গোয়েন্দাকে খুন, হিংসায় ইন্ধন দেওয়ার অভিযোগ আপ নেতা তাহির হুসেনের বিরুদ্ধে, অস্বীকার নেতার

গোয়েন্দাকে খুন, হিংসায় ইন্ধন দেওয়ার অভিযোগ আপ নেতা তাহির হুসেনের বিরুদ্ধে, অস্বীকার নেতার
অভিযোগ আপের নেতা তাহির হুসেনের বিরুদ্ধে৷

বুধবার উত্তর পূর্ব দিল্লির এক জঞ্জালের স্তুপ থেকে উদ্ধার করা হয় গোয়েন্দা দপ্তরের কর্মী অঙ্কিত শর্মার দেহ৷ তাই নিয়ে জাফরাবাদ এলাকায় উত্তেজনা ছিল কালও৷

  • Share this:

#নয়া দিল্লি: বুধবার উত্তর পূর্ব দিল্লির এক জঞ্জালের স্তুপ থেকে উদ্ধার করা হয় গোয়েন্দা দপ্তরের কর্মী অঙ্কিত শর্মার দেহ৷ তাই নিয়ে জাফরাবাদ এলাকায় উত্তেজনা ছিল কালও৷ কিন্তু অঙ্কিতের শর্মার বাবা একেবারে অন্য অভিযোগ করলেন৷ তাঁর অভিযোগ, আপের নেতা তাহির হুসেনের সমর্থকরাই তাঁর ছেলে অঙ্কিতকে হত্যা করেছে৷ শুধু তাই নয়, প্রথমে বেধড়ক মারা হয়েছে তাঁর ছেলেকে৷ তারপর তাঁর ছেলের মৃত্যু নিশ্চিত করতে একাধিকবার গুলিও করা হয়েছে৷ যদিও, এ সবই অনুমান, দেহ এখন ময়না তদন্তে পাঠানো হয়েছে৷ প্রয়াত অঙ্কিত শর্মার প্রতিবেশীরা জানিয়েছেন, শুধু এই হত্যার সঙ্গে তাহির জড়িয়ে আছেন, এমন নয়৷ যেদিন গোলমাল হয়, সেদিন তাহিরের বাড়িই ছিল দুষ্কৃতীদের ঘাঁটি৷ সেখান থেকে পেট্রল বোমা, ইঁট ছোড়া হয় বলেও অভিযোগ করেছেন স্থানীয় মানুষেরা৷ ঘটনার সমর্থনে একটি ভিডিও সংবাদ মাধ্যমে দিয়েছেন তাঁরা৷ সেটিতে একজনকে লাঠি হাতে দেখা যাচ্ছে৷ তবে সেটি তাহির হুসেন কি না, সেটাও স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে না৷ এই অভিযোগের উত্তর দিয়ে একটি ভিডিও শেয়ার করেছেন অভিযুক্ত আপ নেতা তাহির হুসেন৷ তিনি বলেছেন, ‘এটি একটি ভুয়ো ভিডিও৷ আসলে কপিল শর্মার মন্তব্যের কারণেই এত হিংসা ছড়িয়েছে৷ ওঁর কথাতেই পাথর ছোড়া চলেছে, মারামারি হয়েছে৷’

যে ভিডিওটি তাহির ট্যুইটারে শেয়ার করেছেন, সেখানে তিনি বলেছেন, তাঁর বাড়িতেও লোকে ঢুকে, ছাদে উঠে হামলা চালিয়েছে৷ তিনি বারবার পুলিশে জানানোর পরেও দীর্ঘক্ষণ পরে পুলিশ এসেছে বলেও অভিযোগ তাঁর৷ এমনকি পুলিশ তাঁকে বাড়ি ছেড়ে দিতে বললে তিনি বাড়িও ছেড়ে দিয়েছিলেন তিনি৷ তাতে লাভ হয়নি৷ বরং পুলিশও অল্প সময় পর পুলিশ ওই এলাকা ছেড়ে চলে গিয়েছে৷ তারপর আবারও উন্মত্ত জনতা তার বাড়িতে এসে চড়াও হয়েছে৷ তিনি বলেছেন, ‘আমি ঘটনার পর থেকে মানসিকভাবে অত্যন্ত ভেঙে পড়েছি৷ আমি একজন শান্তিপ্রিয় ভারতীয় মুসলিম৷ দেশের হয়ে কাজ করতে চাই৷ আমি চাই হিন্দু মুসলিম একসঙ্গে কাজ করুন৷’

First published: February 27, 2020, 3:53 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर