হোম /খবর /কলকাতা /
মমতার মাস্টারস্ট্রোক, বিজেপি-র অস্বস্তি বাড়িয়ে শুভেন্দুর সাহায্য চাইবেন শোভনদেব

Sovandeb Chattopadhyay: মমতার মাস্টারস্ট্রোক, বিজেপি-র অস্বস্তি বাড়িয়ে শুভেন্দুর সাহায্য চাইবেন শোভনদেব!

শুভেন্দুর সাহায্য চাইবেন শোভনদেব

শুভেন্দুর সাহায্য চাইবেন শোভনদেব

Sovandeb Chattopadhyay: নদী ভাঙন নিয়ে সর্বদলীয় প্রতিনিধি দলেবিজেপিকে সামিল করতে শুভেন্দু অধিকারীর সাহায্য চাইবেন শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়।

  • Share this:

#কলকাতা: গঙ্গা সহ রাজ্যের নদী ভাঙন ঠেকাতে, দিল্লির সর্বদলীয় প্রতিনিধি দলে বিজেপিকে পাশে পেতে মরিয়া তৃণমূল। বিধানসভায় সায় দিয়েও, আচমকাই বেঁকে বসেছে বিজেপি। বরফ গলাতে বিরোধী দলনেতার সঙ্গে কথা বলতে পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব চট্টোপাধ্যায়কে দায়িত্ব দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। শোভনদেব জানান, ''মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে খুব শীঘ্রই আমি বিরোধী দলনেতার সঙ্গে কথা বলব।''

বিধানসভায় সংবিধান দিবস পালনের দিনেই সভায় বিরোধী দলনেতার উপস্থিতিতে মুখ্যমন্ত্রী নিজেই রাজ্যের স্বার্থে এই প্রস্তাব দিয়েছিলেন। মুখ্যমন্ত্রীর এই প্রস্তাবের জেরেই গতকাল, বিধানসভায় সরকারি ভাবে এ বিষয়ে প্রস্তাব আনে শাসক দল। সেই প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নেয় বিজেপি ও আইএসএফ। সভায় সর্বসম্মত ভাবে সিদ্ধান্ত হয় দিল্লিতে সর্বদলীয় প্রতিনিধিদল পাঠানো হবে বিধানসভা থেকে। গতকালের সভায় বিরোধী দলনেতা সশরীরে উপস্থিত না থাকায়, বিজেপির মুখ্য সচেতক মনোজ টিগ্গা জানান, তারা নীতিগত ভাবে এই প্রস্তাবকে সমর্থন করেন। প্রতিনিধি দলের বিষয়টি নিয়ে বিরোধী দলনেতার সঙ্গে আলোচনা করে তা চূড়ান্ত করা হবে।

বিধানসভার চলতি অধিবেশনের শেষে ধন্যবাদ জ্ঞাপক অনুষ্ঠানে পরিষদীয় মন্ত্রী শোভনদেব, প্রতিনিধি দল নিয়ে বিজেপির মত পরিবর্তন প্রসঙ্গে বলেন, ''রাজ্যর এত বড় বিপদের দিনে আমরা চাই দলীয় রাজনীতির উর্ধে উঠে দিল্লিতে গিয়ে রাজ্যের স্বার্থে একসাথে দরবার করা হোক।"

আরও পড়ুন: প্রকাশ্যে আনলেন নথি, মমতার বিরুদ্ধে বিস্ফোরক অভিযোগ শুভেন্দুর! নিশানায় 'সেই' ধর্না

পরে, নিজের ঘরে এ বিষয়ে শোভনদেব বলেন, ''বিধানসভায় সব বিরোধী দলই সরকারের প্রস্তাবকে সমর্থন করে৷ পরে রাতের দিকে সংবাদ মাধ্যমে ওদের মত পরিবর্তনের কথা জানতে পারি। সে কারনে আজ বিধানসভায় বিরোধী দলনেতা না থাকায়, আমি নিজে বিজেপির মুখ্য সচেতক  মনোজ টিগ্গার কাছে গিয়ে বিষয়টি জানতে চাই। ওদের তরফে কারা প্রতিনিধি দলে যাবেন, তাদের নাম জানানোর জন্য আমি মনোজকে অনুরোধ করেছি। মনোজ আমাকে বলেছেন, বিষয়টি বিরোধী দলনেতাকে জানানো হয়েছে।"  এরপরেই শোভনদেব বলেন,"  মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলে  তিনি এ বিষয়ে খুব তাড়াতাড়ি  বিরোধী দলনেতাকে ফোন করবেন। "

শোভনদেবের এই মন্তব্যের জবাবে বিজেপি পরিষদীয় দলের মুখ্য সচিব মনোজ টিগ্গা তাঁর বক্তব্যকে সমর্থন করে বলেন, ''সেটাই সঠিক সিদ্ধান্ত। পরিষদীয় মন্ত্রী নিজে বিরোধী দলনেতার সঙ্গে কথা বলে নিলে কোনও জটিলতা থাকবে না।''

আরও পড়ুন: বাড়ি থেকে ১০০ মিটারের মধ্যে অভিষেকের সভা, বড় আশঙ্কা প্রকাশ করে হাই কোর্টে শুভেন্দু

বিধানসভায় মুখ্যমন্ত্রীর প্রস্তাব দেওয়ার সময় বিরোধী দলনেতা উপস্থিত থাকলেও, সদনে এ নিয়ে নির্দিষ্ট ভাবে কিছু বলেননি। এরপর, মঙ্গলবার বিধানসভায় এই প্রস্তাব নিয়ে আলোচনাতেও শুভেন্দু ছিলেন না। বুধবার অধিবেশনে যোগ দেননি তিনি। বিধানসভার বাইরে শুভেন্দু বলেছিলেন, ''প্রস্তাবের কপি আগে দেখি তারপর এ নিয়ে আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আজ এ বিষয়ে মনোজ টিগ্গা বলেন, ''উত্তরবঙ্গের বেশ কিছু নদীতে এই সমস্যা আছে। আলোচনায় আমরা সেই বিষয়েও গুরুত্ব দেবার কথা বলেছি। শুধু গঙ্গা বা কেলেঘাই কপালেশ্বরীর জন্য ঘাটাল মাস্টার প্লানের অর্থ বরাদ্দের দাবি নয়, উত্তরবঙ্গের নদীগুলির এই সমস্যাকেও প্রস্তাবে যুক্ত করতে হবে।"

রাজনৈতিক মহলের মতে, নীতিগত ভাবে রাজি হলেও, তৃণমূলের নেতৃত্বে কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিদলে যোগ দেওয়া নিয়ে ফাঁপরে পড়েছে  বিজেপি। মমতার সৌজন্য রাজনীতির ' ফাঁদে' পড়ার পর সতর্ক শুভেন্দুও।নদী ভাঙনের সমস্যা শুধু শাসক দলের নয়, বিরোধীদেরও। বিশেষত ফারাক্কা ও ধূলিয়ানে গঙ্গা ও ফুলহার নদীর ভাঙন রীতিমত চিন্তার কারন। উত্তরবঙ্গের তিস্তা, মহানন্দার মত  ভূটান পাহাড় থেকে নেমে আসা নদীর ভাঙনে জেরবার গোটা উত্তরবঙ্গ। ফলে, রাজনৈতিক স্বার্থেই, রাজ্য বিজেপির  "হোমল্যান্ড " উত্তরবঙ্গের এই সমস্যা থেকে নিজেকে সরিয়ে রাখতে পারবে না বিজেপি।  এটা বুঝেই মমতার এই কৌশল। ফলে, বিজেপির অবস্থা এখন 'শ্যামও রাখি, কূলও রাখি ' গোছের। আর, বিজেপির এই দুর্বলতাকে কাজে লাগিয়ে রাজ্যের নদী ভাঙনে কেন্দ্রীয় বরাদ্দ আদায় করে নিতে চাইছেন মমতা।

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: Mamata Banerjee, Sovandeb Chattopadhyay, Suvendu Adhikari