• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Heart Health: হার্ট থাকবে ভালো, স্বাস্থ্যও ঝরঝরে; শুধু কখন ঘুমোতে যেতে হবে?

Heart Health: হার্ট থাকবে ভালো, স্বাস্থ্যও ঝরঝরে; শুধু কখন ঘুমোতে যেতে হবে?

Representative Image

Representative Image

Best time to sleep for a healthy heart: ঘুমানোর নির্দিষ্ট সময় আছে। সেই সময়ের মধ্যে ঘুম পূর্ণ করলে তা আরও ভালো।

  • Share this:

#কলকাতা: ব্যস্ততার জীবনে ঘুমে ঘাটতি অনেকেরই হয়। ঘুম আসে না, কম সময় ঘুম বা ঘুমে বার বার বিরতি ইত্যাদি অনেকেরই রয়েছে। চিকিৎসকরা বলছেন, এতে শরীরে একাধিক সমস্যা হতে পারে এবং একাধিক রোগ বাসা বাঁধতে পারে। ফলে শরীর সুস্থ রাখতে পর্যাপ্ত ঘুম প্রয়োজন (Best time to sleep for a healthy heart)। ঠিক সময়ে ঘুমালে কার্ডিওভাসকুলার হেলথের পাশাপাশি অন্যান্য সমস্যাও দূরে থাকে। তবে, ঘুমানোর নির্দিষ্ট সময় আছে। সেই সময়ের মধ্যে ঘুম পূর্ণ করলে তা আরও ভালো।

সম্প্রতি UK-তে করা একটি সমীক্ষা বলছে, রাত ১০টা থেকে ১১টার মধ্যে ঘুমানো সঠিক সময়। বিশেষ করে হার্ট ভালো রাখতে এই সময় ঘুমানো প্রয়োজন।

আরও পড়ুন- Viral Video: মাত্র চার ঘণ্টায় তৈরি হল ৬,৪০০টি আইটেম ! ম্যাকডোনাল্ডসের কর্মীর কীর্তির ভিডিও ভাইরাল

European Heart Journal-এ প্রকাশিত একটি সমীক্ষা, যাতে UK-র ৪৩ থেকে ৪৯ বছরের ৮৮,০০০ হাজার জনের থেকে তথ্য সংগ্রহ করা হয়েছে, বলছে, যাঁরা ১০টা থেকে রাত ১১টার মধ্যে ঘুমিয়ে পড়েন তাঁদের হার্ট অনেক ভালো রয়েছে। এক্ষেত্রে সমীক্ষায় ৮৮,০০০ মানুষের ঘুমানো ও ঘুম থেকে ওঠার সময় সংক্রান্ত তথ্য নেওয়া হয়েছে। এছাড়াও তাঁদের লাইফস্টাইল, শারীরিক অন্যান্য সমস্যা ইত্যাদিও এক্ষেত্রে দেখা হয়।

সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে, যাঁরা ১০- ১১ টার মধ্যে রাতে শুয়ে পড়েন তাঁদের কার্ডিও ভাসকুলার অবস্থা বাকি যাঁরা ১০-১১ টার পরে ঘুমান তাঁদের থেকে অনেক ভালো। এক্ষেত্রে আরও একটি জিনিস দেখা গিয়েছে, মহিলাদের কার্ডিও ভাসকুলার হেলথ অনেকটাই খারাপ থাকে তাই হার্ট ডিজিজ হওয়ার প্রবণতা মহিলাদের অনেকটা বেশি হয়।

পর্যাপ্ত ঘুম ও সঠিক সময়ে ঘুমাতে যাওয়া সুস্বাস্থ্যের চাবিকাঠি

ওবেসিটি, হাইপার টেনসন, ডায়াবেটিস ইত্যাদির জন্য অনেক সময় ঘুম আসে না বা পর্যাপ্ত ঘুমে ব্যাঘাত ঘটে। গবেষকরা বলছেন, একজন সুস্থ মানুষের দিনে ৭-৮ ঘণ্টা ঘুম প্রয়োজন। যদি ঘুম কম হয় তা কার্ডিও ভাসকুলার হেলথে প্রভাব ফেলে।

এবিষয়ে এক্সিটার বিশ্ববিদ্যালয়ের নিওরোসায়েন্সের লেকচারার এবং এই সমীক্ষার লেখক ড. ডেভিড প্ল্যানস বলছেন, আমাদের সমীক্ষার প্রধান বিষয় একজন মানুষের ২৪ ঘণ্টার সাইকেলের মধ্যে ঘুমানোর সময় এবং নির্দিষ্ট সময়। সব চেয়ে রিস্কের সময় হল মাঝ রাতের পর ঘুমানো। কারণ এতে সকালে উঠতে দেরি হয় এবং দিনের আলো শরীরে পৌঁছায় না। যাতে বডি ক্লক ঠিক হতে সমস্যা হয়।

এই সমীক্ষায় ড. ডেভিড প্ল্যানস দেখান কী ভাবে নির্দিষ্ট সময়ে ঘুমানো শরীরে প্রভাব ফেলে এবং শরীর ভালো রাখে। তিনি বলেন, তাড়াতাড়ি ঘুমানো বা দেরি করে ঘুমানো আমাদের বডি ক্লকে প্রভাব ফেলে এবং তা প্রভাব ফেলে আমাদের কার্ডিও ভাসকুলার স্বাস্থ্যে।

আরও পড়ুন- মদ্যপান না-করেও ফ্যাটি লিভারের ঝুঁকি! এই লক্ষণগুলি থাকলেই সতর্ক হন...

এতে তিনি আরও যোগ করেন, রাত ১০টা -১১টা ঘুমানোর পারফেক্ট সময় হলেও এই নিয়ম সকলের জন্য প্রযোজ্য নয়। আর আদৌ সকলের এই সময়ই ঘুমানো উচিত কি না তা পরিষ্কার করে জানার জন্য আরও তথ্য প্রয়োজন ও আরও সমীক্ষা প্রয়োজন।

যদিও Aster CMI Hospital বেঙ্গালুরুর ইন্টারভেনশনাল কার্ডিওলজির সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা. সঞ্জয় ভাট জানান, নির্দিষ্ট সময় বলে ঘুমের ক্ষেত্রে কিছু হয় না। তাঁর কথায়, দিনে ৮ ঘণ্টা ঘুমানো উচিত শরীর ভালো রাখতে। এছাড়াও ঘুমের ওষুধ, অ্যালকোহল ইত্যাদি না খেলেও ঘুম ভালো হয়।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: