করোনা জয় করে বাড়ি ফিরল ২ বছরের শিশু

পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার ব্লকের কালিপাহাড়ি গ্রামে একটি দু’বছরের শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল।

পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার ব্লকের কালিপাহাড়ি গ্রামে একটি দু’বছরের শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল।

  • Share this:

#বর্ধমান: মারণ ভাইরাস করোনা এখনও আতঙ্ক ছড়িয়ে চলেছে বিশ্বজুড়ে। ঠিক তখন পূর্ব বর্ধমানের ভাতারে সেই করোনাকে জয় করে বাড়ি ফিরল দুই বছরের এক শিশু। এই ঘটনায় আনন্দিত তার পরিবার-পরিজন ও পাড়া-পড়শিরা। তাকে সম্বর্ধিত করল ব্লক প্রশাসনও। জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, এই শিশুর মতো বেশিরভাগ বাসিন্দাই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। এটা খুবই স্বস্তির ব্যাপার। বাকিরা চিকিৎসাধীন রয়েছেন। কয়েক দিনের মধ্যে তাঁরাও পুরোপুরি সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরবেন বলে আশা করা হচ্ছে।

পূর্ব বর্ধমান জেলার ভাতার ব্লকের কালিপাহাড়ি গ্রামে একটি দু’বছরের শিশু করোনায় আক্রান্ত হয়েছিল। দীর্ঘ ১৪ দিন সে ভর্তি ছিল দুর্গাপুরের সনকা কোভিড হাসপাতালে। করোনাকে পরাজিত করে সুস্থ হয়ে মঙ্গলবার রাতে বাড়ি ফিরেছে ওই দুই বছরের শিশুটি। বুধবার ভাতারের ব্লক আধিকারিক শুভ্র চট্টোপাধ্যায়, ভাতার থানার ভারপ্রাপ্ত পুলিশ আধিকারিক প্রণব কুমার বন্দ্যোপাধ্যায় ও নিত্যানন্দপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের উপ-প্রধান জুলফিকার আলি সম্বর্ধনা দিতে হাজির হন ওই শিশুটির বাড়িতে। খুশি তাঁরা সকলেই। ব্লক প্রশাসনের তরফ থেকে বেশ কিছু খেলনা, চকোলেট উপহার হিসেবে তার হাতে তুলে দেওয়া হয়। পরিষ্কার বোল না ফুটলেও খেলনা চকলেট পেয়ে সে যে খুব খুশি তা আধো আধো বোলে বুঝিয়ে দিয়েছে ওই শিশু।

প্রশাসনের ভূমিকায় খুশি পরিবারের লোকজনও। ওই শিশুটির মা-বাবা খুশি হয়েছেন প্রশাসনের আধিকারিকরা বাড়ি এসে খোঁজ খবর নেওয়ায়। তাঁরা বলছেন, এক রত্তি শিশুর করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসায় খুবই বিচলিত হয়ে পড়েছিলাম। প্রশাসন দ্রুত চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। হাসপাতালের ব্যবস্থাও খুব ভাল। ডাক্তার নার্সদের ভূমিকাও খুব ভাল। তাঁরা অক্লান্ত পরিশ্রম করেছেন।

জেলা প্রশাসন জানিয়েছে, জেলায় এখনও পর্যন্ত ১২৭ জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। তার মধ্যে বেশির ভাগই বাইরের রাজ্য থেকে আক্রান্ত হয়ে জেলায় ফিরেছিলেন। তাদের মধ্যে শতাধিক পুরুষ-মহিলা ইতিমধ্যেই সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন। বাকিরাও চিকিৎসায় ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে উঠছেন। কয়েকদিনের মধ্যে তাঁরাও হাসপাতাল থেকে ছাড়া পাবেন বলে আশা করা হচ্ছে। এই জেলায় এখনও পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়ে কারও মৃত্যুর খবর নেই। করোনায় আক্রান্তদের হদিশ পেতে নিয়মিত নমুনা পরীক্ষা করা হচ্ছে।

Published by:Dolon Chattopadhyay
First published: