• Home
  • »
  • News
  • »
  • kolkata
  • »
  • KOLKATA BUS DRIVER HANGED HIMSELF INSIDE PRIVATE BUS HIS BODY RECOVERED PBD

কলকাতায় বেসরকারি বাসের মধ্যে চালকের ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার

বাসের মধ্যে আত্মহত্যা চালকের

অভাবের কারণে আত্মঘাতী হয়েছেন বলে দাবি অন্য বাস চালক-কন্ডাক্টরদের।

  • Share this:

    #কলকাতা: ঢাকুড়িয়া-হাওড়া রুটের বেসরকারি বাস চালকের অস্বাভাবিক মৃত্যু (Bus driver death)। ৩৭ নম্বর বাস স্ট্যান্ডে বাসের ভিতর থেকে উদ্ধার হয় চালকের ঝুলন্ত দেহ। অভাবের কারণে আত্মঘাতী হয়েছেন বলে দাবি অন্য বাস চালক-কন্ডাক্টরদের।বৃহস্পতিবার সকাল ৬টা। ৩৭ নম্বর রুটের স্টার্টার প্রথম বাসের জানলার কাঁচ দিয়ে ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান। কাছে গিয়ে দেখেন ওই বাসের চালক রঞ্জিত দাস (Ranjit Das) গলায় ফাঁস দিয়ে ঝুলছেন। লেক থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিস এসে দেহ উদ্ধার করে। পরে হাসপাতালে পাঠানো হলে চিকিৎসকরা মৃত বলে ঘোষণা করেন।

    প্রসঙ্গত করোনা আবহে রাজ্য জুড়ে গত দেড় মাসের বেশি সময় ধরে কড়া বিধি নিষেধ জারি রয়েছে। যার জেরে বন্ধ ছিল বাস। তাই মিলছিল না পারিশ্রমিক, এমনই অভিযোগ অন্যান্য বাস চালকদের। তাঁদের বক্তব্য, রঞ্জিত মাঝে মাঝেই অভাব অনটনের কথা বলতেন। বাড়িতেও যেতেন না। রাতে বাসের মধ্যে ঘুমিয়ে পড়তেন। বুধবার রাতেও বাসেই ছিলেন। এদিন সকালে তাঁকে ঝুলন্ত অবস্থায় পাওয়া গেল। তাঁদের আরও অভিযোগ, বাস না চললে তাঁদের কমিশন বন্ধ। সকলের পরিবার আছে, এই ভাবে কত দিন চলবে, তা নিয়ে প্রশ্ন তুলছেন তাঁরা।

    এদিন দেহ উদ্ধারের পর বাস মালিকের সঙ্গে যোগাযোগ করে লেক থানার পুলিস। ইতিমধ্যে অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা রুজু করা হয়েছে।তবে ওই স্ট্যান্ডের অন্যান্য  বাস চালকদের সঙ্গে কথা বলেছে পুলিস। তাঁরা যে অভাব অনটনের অভিযোগ করছেন, তা খতিয়ে দেখা হচ্ছে। শুধুই কী অভাব, নাকি আত্মহত্যার পিছনে অন্য কোনও কারণ রয়েছে তাও খতিয়ে দেখা হচ্ছে। প্রাথমিক ভাবে আত্মহত্যা বলে মনে করছে পুলিস। ইতিমধ্যে ময়নাতদন্তের জন্য দেহটি পাঠানো হয়েছে। পরিবারের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হয়েছে। পারিবারিক কোনও অশান্তি ছিল কিনা তাও খোঁজ করছে পুলিস। অভাবে কারও থেকে টাকা ধার নিয়েছিল কিনা তা জানার প্রয়োজন আছে বলে মনে করছেন তদন্তকারীরা।

    (Amit Sarkar)

    Published by:Pooja Basu
    First published: