• Home
  • »
  • News
  • »
  • international
  • »
  • EXCLUSIVE INTERVIEW OF SHER MOHAMMAD ABBAS STANIKZAI DEPUTY POLITICAL OFFICE OF ISLAMIC EMIRATE OF AFGHANISTAN SS

EXCLUSIVE | Sher Mohammad Abbas Stanikzai: ভারত এবং প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তোলাই লক্ষ্য, জানালেন তালিবানদের অন্যতম শীর্ষ নেতা

Sher Mohammad Abbas Stanikzai

Sher Mohammad Abbas Stanikzai Exclusive Interview: তালিবান নেতৃত্বের অন্যতম এই শীর্ষ নেতা CNN-News18-কে দিলেন এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷

  • Share this:

    MANOJ GUPTA

    নয়াদিল্লি: তালিবানের অন্যতম এই শীর্ষ নেতা দেরাদুনের বিখ্যাত ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমির প্রাক্তনী। ১৯৮০-র ব্যাচের ছাত্র যে এখন তালিবান শিবিরে যোগ দেবেন এবং সংগঠনের মাথায় বসবেন, তা শুনে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের সকলে বিস্মিত। উল্লেখ করার মতো তথ্য হল, আফগানিস্তান সেনাবাহিনীর হয়ে সোভিয়েত আগ্রাসনের বিরুদ্ধে লড়াই করেছিলেন। অত্যন্ত মেধাবী ছাত্র শের মহম্মদ আব্বাস স্ট্যানিকজাই (Sher Mohammad Abbas Stanikzai)। তালিবানের শীর্ষ স্থানীয় সাত নেতার মধ্যে অন্যতম হলেন এই স্ট্যানিকজাই।

    বেশ কয়েকটি ভাষায় কথা বলতে পারেন। শের মহম্মদ আব্বাস স্ট্যানিকজাইয়ের জন্ম আফগানিস্তানের বারাকি বারাক জেলায়।রাষ্ট্রবিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা শেষ করে দেরাদুনের ইন্ডিয়ান মিলিটারি অ্যাকাডেমিতে যোগদানের সিদ্ধান্ত নেন। তালিবান নেতৃত্বের এই শীর্ষ নেতা CNN-News18-কে দিলেন এক্সক্লুসিভ সাক্ষাৎকার ৷

    প্রশ্ন: ভারতের প্রতি তালিবান নেতৃত্বের কী মনোভাব ? 

    উত্তর: ইসলামিক এমিরেট অফ আফগানিস্তান (The Islamic Emirate of Afghanistan) ৷ আমাদের বিদেশ নীতিই হল, সব দেশের সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় রেখ চলা ৷ গত ২০ বছর ধরে আমেরিকার সেনাবাহিনী আমাদের এখানে রয়েছে ৷ এবং ধীরে ধীরে তারা নিজেদের দেশে ফিরে যেতে শুরু করেছে ৷ তাই আমাদের সঙ্গে আমেরিকা এবং ন্যাটোর সঙ্গেও ভাল সম্পর্ক রয়েছে ৷ তারা এখানে এসে আফগানিস্তান গড়তেও সাহায্য করতে পারে বলে আমি মনে করি ৷ একই কথা আমি ভারতের জন্যও বলব ৷ আমরা চাই ওদের সঙ্গে বন্ধুত্বপূর্ণ  সম্পর্ক  গড়ে তুলতে ৷ সাংস্কৃতিক এবং অর্থনৈতিকভাবে সুসম্পর্ক গড়ে তোলাই আমাদের লক্ষ্য ৷ আর তা শুধু ভারতের সঙ্গেই নয়, প্রতিবেশী তাজিকিস্তান, পাকিস্তান, ইরান সবার সঙ্গেই তা গড়ে তুলতে চাই আমরা ৷

    আরও পড়ুন- বিস্ফোরক বোঝাই জঙ্গিদের গাড়িতে মার্কিন ড্রোন হামলা! রক্ষা পেল কাবুল বিমানবন্দর

    প্রশ্ন: একটা ভয় কাজ করছে, সেটা হল, ভারতের উপর হামলা চালাতে পারে তালিবান, এব্যাপারে পাকিস্তানের সঙ্গে একজোট বাঁধতে পারে তারা ৷ আপনি এ বিষয় কী বলবেন ?

    উত্তর: মিডিয়ায় যা দেখানো হয়, তা বেশির ভাগ সময়েই ভুল হয় ৷ এরকম কোনও  পরিকল্পনা আমাদের পক্ষ থেকে নেই ৷ আমরা চাই আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলির সঙ্গে ভাল সম্পর্ক গড়ে তোলা ৷

    প্রশ্ন: একটি ভয় সর্বত্র কাজ করছে, যে আফগানিস্তান হয়তো জঙ্গি সংগঠনগুলির স্থান হয়ে দাঁড়াবে ৷ লস্কর এবং জৈশ জঙ্গি সংগঠনগুলি ভারতের কাছে  চিন্তার কারণ ৷ আপনি এ বিষয় কী মনে করছেন ?

