হোম /খবর /নদিয়া /
একটু বৃষ্টিতেই দাঁড়িয়ে যায় জল! বাজারে সমস্যায় ক্রেতা বিক্রেতারা

Nadia: একটু বৃষ্টিতেই দাঁড়িয়ে যায় জল! বাজারে সমস্যায় ক্রেতা বিক্রেতারা

একটু বৃষ্টি হলেই বাজারে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে জল। বাজার ঠিক মতো পরিষ্কার হয় না। দোকানদাররা দোকান করতে পারেন না। মাছ বাজার প্রতিশ্রুতি দিলেও আজ পর্যন্ত সমস্যা মেটেনি বলে অভিযোগ।

  • Hyperlocal
  • Last Updated :
  • Share this:

#পায়রাডাঙ্গা : একটু বৃষ্টি হলেই বাজারে দাঁড়িয়ে যাচ্ছে জল। বাজার ঠিক মতো পরিষ্কার হয় না। দোকানদাররা দোকান করতে পারেন না। মাছ বাজার প্রতিশ্রুতি দিলেও আজ পর্যন্ত সমস্যা মেটেনি বলে অভিযোগ। পায়রাডাঙ্গা প্রীতি নগর সোসাইটির ঘটনা। পায়রাডাঙ্গা প্রিতীনগর সোসাইটিতে প্রায় ৮০০ দোকানদার রয়েছে যেখানে একটু বৃষ্টিতেই সমস্যায় পড়তে হচ্ছে দোকানদারদের। অভিযোগ, বাজার ঠিকমতো পরিষ্কার পর্যন্ত হয়না। নিকাশী নালার ব্যবস্থা না থাকার ফলে বাজারের নোংরা জল বের করতে সমস্যা হচ্ছে। দীর্ঘ সময় ধরে নোংরা জল বাজারে জমে থাকার কারণে বাজারের ব্যবসায়ীদের একাংশ ডেঙ্গু আতঙ্কে ভুগছেন। তাঁদের আশঙ্কা দীর্ঘ সময় ধরে নোংরা জল জমতে জমতে ওখানে ডেঙ্গুবাহক মশার উপদ্রব হবে। তাদের অভিযোগ প্রীতিনগর সোসাইটিকে এ বিষয়ে বারবার জানালেও তারা শুধু আশ্বাসের পর আশ্বাস দিয়ে গেছেন কাজের কাজ কিছুই হয়নি।

পাশাপাশি ওই সোসাইটির বাজারের ব্যবসায়ীদের একাংশের অভিযোগ দীর্ঘ প্রায় কুড়ি বছর ধরে সোসাইটিতে কোনও নির্বাচন হয় না। বর্তমানে যে কমিটি আছে সে কমিটিও ভালো নয়। অভিযোগ ওই কমিটিতে কয়েকজন লোক আছেন যারা নিজেরা যে সিদ্ধান্ত নেয় সেটাই অন্যের উপর চাপিয়ে দেয়। ব্যবসায়ী কমিটির প্রতিনিধিদের দু'বছর মেয়াদ। দু'বছর পরপর নির্বাচন হয়। কো-অপারেটিভের ও নির্বাচন বাধ্যতামূলক দু'বছর অন্তর। কিন্তু অভিযোগ এই প্রীতি নগর সোসাইটিতে কুড়ি বছর হয়ে গেলেও নতুন করে আর ভোট হয়নি। দু'বছরের মেয়াদ কবে শেষ হবে সেই অপেক্ষায় প্রীতি নগর সোসাইটির ব্যবসায়ীরা। জমে থাকা জলে যে ডেঙ্গু হতে পারে এই সমস্যার কথা বারংবার জানালেও কোনও ব্যবস্থা নিচ্ছে না সোসাইটি। বাধ্য হয়েই জলের মধ্যে পায়ে গাম্বুট পরে ক্রেতাদের মাল দিচ্ছেন দোকানদাররা।

প্রীতিনগর সোসাইটির প্রাক্তন সভাপতি বর্তমান সদস্য খোকন দে জানান, \"এই প্রীতিনগর সোসাইটিতে প্রতি দু'বছর তিন বছর অন্তর ট্যাক্স বাড়ায়। ব্যবসাদাররা ট্যাক্স রীতিমতো দেয় কিন্তু এরা পরিষেবা দেয় না। সাধারণ ক্রেতা এবং ব্যবসাদাররা খুবই ক্ষতিগ্রস্ত। বর্ষা আসলে এখানে কোনও ব্যবসা সঠিকভাবে চলে না। সামনে যে মাছ বাজারটা আছে সেখানের অবস্থা আরও ভয়ানক। আজ ন’মাস হয়ে গেছে মাছওলাদের বিপজ্জনক অবস্থায় ফেলে রেখেছে তার কোন সুরাহা নেই। এছাড়া সামনে একটা শনি মন্দির আছে যেখানে ১০ ফুট জায়গার মধ্যে একটা ট্রান্সফরমার বসানোর চেষ্টা করছে বর্তমান প্রীতি নগর বাজার কমিটি।

আরও পড়ুনঃ পুজো এসে গেলেও ব্যবসায় মন্দা নবদ্বীপ তাঁত কাপড় হাটে

বাজারে দীর্ঘদিন আগুন ধরেছে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে তা সত্ত্বেও বর্তমান প্রিতীনগর সোসাইটির বাজারের কমিটি প্রোমোটারের সঙ্গে যুক্ত হয়ে তাদের স্বার্থকে দেখার কারণে এখানে স্বার্থের বিনিময়ে ট্রান্সফরমার বসাচ্ছে\"। মাছ ব্যবসায়ী নির্মল বিশ্বাস জানান, \"আমি প্রায় চল্লিশ বছর ধরে এখানে ব্যবসা করি। দীর্ঘ কুড়ি বছর ধরে আমরা অভিযোগ করে আসছি কোঅপারেটিভের কাছে। এই কমিটির কোনও হেলদোল নেই। এখানে ড্রেন পরিষ্কার হচ্ছে না, ড্রেন দিয়ে জল যাচ্ছে না।

আরও পড়ুনঃ নদিয়ায় দেশের প্রাচীনতম খো খো খেলার আয়োজন

আমি নিজে দোকান ছেড়ে অন্য জায়গায় ভাড়া নিয়ে ওখানে ব্যবসা করছি। দীর্ঘদিন বাজার সাফাই নেই জল জমে আছে। মাছি মশার চরম উপদ্রব হয়েছে। আমাদের আশঙ্কা যে কোনও সময় আমরা ডেঙ্গু আক্রান্ত হতে পারি\"। মুরগি ব্যবসায়ী শুক্লা দাস জানান\" যে আমার দোকানের সামনে একটা পিলার তুলে আমার ব্যবসা ক্ষতিগ্রস্ত করছে এই কোঅপারেটিভের কমিটি। ন দশ মাস হল আমরা দোকান ছেড়ে প্লাস্টিকের তলায় থাকি। বৃষ্টির ময়লা জলের মধ্যেই আমাদের দিন কাটাতে হয়\"।

Mainak Debnath
Published by:Soumabrata Ghosh
First published:

Tags: Nadia