• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • HEALTH EAT THESE 5 IRON BASED FOODS TO BUILD IMMUNITY TO FIGHT WITH CORONAVIRUS SWD TC

Corona: করোনাকালে খান এই ৫টি আয়রন যুক্ত খাবার, যা দেহে রোগ প্রতিরোধক ক্ষমতা বাড়াতে সাহায্য করে

এই সময় আয়রন, মিনারেল, ভিটামিন ও প্রোটিন জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন।

এই সময় আয়রন, মিনারেল, ভিটামিন ও প্রোটিন জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন।

  • Share this:

করোনা সংক্রমণ এবং এই ভাইরাসের ভয়ঙ্কর প্রভাব রীতিমতো মানুষকে ভাবিয়ে তুলেছে। তার মধ্যে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ফলে বিশ্বজুড়ে যে প্রকার হাহাকার তৈরি করেছিল, যার জন্য সকলেই এখন নিজেদের স্বাস্থ্য সচেতনতা নিয়ে বেশ চিন্তিত। কমবেশি সকলেই নিজের খাদ্য তালিকায় রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়াতে পারে এমন খাবারই এখন বেছে নিচ্ছে। তার মধ্যে চোখ রাঙাচ্ছে করোনার তৃতীয় ঢেউ ও ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট। তাই নিজের যত্ন নেওয়া এখন খুবই প্রয়োজন। এই সময় আয়রন, মিনারেল, ভিটামিন ও প্রোটিন জাতীয় খাবার বেশি করে খাওয়া প্রয়োজন। নিচে এমনকিছু খাবার নিয়ে আলোচনা করা হল, যেগুলি দেহের ইমিউনিটি বাড়িয়ে তুলে দেহকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করবে।

পালং শাক

পালং শাক হল আয়রনের সবথেকে ভালো উৎস, যা শরীরকে ইমিউন করে তোলে। আয়রন ছাড়াও সবুজ পাতার মধ্যে থাকে ক্যালসিয়াম, সোডিয়াম এবং ফসফরাস। রক্তে হিমোগ্লোবিনের মাত্রা বাড়িয়ে তুলতেও সাহায্য করে পালং শাক।

ড্রাই ফ্রুটস

ড্রাই ফ্রুটস যেমন কিশমিশ, আঞ্জির শরীরে জন্যে খুব উপকারী। এগুলি আয়রনে ভরপুর থাকে। শরীরে আয়রনের অভাব ঘটলে ড্রাই ফ্রুটস খাওয়া যেতে পারে। এছাড়াও দেহে রক্তের পরিমাণ বাড়াতে সাহায্য করে ড্রাই ফ্রুটস।

ডাল

কমবেশি প্রায় সকলেরই জানে যে কোনও ডাল শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী। এক কাপ ডালে ৬ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে। যা দেহে আয়রনের প্রতিদিনের চাহিদা অনুযায়ী ৩৭ শতাংশ ডাল থেকে পাওয়া যায়।

সোয়া

প্রচুর মাত্রায় আয়রন থাকে সোয়াবিনে। ১০০ গ্রাম সোয়াবিনে ১৫.৭ মিলিগ্রাম আয়রন থাকে। সোয়া জাতীয় খাবার যেমন টোফু প্রতিদিনের খাদ্য তালিকায় রাখা যেতে পারে দেহের আয়রনের চাহিদা পূরণের জন্য।

আলু

দৈনন্দিন খাদ্য তালিকায় সবথেকে বেশি ব্যবহৃত একটি খাদ্য হল আলু। যাতে প্রচুর পরিমাণে আয়রন থাকে। একটি কাঁচা আলুতে ৩.২ মিলিগ্রাম আয়রনের উপাদান থাকে। এছাড়াও আলুতে ফাইবার, ভিটামিন C, B6 এবং পটাশিয়াম থাকে যা শরীরের জন্য ভীষণ উপকারী।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: