Home /News /life-style /

Belly Fat: ভুঁড়ির জন্য অস্বস্তিতে? তলপেটের মেদ কমানোর আয়ুর্বেদিক উপায় জেনে নিন

Belly Fat: ভুঁড়ির জন্য অস্বস্তিতে? তলপেটের মেদ কমানোর আয়ুর্বেদিক উপায় জেনে নিন

চেহারা ও ব্যক্তিত্ব, দু’ দিকেই বাধার সৃষ্টি করে পেটের বাড়তি মেদ

চেহারা ও ব্যক্তিত্ব, দু’ দিকেই বাধার সৃষ্টি করে পেটের বাড়তি মেদ

Belly Fat: চেহারা ও ব্যক্তিত্ব, দু’ দিকেই বাধার সৃষ্টি করে পেটের বাড়তি মেদ

  • Share this:

    শরীরে মেদ জমে যে গতিতে, তার তুলনায় অনেক ধীর পথে বাড়তি ওজন কমে, বিদায় নেয় মেদ৷ বিশেষ করে পেটের মেদ থেকে মুক্তি পাওয়া অত্যন্ত দুরূহ৷ অন্যদিকে চেহারা ও ব্যক্তিত্ব, দু’ দিকেই বাধার সৃষ্টি করে পেটের বাড়তি মেদ (belly fat)৷ সমস্যা থেকে মুক্তি পেতে সমাধানের পথ বলে দিয়েছে আয়ুর্বেদিক চিকিৎসক ডক্টর দীক্ষা ভাস্বর৷

    তাঁর ইনস্টাগ্রাম পোস্টে দীক্ষা বলেছেন, তলপেটের মেদ বলে দেয়, সেই ব্যক্তি হরমোনাল সমস্যা, মেটাবলিজমের নিম্ন হার এবং দুর্বল জীবনযাপনচর্চা৷ তবে একইসঙ্গে দীক্ষা কিছু মুশকিল আসানের পথও বলেছেন (Ayurvedic tips to get rid of belly fat)৷

    প্রতিদিন সূর্য নমস্কার-

    সকালে সূর্যনমস্কার যোগচর্চা আমাদের হরমোনাল ব্যালান্স ও মেটাবলিজম ঠিক রাখতে সাহায্য করে৷ শরীর যাতে যথাযথভাবে পুষ্টিগ্রহণ করতে পারে, সে বিষয়েও ভূমিকা থাকে সূর্য প্রণামের৷ মানসিক স্বাস্থ্য ও রাতে পর্যাপ্ত ঘুম নির্ধারিত হয় সূর্য নমস্কারে৷ সবমিলিয়ে শেষ অবধি পেটের মেদ নিয়ন্ত্রত হয়৷

    আরও পড়ুন : ফোলা টনসিলের যন্ত্রণায় কাহিল শীতে? উপশমের জন্য রইল কিছু সহজ উপায়

    কপালভাতি প্রাণায়াম-

    চিকিৎসকদের মতে, কপালভাতি যোগচর্চার ফলে দেহে রক্ত প্রবাহ ও হজমের মাত্রা যথাযথ থাকে৷ এই শরীরচর্চার ফলে পেটের মেদ ঝরে যায়৷ মহিলাদের ঋতুস্রাবের সমস্যা নিয়ন্ত্রণেও উল্লেখযোগ্য ভূমিকা আছে কপালভাতি প্রাণায়ামের৷

    আরও পড়ুন : ছুটি শেষ বলে মনখারাপ? রইল ফের কাজে মন বসানোর সহজ উপায়

    ইন্টারমিটেন্ট ফাস্টিং-

    সকালে ঘুম থেকে ওঠার পর খাবার খেতে হবে ৮ ঘণ্টা ধরে৷ দিনের শেষ খাবার খাওয়া হবে সূর্যাস্তের ঠিক আগে৷ সূর্যাস্তের পর কোনও খাদ্য গ্রহণ করা যাবে না৷ বড়জোড় ৮ টা অবধি এর সময়সীমা বৃদ্ধি করা যেতে পারে৷ তার বেশি নয়৷ অর্থাৎ রাতের খাবার খেয়ে নিতে হবে ৮ টার আগেই৷

    আরও পড়ুন : সহজলভ্য ঘরোয়া উপকরণের সুস্বাদু স্যুপই শীতে রোগা থাকার মূলমন্ত্র

    উষ্ণ জল পান-

    মেটাবলিজমের হার বৃদ্ধি করে উষ্ণ জল৷ কারণ শরীরে যে কোনও কোণায় মেদ ঝরিয়ে ফেলতে পারে জল৷ গ্যাস , পেট ফেঁপে ওঠা, অখিদের মতো সমস্যাও নিয়ন্ত্রিত হয় পর্যাপ্ত জলপানে৷

    পর্যাপ্ত ঘুম-

    দিনে ৭ থেকে ৮ ঘণ্টা ঘুম খুবই প্রয়োজন ওজন তথা পেটের মেদ নিয়ন্ত্রণ করতে৷ রাতে যত বেশি আপনি ঘুমোবেন, তত ভালভাবে মেদ নিয়ন্ত্রণ করতে পারবেন৷

    Published by:Arpita Roy Chowdhury
    First published:

    Tags: Belly Fat

    পরবর্তী খবর