corona virus btn
corona virus btn
Loading

কাউন্টারে ভিড় নেই, মোবাইল অ্যাপেই ট্রেনের টিকিট কাটছেন যাত্রীরা !

কাউন্টারে ভিড় নেই, মোবাইল অ্যাপেই ট্রেনের টিকিট কাটছেন যাত্রীরা !
Representative Image

যাত্রী সচেতনতা বাড়াতে বিভিন্ন স্টেশনে ক্যাম্প করার সিদ্ধান্ত রেলের

  • Share this:

ABIR GHOSHAL #কলকাতা: কাউন্টার নয় যাত্রীরা বেশি টিকিট কাটছেন মোবাইলে। ইউটিএস মোবাইল অ্যাপ ব্যবহারকারীর সংখ্যা বেড়েছে বলে জানাচ্ছে দক্ষিণ পূর্ব রেল। রেলে ডিজিটালাইজেশন ব্যবস্থা বিভিন্ন ক্ষেত্রে চালু করতে উদ্যোগী হয়েছে ভারতীয় রেল। দেশের বিভিন্ন প্রান্তে ইতিমধ্যেই সেই প্রকল্পে ইউটিএস বা আনরিজারভড টিকিটিং সিস্টেম চালু করেছে ভারতীয় রেল। তাতেই সাফল্য এসেছে দক্ষিণ পূর্ব রেলে। এই জোনের খড়্গপুর, আদ্রা, চক্রধরপুর ও রাঁচি ডিভিশনে তাত্পর্যপূর্ণ ভাবে ইউটিএসের ব্যবহার বেড়েছে। ২০১৯-২০ অর্থ বর্ষে এপ্রিল থেকে নভেম্বর মাসের মধ্যে

৪০ লক্ষ ৪৬ হাজার ৮৬৪ জন যাত্রী মোবাইলে ইউটিএস অ্যাপ ব্যবহার করে রেলে টিকিট কেটেছেন। ডিভিশনের কর্তাদের ব্ক্তব্য ২০৯% বৃদ্ধি পেয়েছে ইউটিএস ব্যবহারকারীদের সংখ্যা। যা ২০১৮-১৯ অর্থ বর্ষে ছিল মাত্র ১৩ লক্ষ ০৯ হাজার ৬২৯ জন। দক্ষিণ পূর্ব রেলের তরফ থেকে জানা যাচ্ছে ইউ টি এস ব্যবহারকারীদের থেকে ২০১৮-১৯ সালে রেলের আয় হয়েছিল ১ কোটি ৫২ লক্ষ। সেখানে ২০১৯-২০ সালে রেলের আয় বেড়ে হয়েছে ৫ কোটি ৫০ লক্ষ টাকা। রেলের মূল লক্ষ্য ছিল, টিকিটিং ব্যবস্থা গোটাটাই পেপারলেস ও ক্যাশলেস করা। সেই লক্ষ্যেই চালু করা হয় ইউটিএস অ্যাপ। অ্যাপ নিয়ে প্রচার চালালেও সেভাবে যাত্রীরা ব্যবহার করেনি এই অ্যাপ। সেই কারণেই একাধিক স্টেশনে লাগাতার ক্যাম্প করে রেল। তারই সুফল মিলেছে বলে দাবি রেলের। ইতিমধ্যেই রেলের একাধিক জোনে কমানো হচ্ছে টিকিট কাউন্টারের সংখ্যা। যে সমস্ত কর্মীরা এই বিভাগে কাজ করছেন তাদের অন্যত্র সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হচ্ছে। বিভিন্ন স্টেশনে টিকিট কাউন্টার বন্ধ অবধি করা হয়েছে। সেই কারণে যাত্রীরা কার্যত বাধ্য হয়েই ইউটিএস অ্যাপের ওপর নির্ভরশীল হয়ে পড়েছে বলে মনে করছেন রেল বিশেষজ্ঞরা। তবে শহরতলির ট্রেন গুলিতে যত সংখ্যক যাত্রী যাতায়াত করেন তাদের অনেকেই কাউন্টার টিকিট কাটতে অভ্যস্ত। এছাড়া অনেক যাত্রী আছেন যাদের কাছে স্মার্ট ফোন নেই। তাদেরও ভরসা সেই কাউন্টার টিকিট। ফলে কাউন্টারের সংখ্যা কমে যাওয়া বা বন্ধ হয়ে যাওয়ার ফলে অসুবিধায় পড়ছেন অনেকেই। এছাড়া বিভিন্ন স্টেশনে দেখা যাচ্ছে অটোমেটিক টিকিট ভেনডিং মেশিন বা এটিভিএম কাজ করছে না। ফলে স্বল্প কাউন্টারের সামনে লম্বা লাইন পড়ছে যাত্রীদের। দক্ষিণ পূর্ব রেলের মু্খ্য জনসংযোগ আধিকারিক সনজয় ঘোষ জানাচ্ছেন, 'যাত্রীরা যাতে বেশি করে এই অ্যাপ ব্যবহার করেন তার প্রচার চালিয়ে যাব। আশা করি যাত্রীরা এর ব্যবহার বাড়াবেন।' তবে দক্ষিণ পূর্ব রেলের বিভিন্ন স্টেশনে যে সমস্ত যাত্রীরা যাতায়ত করেন লোকাল ট্রেনে তাদের এলাকায় মোবাইল নেটওয়ার্ক নিয়েও নানা সমস্যা আছে। তার পরেও এই ৪ ডিভিশনে ইউটিএস ব্যবহারকারীদের সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় খুশি দক্ষিণ পূর্ব রেল।

Published by: Ananya Chakraborty
First published: January 2, 2020, 7:42 PM IST
পুরো খবর পড়ুন
अगली ख़बर