Home /News /life-style /
High Cholesterol Problem: রক্তে বাড়ছে প্রাণঘাতী কোলেস্টেরল? এই খাবারগুলি একেবারে বাদ দিন জীবন থেকে

High Cholesterol Problem: রক্তে বাড়ছে প্রাণঘাতী কোলেস্টেরল? এই খাবারগুলি একেবারে বাদ দিন জীবন থেকে

Lifestyle Disease: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) মতে, কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ায় সারা বিশ্বে ২.৬ মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু হয়।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: জীবনযাপনের ধরন আমাদের উপহার দিয়েছে হাজারো রোগ। যার মধ্যে সবচেয়ে সাধারণ লাইফস্টাইল ডিজিজ (lifestyle diseases) হল উচ্চ কোলেস্টেরল (High Cholesterol Problem)। কার্ডিওভাসকুলার রোগের (cardiovascular disease) সম্ভাবনাকে বাড়িয়ে দেয় এই কোলেস্টেরলের বৃদ্ধি। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (WHO) মতে, কোলেস্টেরল বেড়ে যাওয়ায় সারা বিশ্বে ২.৬ মিলিয়ন মানুষের মৃত্যু হয়। বিশ্বের নানান স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন, উত্তরাধিকারসূত্রে পাওয়া রোগের মধ্যেও পড়ে উচ্চ কোলেস্টেরলের (High Cholesterol Problem) সমস্যা। তবে আমাদের অস্বাস্থ্যকর জীবনধারা এই রোগটিকে বাড়িয়ে তোলে। কম খাবার খাওয়া কোলেস্টেরলের মাত্রা বাড়াতে বড় ভূমিকা পালন করে।

    আরও পড়ুন- শুধু ভেজা তোয়ালে রাখা নয়, আপনার এই সব আচরণগুলিতেও বিরক্ত হচ্ছেন আপনার প্রেমিকা!

    দুর্ভাগ্যবশত, উচ্চ কোলেস্টেরলের (High Cholesterol Problem) কোনও উপসর্গ নেই এবং স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা জানিয়েছেন শরীরে কোলেস্টেরলের ভারসাম্যহীনতা বোঝার একমাত্র উপায় হল রক্ত ​​পরীক্ষা। ন্যাশনাল হার্ট, লাং এবং ব্লাড ইনস্টিটিউট (এনএইচএলবিআই) অনুযায়ী, একজন ব্যক্তির প্রথম কোলেস্টেরল স্ক্রিনিং ৯ থেকে ১১ বছর বয়সের মধ্যেই করা উচিত এবং তারপরে প্রতি পাঁচ বছর অন্তর পরীক্ষা করা দরকার। কোলেস্টেরলের মাত্রা বৃদ্ধির কারণে হৃদরোগ সংক্রান্ত জটিলতার ঝুঁকি কমাতে বিশেষজ্ঞরা কিছু খাবার খাওয়ার অভ্যাস কমানোর পরামর্শ দিয়েছেন।

    আরও পড়ুন- ওয়ার্ক ফ্রম হোমের ঠেলায় পিঠে আর বুকে ব্যথা? নিয়মিত অভ্যাস করুন এই যোগাসনগুলি!

    ভাজা খাবার

    তৈলাক্ত ভাজা খাবারের দিকে আর ফিরেও তাকাবেন না! বেশি তেলে ভাজা মুখরোচক খাবার এড়িয়ে চলা অনেকের পক্ষেই কষ্টসাধ্য, তবে মাথায় রাখবেন ভাজা খাবারে চর্বি, ক্যালোরি এবং লবণের মাত্রা থাকে অনেক বেশি। বেশ কয়েকটি গবেষণায় প্রমাণিত যে, ভাজা খাবারে স্থূলতা, উচ্চ রক্তচাপ এবং কোলেস্টেরল বাড়ে (High Cholesterol Problem), যা শেষ পর্যন্ত মারাত্মক হৃদরোগের দিকে এগিয়ে যেতে পারে। বিশেষজ্ঞরা এয়ার ফ্রায়ার ব্যবহার এবং স্বাস্থ্যকর তেল খাওয়ার পরামর্শ দেন।

    লাল মাংস

    গরুর মাংস, শুয়োরের মাংস এবং ভেড়ার মাংসের মতো লাল মাংসে প্রচুর পরিমাণে স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে এবং যাদের কোলেস্টেরলের মাত্রা বেশি থাকে তাদের সবসময়ই লাল মাংস না খাওয়ারই পরামর্শ দেওয়া হয়। লাল মাংস সম্পূর্ণভাবে বাদ না দিলেও হবে কারণ এতে প্রচুর পরিমাণে প্রোটিন, ভিটামিন এবং আয়রনও রয়েছে। মাঝে মাঝে খুব সামান্য পরিমাণে লাল মাংস খেতে পারেন।

    বেকড খাবার

    বেকড খাবারে চিনি এবং মাখনের পরিমাণ বেশি থাকে, যা এই জাতীয় খাবারে স্যাচুরেটেড ফ্যাট এবং কোলেস্টেরলের পরিমাণ (High Cholesterol Problem) বাড়িয়ে দেয়। হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় এই সব খাবার।

    প্রক্রিয়াজাত মাংস

    প্রক্রিয়াজাত মাংসে সাধারণত মাংসের চর্বিযুক্ত অংশ ব্যবহার করা হয় যার ফলে এতে উচ্চ মাত্রায় কোলেস্টেরল এবং স্যাচুরেটেড ফ্যাট থাকে। হৃদরোগের ঝুঁকি বাড়ায় এই খাবার। যারা ইতিমধ্যেই কোলেস্টেরলের সমস্যায় ভুগছেন প্রসেসড মিট এড়িয়ে চলুন অবশ্যই।

    Published by:Madhurima Dutta
    First published:

    Tags: Cholesterol Control, Cholesterol problem

    পরবর্তী খবর