Home /News /north-bengal /
Alipurduar :পাত্রীর পরিবারের কাছ থেকে ৬ লক্ষের বেশি টাকা আত্মসাৎ করে বিয়ের দিন উধাও হবু ‘অধ্যাপক’ বর

Alipurduar :পাত্রীর পরিবারের কাছ থেকে ৬ লক্ষের বেশি টাকা আত্মসাৎ করে বিয়ের দিন উধাও হবু ‘অধ্যাপক’ বর

Representative Image

Representative Image

প্রতারণার অভিযোগ দায়ের মালদহের ইংরেজবাজারে (Malda)। তদন্তে নামল পুলিশ।

  • Share this:

আলিপুরদুয়ার : সংবাদপত্রে বিজ্ঞাপন দেখে যোগাযোগ। অধ্যাপক পরিচয় দিয়ে বিয়ের পাকা কথা। একাধিকবার সাক্ষাৎ। বিয়ের প্রস্তুতির জন্য ধাপে ধাপে নগদে ৬ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা নেওয়ারও অভিযোগ। বিয়ের জন্য বাবা-মা-সহ মালদহে হাজির পাত্রীও। খবর পেয়ে বিয়ের দিনে "উধাও" বর। প্রতারণার অভিযোগ দায়ের মালদহের ইংরেজবাজারে (Malda)। তদন্তে নামল পুলিশ।

বিয়ের দিনে হবু বরের পর্দা ফাঁস। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে কয়েক লক্ষ টাকার প্রতারণার অভিযোগ পাত্রের বিরুদ্ধে। কলেজের অধ্যাপক পরিচয় দিয়ে এক মহিলা স্বাস্থ্য কর্মী ও তাঁর পরিবারের কাছ থেকে ধাপে ধাপে প্রায় ৬ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা প্রতারণার অভিযোগ।প্রায় তিন বছর আগে পত্রিকায় ‘পাত্র চাই’ বিজ্ঞাপন দেন আলিপুরদুয়ারের (Alipurduar) এক পরিবার। পাত্রী পেশায় স্বাস্থ্যকর্মী।

আরও পড়ুন : আউশগ্রামের জঙ্গলেই মূর্তিমান বিভীষিকা, উদ্বিগ্ন এলাকার বাসিন্দারা

অভিযোগ, ওই বিজ্ঞাপনের সূত্র ধরে মহিলা স্বাস্থ্যকর্মীর সঙ্গে কলেজ অধ্যাপক পরিচয় দিয়ে বিয়ে ঠিক করে পাত্র। পাত্রীর দাবি, হবু পাত্রের নাম সুমন মজুমদার। ওই পাত্র জানান তাঁর বাড়ি মালদা শহরের সর্বমঙ্গলা পল্লী এলাকায়। নিজেকে রায়গঞ্জ কলেজের অধ্যাপক বলেও পরিচয় দেন। মোবাইল মারফত বাড়ির সঙ্গে যোগাযোগের পর তাঁদের বিয়েও ঠিক হয়। অভিযোগ, বিয়ের আসবাবপত্র এবং অন্যান্য খরচের কথা বলে ধাপে ধাপে ৬ লক্ষ ৬০ হাজার টাকা নগদ প্রতারণা করে হবু বর।

আরও পড়ুন : বৈদ্যুতিন তারের জঙ্গল, পুরনো বাতানুকূল যন্ত্রের মিছিলে পর পর অগ্নিকাণ্ডের পরও গুরুত্বপূর্ণ এই হাসপাতাল সেই ‘জতুগৃহ’-ই

বার বার বিয়ের তারিখ পিছিয়ে শেষপর্যন্ত বুধবার, ২ ফেব্রুয়ারি বিয়ের দিন ধার্য হয়। বিয়ের সমস্ত প্রস্তুতি করে রেখেছেন বলে জানিয়ে পাত্রী ও তাঁর বাবা-মাকে মালদহে ডাকা হয়। কিন্তু, তাঁরা মালদহে পৌঁছেছেন শুনেই মোবাইল যোগাযোগ বন্ধ করে দেন হবু বর।

আরও পড়ুন : সুন্দরবনে নৌকার উপর ঝাঁপিয়ে পড়ে মৎস্যজীবীকে তুলে নিয়ে গেল বাঘ

মোবাইলে কোনও যোগাযোগ না হওয়ার কারণে পাত্রের ছবি নিয়ে সর্বমঙ্গলা পল্লী এলাকায় দীর্ঘ ক্ষণ খোঁজখবর চালান পাত্রী ও পরিবার। কিন্তু তাঁদের দাবি, পাত্রের আর খোঁজ মেলেনি। এদিন পাত্রের সন্ধান না পেয়ে দৃশ্যতই ভেঙে পড়েন ওই পরিবার। শেষে প্রতারিত হয়েছেন আন্দাজ করে ইংরেজবাজার থানায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়। অভিযোগের ভিত্তিতে তদন্ত শুরু করেছে মালদহের ইংরেজবাজার থানার পুলিশ।

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Ausgram, Malda

পরবর্তী খবর