Home /News /malda /
Malda: আবারও শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভি‌যোগ! এবার মালদহের মাদ্রাসায়

Malda: আবারও শিক্ষক নিয়োগে দুর্নীতির অভি‌যোগ! এবার মালদহের মাদ্রাসায়

title=

এবার মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ মালদহে। লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে ৬ জন শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে, এমনি অভিযোগ তুলে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ স্থানীয় ও অভিভাবকদের একাংশের।

  • Share this:

    #মালদহ : এবার মোটা অংকের টাকার বিনিময়ে মাদ্রাসায় শিক্ষক নিয়োগের অভিযোগ মালদহে। লক্ষ লক্ষ টাকার বিনিময়ে জন শিক্ষক নিয়োগ করা হয়েছে, এমনি অভিযোগ তুলে মাদ্রাসা প্রাঙ্গণে বিক্ষোভ স্থানীয় অভিভাবকদের একাংশের। শুধু তাই নয়, কাটমানি নিয়ে বিবাহিত মহিলাদেরও কন্যাশ্রী পাইয়ে দেওয়া অভিযোগ উঠেছে মাদ্রাসা কতৃপক্ষের বিরুদ্ধে। এছাড়া মিড ডে মিলেও চরম দুর্নীতি অভিযোগ উঠেছে। মালদহের হরিশ্চন্দ্রপুরের মিলনগড় সাজ্জাদিয়া হাই মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এমনই একাধিক অভিযোগ উঠেছে। ঘটনার জেরে কয়েক হাজার বাসিন্দারা মাদ্রাসা ঘেরাও করে,বিক্ষোভকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়ায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় বিশাল পুলিশ বাহিনী। এদিনের বিক্ষোভে সামিল ছিলেন হরিশ্চন্দ্রপুর- পঞ্চায়েত সমিতির শিক্ষা কর্মাধ্যক্ষ মনিরুল আলমও। জানা গিয়েছে, ওই মাদ্রাসা পরিচালন সমিতি রয়েছে কংগ্রেসের দখলে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, গত কয়েক মাসে ওই মাদ্রাসায় জন শিক্ষককে নিয়োগ করা হয়। আদালতের নির্দেশে তারা যোগ দিয়েছেন বলে মাদ্রাসা কতৃপক্ষের দাবি।

     

     

    যদিও স্থানীয়দের অভিযোগ, শুধু ওই জন নন। এলাকায় অন্তত ২০ জনের কাছ থেকে থেকে ১০ লক্ষ করে টাকা নেওয়া হয়েছে। তারা মাদ্রাসায় কাজ করেছেন দেখিয়ে আদালতে মামলা করে ঘুরপথে তাদের কমিটি নিয়োগ করেছে বলে অভিযোগ। নিয়ে স্থানীয়রা একাধিকবার মাদ্রাসা কতৃপক্ষের কাছে নথি চাইলেও তা দেওয়া হচ্ছে না। এছাড়া গত ছয় বছর ধরে সেখানে নির্বাচন হয়নি।

    আরও পড়ুনঃ জাতীয় সড়কের টোল প্লাজায় রক্তদান শিবির, অনেকেই এগিয়ে আসলেন রক্তদানে

     

     

    ফলে ওই কমিটি অবৈধ বলেও বিক্ষোভ কারীদের দাবি। স্থানীয়দের আরও অভিযোগ, উচ্চ মাধ্যমিক ওই মাদ্রাসায় পড়ুয়ার সংখ্যায় প্রায় ১৮০০। সরকারি বিধি না মেনে তাদের কাছে থেকে বাড়তি ফি আদায় করা হচ্ছে। যার কোনও হিসেব নেই। মিড ডে মিলের টাকাও নয়ছয় করা হচ্ছে।

    আরও পড়ুনঃ গ্রামে ঢোকার রাস্তা যেন কাদামাখা পুকুর! ক্ষোভ গ্রামবাসীদের, নির্বিকার প্রশাসন

     

     

    কমিটির সম্পাদক ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক যোগসাজসে দুর্নীতি করছেন বলে অভিযোগ। যদিও স্কুল কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ওঠা সমস্ত অভিযোগ মিথ্যা ভিত্তিহীন বলে দাবি স্কুলের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক থেকে পরিচালন কমিটির সম্পাদকের।

     

     

     

    Harashit Singha

    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Madrasa, Malda

    পরবর্তী খবর