পের রসদ পাবেন। অনাড়ম্বর এই পুজো। পুজো উদ্যোক্তাদের ব্যয় বহন করার তেমন কোনও ক্ষমতা নেই বটে।

আরও পড়ুন- শ্রীভূমির পরে এবার 'বুর্জ খলিফা' উত্তরবঙ্গে! ফের কোভিড বিধি ভুলে মানুষের ঢল মণ্ডপে

তবে শ্মশানকালীর আরাধনায় কোনও ত্রুটি রাখেনি তারা। আজ শুক্রবার দুপুরবেলা ভোগের আয়োজন করেছে পুজো কমিটির সবাই। প্রতিবারই সেই ভোগের দিকে সারা এলাকার মানুষজন তাকিয়ে থাকেন। ভোগকে পরমান্ন হিসাবে সবাই গ্রহণ করেন। রাত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে মায়ের পুজো শুরু হয়। অন্যদিকে পূর্বসূরীদের জন্য মোমবাতি,প্রদীপ জ্বালানোতেও ব্যস্ত ছিলেন প্রচুর মানুষ। সন্ধার পরে ঢুকলেই মনটা পরিবর্তন হয়ে যায় বলছেন দর্শনার্থীরা।

Shanku Santra

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: