যে সব ফল খেলে মোটা হবেনই !

গরমকালে শরীর সুস্থ রাখার জন্য ফল খাওয়া খুবই উপকারী। কিন্তু গরমের ফল মানেই আম, কাঁঠাল, লিচুর মতো রসালো ফল। মোটা হয়ে যাওয়ার ভয়ে অনেকেই ডাব বা শশা ছাড়া ফল খএতে ভয় পান। অথচ গরমের এইসব মরসুমি ফল শরীরের জন্য যেমন ভাল তেমনই সাহায্য করে ওজন কমাতেও। জেনে নিন কী কী ফল নির্ভয়ে খেতে পারেন।

গরমকালে শরীর সুস্থ রাখার জন্য ফল খাওয়া খুবই উপকারী। কিন্তু গরমের ফল মানেই আম, কাঁঠাল, লিচুর মতো রসালো ফল। মোটা হয়ে যাওয়ার ভয়ে অনেকেই ডাব বা শশা ছাড়া ফল খএতে ভয় পান। অথচ গরমের এইসব মরসুমি ফল শরীরের জন্য যেমন ভাল তেমনই সাহায্য করে ওজন কমাতেও। জেনে নিন কী কী ফল নির্ভয়ে খেতে পারেন।

রোগা হওয়ার চেষ্টা করছেন? হঠাৎ করে ওজন বেড়ে গিয়েছে ? এই ধরণের সমস্যায় আমরা প্রথমেই যেটা করি, একটা নতুন ডায়েট করে ফেলি ৷ আর সেই ডায়েটে অবশ্যই থাকে ফল-সবজি ৷

  • Share this:

    #কলকাতা: রোগা হওয়ার চেষ্টা করছেন? হঠাৎ করে ওজন বেড়ে গিয়েছে ? এই ধরণের সমস্যায় আমরা প্রথমেই যেটা করি, একটা নতুন ডায়েট করে ফেলি ৷ আর সেই ডায়েটে অবশ্যই থাকে ফল-সবজি ৷ কিন্তু জানেন কি? সব ফল খেলেই যে আপনার ওজন কমবে, তেমনটাও নয় ! চিকিৎসকরা বলছেন, সব ফলই যে মেদ কমাবে এমনটাও নয় ৷ উল্টোটাও ঘটতে পারে ৷

    কলার মধ্যে শর্করার মাত্রা বেশি। ফাইবার থাকলেও আরও অনেক ফল রয়েছে যার মধ্যে একই পরিমাণ ফাইবারের সঙ্গে শর্করার পরিমাণ অনেক কম।

    ড্রাই ফ্রুটস: ড্রাই ফ্রুটসকে স্বাস্থ্যকর স্ন্যাকস হিসেবে গণ্য করা হলেও ড্রাই ফ্রুটের টাটকা ফলের তুলনায় দ্রুত রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়িয়ে দেয়।

    পেঁপে: এই ফলে চিনির পরিমাণ যেমন বেশি, তেমনই ফাইবার প্রায় নেই বললেই চলে। তাই এক দিকে যেমন রক্তে শর্করার মাত্রা বাড়ে, তেমনই ফাইবার না থাকায় মেটাবলিজমে সাহায্য করে না পেঁপে। আনারস: খুবই রসাল, সুস্বাদু ফল আনারস। কিন্তু এই ফলে চিনির পরিমাণ অত্যন্ত বেশি যা ওজন কমানোর পথে বড় বাধা।

    আম: গরমে আম খেতে সকলেই ভালোবাসেন। কিন্তু ওজন কমাতে চাইলে আম যত কম পরিমাণ খাওয়া যায় ততই ভালো। কারণ আমের মধ্যে চিনির পরিমাণ অত্যন্ত বেশি। তার বদলে বরং খান পিচ। এই ফলে রয়েছে প্রচুর ভিটামিন এ, ভিটামিন সি ও পটাশিয়াম।

    জুস: যখন আমরা ফল থেকে রস বের করে নিই, তখন তা দাঁড়ায় ফাইবার ছাড়া শুধুই ফলের মধ্যে থাকা গ্লুকোজ। অর্থাৎ, সেই ফলের ফ্লেভারের চিনির রস। যার সঙ্গে মিষ্টি সোডার কোনো পার্থক্য নেই। ওজন কমানোর পথে যা সবচেয়ে বড় বাধা।

    First published: