• Home
  • »
  • News
  • »
  • life-style
  • »
  • Health care : এই ৩ সুপারফুড বেশি খাচ্ছেন নাকি? এখনই রাশ টানতে বলছে আয়ুর্বেদ, নাহলে স্বাস্থ্যহানি হতে পারে

Health care : এই ৩ সুপারফুড বেশি খাচ্ছেন নাকি? এখনই রাশ টানতে বলছে আয়ুর্বেদ, নাহলে স্বাস্থ্যহানি হতে পারে

File photo

File photo

বেশ কিছু সুপারফুড রয়েছে যেগুলি বেশি মাত্রায় গ্রহণ করলে আদতে স্বাস্থ্যহানি ঘটতে পারে।

  • Share this:

#কলকাতা: সুপারফুড। গত এক দশকে স্বাস্থ্য এবং ফিটনেস বিশ্বে ব্যাপক জনপ্রিয়তা পেয়েছে এই শব্দবন্ধ। সুপারফুড হল সেই ধরনের খাবার যা ন্যূনতম ক্যালরিতে সর্বাধিক পুষ্টি দেয়। শপিং মল বা ডিপার্টমেন্টাল স্টোরে গেলেই সুপারফুডের লেবেল সাঁটা খাবার দেখতে পাওয়া যায়। সেসব খাবার আমাদের চেনা জানার গণ্ডির বাইরে। দামও একটু বেশি।

তবে আয়ুর্বেদ বিশেষজ্ঞরা বলেন, প্রোটিনজাতীয় বা ফ্যাটজাতীয় বলে যেমন কিছু খাবারের ক্যাটাগরি করা যায়, সুপারফুডে তেমন নির্দিষ্ট কোনও ভাগ নেই। বরং সব ধরনের খাবারের গ্রুপেই সুপারফুড থাকতে পারে। ক্লাসের প্রথম-দ্বিতীয় ছাত্রছাত্রীর মতো সুপারফুড সব ক্লাসেই থাকে। তবে বেশ কিছু সুপারফুড রয়েছে যেগুলি বেশি মাত্রায় গ্রহণ করলে আদতে স্বাস্থ্যহানি ঘটতে পারে। সেগুলি কী?

পিপ্পালি

এটা একটা বিদেশি ভেষজ। মূলত খাবারে স্বাদ আনতে ব্যবহার হয়। সঙ্গে আয়ুর্বেদিক ওষুধ তৈরিতেও এর ব্যবহার বহুল প্রচলিত। গ্লাইকোসাইড, ইউজেনল, অ্যালকালয়েড, টেরপেনয়েড এবং অন্যান্য প্রাকৃতিক যৌগে ভরপুর পিপ্পালি। স্বাস্থ্যের জন্য খুবই ভালো। প্রতি দিনের ডায়েটে রাখলে রক্তে শর্করার মাত্রা নিয়ন্ত্রণ করে, পিরিয়ডসের সমস্যা কমায়, হজমশক্তি বাড়ায় এবং ডায়রিয়া প্রতিরোধ করে।

তবে পিপ্পালি অতিরিক্ত খেলে বা কাড়া কিংবা পাউডারের মতো গ্রহণ করলে বাত, পিত্ত ও কফের দোষ হতে পারে। বদহজম, পেটে ব্যথা, চুলকানি, লালভাব এবং ত্বক ফুলে যাওয়ার মতো সমস্যাও দেখা দিতে পারে।

অ্যাপেল সিডার ভিনিগার

ওজন কমানো থেকে সুগার, পেটের জমে থাকা মেদ কমানো, একাধিক রোগের দাওয়াই এটি। শুধু শরীর নয় ত্বক ও চুলের যত্নেও কার্যকরী এই উপাদানটি। তবে, এটির উপকারিতা যেমন রয়েছে, তেমনই রয়েছে অপকারিতাও। বেশি পরিমাণে অ্যাপেল সিডার ভিনিগার খেলে দাঁত, ইসোফেগাস ও স্টমাক লাইনিং এর ক্ষতি হতে পারে। সেইসঙ্গে শরীরের পটাশিয়াম লেভেল কমে যাওয়া, ডায়রিয়া, বদহজম এবং হাড়ের মারাত্মক ক্ষতি হয়।

নুন

মাত্রাতিরিক্ত নুনে রক্তচাপ তো বাড়েই, তা ছাড়াও ডেকে আনে আরও নানা অসুখ। নুনের পরিমাণ বেড়ে গেলে শরীরে অতিরিক্ত জল জমে যায়, এতে ব্রেন স্ট্রোকের ভয় থেকে যায়। মূত্রের মাধ্যমে বাড়তি নুন শরীর থেকে বার করে। কিন্তু কিডনির কোনও সমস্যা থাকলে সেই বাড়তি নুন শরীর থেকে বেরোতে না পেরে মারাত্মক বিপদের কারণ হয়ে দাঁড়ায়। অতিরিক্ত নুনে ক্ষয়ে যেতে থাকে হাড়ের ক্যালসিয়াম। তাই অস্থিসন্ধি ও হাড়ের নানাবিধ অসুখে প্রত্যক্ষ ভাবে নুনের ভূমিকা আছে।

আরও পড়ুন- শুষ্ক, সেনসিটিভ বা তৈলাক্ত, সব ধরনের ত্বকে শীতের যত্নে দিন গোলাপজল

নুনের সোডিয়াম যে কেবল কিডনি বা যকৃতের ক্ষতি করে এমনই নয়, ওবেসিটি বা মেদবাহুল্যের জন্যও নুন অনেকটাই দায়ী। হার্টের নানা অসুখ, বিশেষ করে ইস্কিমিয়ায় ভোগেন এমনন মানুষদের জন্য অতিরিক্ত নুন ক্ষতি করে। এ ছাড়াও অন্তঃসত্ত্বা মহিলাদের জন্যও অতিরিক্ত নুন ভাল নয়, এর প্রভাবে রক্তচাপ বৃদ্ধি পায় যা তাঁদের অন্তঃস্থ ভ্রূণের উপর প্রভাব ফেলে।

আরও পড়ুন- ওমিক্রনে আক্রান্ত হলে কোন দিনটা সবচেয়ে বেশি সংক্রমণ ছড়ায়? জানুন ও সতর্কতা নিন

কাঁচা নুন মস্তিষ্কের নিউরোনকেও প্রভাবিত করে। এর প্রভাবে কোলন ক্যানসার ও পাকস্থলীর ক্যানসারের মতো মারণরোগও বাসা বাঁধতে পারে শরীরে। শরীরে হরমোনের ভারসাম্য নষ্ট হওয়ার ক্ষেত্রেও অনেক সময় এই অতিরিক্ত নুন মূল ভূমিকা পালন করে।

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: