• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • SURVEY SAYS THAT WOMEN ARE AT MORE RISK OF GETTING HEART ATTACK THAN MEN DUE TO WORK PRESSURE SWD TC

Heart attack: কাজের চাপে বাড়ছে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি! পুরুষদের তুলনায় মহিলাদের হৃদরোগের সম্ভাবনা বেশি, বলছে সমীক্ষা

Heart attack: নতুন গবেষণা বলছে অত্যাধিক কাজের চাপ, ঘুম না হওয়ার সমস্যার কারণেও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকছে।

Heart attack: নতুন গবেষণা বলছে অত্যাধিক কাজের চাপ, ঘুম না হওয়ার সমস্যার কারণেও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকছে।

  • Share this:

#লন্ডন: ইউরোপিয়ান স্ট্রোক অর্গানাইজেশন (European Stroke Organisation) বা ইএসও (ESO)-র সম্মেলনে একটি নতুন গবেষণার রিপোর্ট সামনে এসেছে। বিশেষজ্ঞদের দাবি অত্যাধিক কাজের চাপ, ঘুম না হওয়ার সমস্যা, ক্লান্তিভাব হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের বড় কারণ হিসেবে উঠে এসেছে। চিকিৎসকদের মতে ডায়াবেটিস (Diabetes), আর্টারিয়াল হাইপার টেনশন (Arterial Hypertension) কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়া (Raised Cholesterol), ধূমপান (Smoking), ওবিসিটির (Obesity) মতো শারীরিক সমস্যা থাকলে হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকে। কিন্তু নতুন গবেষণা বলছে অত্যাধিক কাজের চাপ, ঘুম না হওয়ার সমস্যার কারণেও হার্ট অ্যাটাকের ঝুঁকি থাকছে। তবে মহিলাদের ক্ষেত্রে তা বেশি লক্ষ্য করা গিয়েছে।

আগাগোড়াই পুরুষদের শরীরে হার্ট অ্যাটাকে আক্রান্ত হওয়ার প্রবণতা বেশি থাকে বলে মনে করা হয়েছে। কিন্তু, নতুন গবেষণায় দেখা গিয়েছে পুরুষেরা ধূমপান ও মহিলাদের তুলনায় মোটা হওয়ার সমস্যায় ভুগছেন, কিন্তু হার্ট অ্যাটাকের ক্ষেত্রে মহিলারা পুরুষদের তুলনায় বড় ঝুঁকির মধ্যে রয়েছেন। এই মারণ ব্যাধির কারণ হিসেবে সুইৎজারল্যান্ডের ইউনিভার্সিটি হসপিটাল জুরিখের (University Hospital Zurich) নিউরোলজিস্ট ড. মার্টিন হ্যানসেল (Dr Martin Hansel) ও তাঁর টিম জানিয়েছেন, মহিলাদের কাজের চাপ, ঘুমের সমস্যা এবং ক্লান্তির কারণে হার্ট অ্যাটাক এবং স্ট্রোকের ঝুঁকি বাড়ছে।

আরও পড়ুন: মাঝরাতে গলা শুকোচ্ছে বার বার! শরীরে গোপনে মারণ রোগ বাসা বাঁধছে না তো

ড. মার্টিন হ্যানসেলের দাবি, ঘরে ও বাইরের কাজের চাপ সামলে মহিলা ক্লান্ত হয়ে পড়ছেন। সঠিক স্বাস্থ্যের জন্য নির্দিষ্ট খাদ্য ও অন্যান্য চাহিদা পূরণ হচ্ছে না। তাই এই সমস্যা বেড়ে চলেছে। ২০০৭, ২০১২, ও ২০১৭ সালে ২২,০০০ পুরুষ ও মহিলাদের নিয়ে সুইস হেলথ সার্ভে (Swiss Health Survey) করা হয়। সেই রিপোর্ট অনুযায়ী কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজে (Cardiovascular Disease) মহিলাদের সংখ্যা উদ্বেগজনক ভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। ২০০৭ সালে যা ৩৮ শতাংশ ছিল, ২০১৭ সালে তা ৪৪ শতাংশ বৃদ্ধি পায়। পুরুষ এবং মহিলাদের কাজের চাপের নিরীক্ষে সমীক্ষা করা হয়। ২০১৭ সালের রিপোর্টে দেখা গিয়েছে মহিলাদের মধ্যে ৩৩ শতাংশ এবং পুরুষদের মধ্যে ২৬ শতাংশের নানা সমস্যা দেখা গিয়েছে।

আরও পড়ুন: পুজোর আর দেরি নেই! দ্রুত ওজন ও মেদ কমাতে রোজ খান এই ৩ ‌টোটকা

তবে গবেষণায় দেখা গিয়েছে, যে কার্ডিওভাসকুলার ডিজিজের ঝুঁকির কারণগুলি বেশি মাত্রায় ছিল এমন ২৭ শতাংশ যাঁরা হাইপার টেনশনে ভুগছিলেন, ১৮ শতাংশ এমন ছিলেন যাঁদের কোলেস্টেরল বেড়ে গিয়েছিল, ৫ শতাংশরা আবার ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়েছিলেন। ১১ শতাংশ ছিলেন যাঁরা ওবিসিটিতে ভুগছিলেন। এঁদের মধ্যে পুরুষের সংখ্যা বেশি ছিল বলে জানা গিয়েছে।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: