Home /News /national /
Food Delivery Boy Cried: সময়ে খাবার পৌঁছে দিতে গিয়ে তিনবার দুর্ঘটনা, গ্রাহকের সামনে কেঁদে ফেলল ডেলিভারি বয়

Food Delivery Boy Cried: সময়ে খাবার পৌঁছে দিতে গিয়ে তিনবার দুর্ঘটনা, গ্রাহকের সামনে কেঁদে ফেলল ডেলিভারি বয়

Food Delivery Boy Cried: ''আপনার পাঁচশো টাকার খাবারের মূল্য তো কারও জীবনের থেকে বেশি হতে পারে না!''

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: সামান্য কিছু টাকা বেতন। তা দিয়ে ভাল করে সংসারও চলে না। তবে চাকরির এই মন্দার বাজারে সেটাই বা কে দেয়! সামান্য কটা টাকা বেতনের চাকরিতেও এত চাপ! সময়মতো খাবার পৌঁছে দিতে হবে। সে যেভাবেই হোক! না হলে গ্রাহকের তিরস্কার, বস-এর কটূ কথা! কত কী সামলাতে হয় ডেলিভারি বয়দের।

    এখ অনেকেই Zomato এবং Swiggy-র মতো ফুড অ্যাগ্রিগেটর থেকে খাবার অর্ডার করেন। ডেলিভারি বয় সময়মতো দরজায় খাবার পৌঁছে দিতে না পারলে অনেকে তিরস্কার করেন। অনেকেই জেলিভারি বয়দের দেরিতে আসার কারণ জিজ্ঞাসা করেন না। জানতেই চান না, কোনো দুর্ঘটনার কারণে কি দেরি হয়েছিল? তাঁর পরিবারে কোনও সমস্যা হয়েছিল?

    আরও পড়়ুন- পুরীর জগন্নাথ মন্দিরের মহাপ্রসাদ রান্নার উনুনে ভাঙচুর, তারপর যা হল

    কমেডিয়ান সাহিল শাহ টুইটারে পোস্ট করেছেন, কীভাবে একজন ফুড ডেলিভারি বয় তাঁর সামনে কেঁদে ফেলেছিলেন। কারণ খাবার সরবরাহ করার সময় তাঁর তিনবার দুর্ঘটনা ঘটেছিল। সাহিলের পোস্ট এখন ভাইরাল। গ্রাহকদের উদ্দেশে তিনি লিখেছেন, ডেলিভারি বয়দের প্রতি আচরণ করাউচিত সব সময়।

    সাহিল শাহ লিখেছেন, 'আজ একজন ফুড ডেলিভারি বয় আমার সামনে এসে কেঁদে ফেলে। কারণ ও আমাদের খাবার ডেলিভারি করতে গিয়ে ৩ বার দুর্ঘটনার কবলে পড়েছিল। আমি ওকে জল দিই। ওকে কিছু টাকা টিপ দিই। তারপর ওর কাছে ক্ষমা চেয়ে নিই{ কারণ আমার 500 টাকার খাবার ওর জীবনের চেয়ে বেশি দামি হতে পারে না। যারা ডেলিভারি করে তাদের প্রতি দয়া করে ভাল ব্য়বহার করুন।

    আরও পড়ুন- মেঘের উপর দিয়ে চলবে ট্রেন! পৃথিবীর উচ্চতম রেলসেতু তৈরি হচ্ছে ভারতের এই জেলায়!

    তিনি আরও লিখেছেন, 'ক্ষুধার্ত হলে এবং খাবার ডেলিভার হতে দেরি হলে ফুড ডেলিভারি বয়ের উপর রাগ দেখাবেন না। খাবার আপনার কাছে পৌঁছানোর জন্য কেউ তো নিজের জীবনের ঝুঁকি নিতে পারে না! আপনি যতই ক্ষুধার্ত থাকুন না কেন, কারও জীবনের মূল্যে আপনার কাছে খাবার পৌঁছক, সেটা নিশ্চয়ই চাইবেন না! তাই ডেলিভার বয়দের সমস্যাগুলোও সবার বোঝা উচিত।

    Published by:Suman Majumder
    First published:

    Tags: Delivery boy, Food Delivery App

    পরবর্তী খবর