    উত্তর: আফগানিস্তান থেকে তার প্রতিবেশী দেশগুলির উপর আতঙ্ক তৈরি কখনই করা হয়নি ৷ সেই তালিকায় রয়েছে ভারতও ৷ এ ব্যাপারে কোনও সন্দেহ নেই যে রাজনৈতিক এবং ভৌগলিক দিক থেকে ভারত-পাকিস্তানের মধ্যে দীর্ঘদিনের সমস্যা রয়েছে ৷ আমরা আশা রাখি, এর জন্য তারা আফগানিস্তানকে ব্যবহার করবে না ৷ ভারত-পাক দুই দেশের মধ্যে অনেক বড় সীমান্ত রয়েছে ৷ ওরা সেখানে নিজেদের মধ্যেই লড়াই করুক ৷ আফগানিস্তানের মাটিকে যেন এর জন্য ব্যবহার না করে তারা ৷

    প্রশ্ন: আপনি বলছেন যে লস্কর এবং জৈশকে আপনার দেশে ঢুকতে দেওয়া হবে না, এ ব্যাপারে আপনি কি নিশ্চয়তা দিচ্ছেন ?

    উত্তর: এটা আমাদের কর্তব্য ৷ আমরা কাউকেই আফগান ভূমি অন্য কোনও দেশের বিরুদ্ধে কাজ করার জন্য ব্যবহার করতে দেব না ৷

    আরও পড়ুন- ফের আইসিস হামলা কাবুলে! অক্ষরে অক্ষরে মিলল মার্কিন প্রশাসনের অনুমান

    প্রশ্ন: IMA-তে আপনি প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন ৷ সেখানকার কোনও স্মৃতি মনে পড়ে আপনার ?

    উত্তর: সেটা যখন হয়েছিল, আমার বয়স তখন খুব অল্প ছিল ৷ আমি ওখানে ট্রেনিং নিয়েছিলাম, রাশিয়া আফগানিস্তানে আসার আগে ৷ আইএমএ থেকে গ্র্যাজুয়েট হই ৷

    প্রশ্ন:  আপনি কি এখনও তাদের সঙ্গে যোগাযোগ রেখেছেন ?

    উত্তর: না, কোনও যোগাযোগ নেই ৷

    প্রশ্ন: কাবুলে এই কয়েকদিন আগের হামলার পিছনে আপনি কাকে দায়ী করবেন ? 

    উত্তর: মিডিয়াতে আমি দেখেছি এই হামলার পিছনে তাদের হাত রয়েছে বলে স্বীকার করে নিয়েছে  Daish ৷

    প্রশ্ন: কিন্তু রিপোর্টে যে বলছে যে হক্কানি এই বিস্ফোরণ ঘটিয়েছে এবং আইসিসি যার দায় স্বীকার করেছে ৷ এই ব্যাপারে আপনি কী বলবেন ?

    উত্তর: আফগানিস্তানের শত্রুরা এমনটাই বলে ৷ এটা একেবারেই ঠিক নয় ৷ Daish যখন দায় স্বীকার করে নিয়েছে ৷ তখন এই কাণ্ড ওরাই ঘটিয়েছে ৷

    প্রশ্ন: আপনি কি মনে করছেন আফগানিস্তানকে বিশ্বশক্তি এবং ভারত কী চোখে দেখবে ?

    উত্তর: ইসলামিক এমিরেট অফ আফগানিস্তান সরকার গড়তে চলেছে ৷ তাই আমাদের প্রতিবেশী দেশগুলি এবং বিশ্বের অন্যান্য দেশগুলির সঙ্গে সুসম্পর্ক বজায় থাকাটাই আবশ্যিক ৷ নতুন সরকার গঠিত হলেই আমরা আশা রাখব, আমেরিকা-সহ সব দেশই আমাদের সমর্থন করবে ৷

    প্রশ্ন: আফগানিস্তানে অনেক উন্নয়নমূলক কাজ করেছে ভারত ৷ সেগুলির কী হবে ?

    উত্তর: ভারত আফগানিস্তানে যা করেছে, তা আমাদের জাতীয় সম্পদ ৷ আশা রাখব ভবিষ্যতেও যে কাজগুলি অসম্পূর্ণ থেকে গিয়েছে, তা সম্পূর্ণ করবে ভারত ৷ আমরা ভারতকে এই কাজের জন্য আমন্ত্রণ জানাচ্ছি ৷

    Published by:Siddhartha Sarkar
    First published: