আগে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস শেষ হবে, তারপরেই নতুন ক্লাসের পঠন-পাঠন শুরু, পরিকল্পনা রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতরের

আগে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস শেষ হবে, তারপরেই নতুন ক্লাসের পঠন-পাঠন শুরু, পরিকল্পনা রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতরের

File Photo

সূত্রের খবর, পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়ে গেলেও আগে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস শেষ হবে তারপরেই নতুন ক্লাসের পঠন-পাঠন শুরু হবে।

  • Share this:

#কলকাতা: জানুয়ারি মাস থেকেই শিক্ষাবর্ষ শুরু হচ্ছে। নতুন শিক্ষাবর্ষ শুরু হলেও কী ভাবে হবে আগের ক্লাসের সিলেবাস শেষ? তা নিয়েই এবার নির্দিষ্ট পরিকল্পনা করল রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর ও মধ্যশিক্ষা পর্ষদ। সূত্রের খবর, পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়ে গেলেও আগে পুরনো ক্লাসের সিলেবাস শেষ হবে তারপরেই নতুন ক্লাসের পঠন-পাঠন শুরু হবে।

এই পরিকল্পনার দিকে তাকিয়ে কিছু রূপরেখাও তৈরি করতে চলেছে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতর বলেই জানা গিয়েছে। সর্বশিক্ষা অভিযানের নিয়ম মোতাবেক পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত সাধারণত কোনও পাশ ফেল নেই। অর্থাৎ পরীক্ষা হলেও ছাত্রছাত্রীরা পরবর্তী ক্লাসে উঠে যেতে পারে। বর্তমান করোনা পরিস্থিতিতে সেই নিয়ম কার্যকর করা হতে পারে। অর্থাৎ ছাত্র-ছাত্রীদের পরবর্তী ক্লাসে তুলে দেওয়া হতে পারে অন্তত পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণি পর্যন্ত তেমনটাই খবর ৷ পরবর্তী ক্লাসে তুলে দেওয়া হলেও যাতে আগের ক্লাসের পঠন-পাঠন থেকে ছাত্রছাত্রীরা বঞ্চিত না হয় তার জন্যই এই পরিকল্পনা বলে জানা গিয়েছে।

সূত্রের খবর, এক্ষেত্রে ঠিক হয়েছে গত মার্চ মাস পর্যন্ত ক্লাস হয়েছে মাত্র ৩০ শতাংশ। অন্তত তেমনটাই পরিসংখ্যান উঠে এসেছে রাজ্য স্কুল শিক্ষা দফতরের কাছে বিভিন্ন স্কুল এবং জেলা স্কুল বিদ্যালয় পরিদর্শক মারফত। সর্বশিক্ষা মিশনের নিয়ম অনুযায়ী পরবর্তী ক্লাসে ছাত্র ছাত্রীরা উঠে গেলেও বাকি ৭০ শতাংশ সিলেবাস শেষ করতে হবে। বিশেষত পঞ্চম থেকে অষ্টম শ্রেণী পর্যন্ত ছাত্র ছাত্রীদের ক্ষেত্রে পরবর্তী ক্লাসে ওঠায় কোনও বাধা নেই সর্বশিক্ষা মিশনের নিয়ম অনুযায়ী। সেক্ষেত্রে পরবর্তী ক্লাসে উঠে গেলে আগের ক্লাসের সিলেবাস শেষ করতে হবে পরবর্তী ক্লাসের, ক্লাস শুরু হওয়ার আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে। অর্থাৎ, জানুয়ারি মাস থেকে শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়ে গেলেও ক্লাসরুমে যখন ক্লাস শুরু হবে তখন আগের ক্লাসের পঠন-পাঠন শেষ করা হবে। সেই পঠনপাঠন শেষ করা হবে আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে। স্কুল শিক্ষা দফতরের আধিকারিকদের ব্যাখ্যা  বাকি সিলেবাস শেষ করার জন্য আড়াই থেকে তিন মাস সময়সীমাটা তুলনামূলকভাবে কম হলেও তার মধ্যে করা সম্ভব।

একাংশের ব্যাখ্যা যেহেতু মার্চ মাসের পর থেকেই রাজ্যজুড়ে স্কুল বন্ধ রয়েছে কিছু কিছু স্কুল অনলাইনে ক্লাস নিয়েছে এবং ধরে নেওয়া হচ্ছে ছাত্রছাত্রীরা বাড়িতে বসে নিজেরাও কিছুটা প্রস্তুতি নিয়েছেন স্কুলশিক্ষকদের সহযোগিতায়। ফলতো বাকি ৭০ শতাংশ সিলেবাস ক্লাস রুমে আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে বুঝিয়ে দেওয়া সম্ভব ছাত্র-ছাত্রীদের। যদিও এই বাকি সিলেবাস আড়াই থেকে তিন মাসের মধ্যে কীভাবে শেষ করা যেতে পারে তা নিয়ে কিছু গাইডলাইন দিয়ে দেওয়া হতে পারে শিক্ষক-শিক্ষিকাদের।

সূত্রের খবর, সেই গাইডলাইন এই বুঝিয়ে দেওয়া হবে কোন কোন বিষয়গুলিকে সর্বাধিক গুরুত্ব দিতে হবে এবং কোনগুলিকে মাথায় রেখে শিক্ষকদের ক্লাস নিতে হবে। তাই শিক্ষাবর্ষ শুরু হয়ে গেলেও আগের ক্লাসের সিলেবাস শেষ করে তবেই পরবর্তী ক্লাসের সিলেবাসের পঠন-পাঠন শুরু করা হবে। যদিও এই বিষয়ে আনুষ্ঠানিকভাবে কোনও মন্তব্য করতে চাননি স্কুল শিক্ষা দফতরের কোনও আধিকারিক বা মধ্যশিক্ষা পর্ষদের সভাপতি।

 সোমরাজ বন্দ্যোপাধ্যায়

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: