Home /News /hooghly /
Hooghly: ষাঁড়ের তাণ্ডবে অতিষ্ঠ পান্ডুয়ার গ্রামবাসীরা

Hooghly: ষাঁড়ের তাণ্ডবে অতিষ্ঠ পান্ডুয়ার গ্রামবাসীরা

একেই বোধহয় বলে 'খাল কেটে কুমীর আনা\"।ভিনগ্রাম থেকে আসা অসুস্থ ষাঁড়ের চিকিৎসা করে সুস্থ করে তোলা গ্রামের মানুষকে এখন সেই ষাঁড়েই অতিষ্ট করে তুলেছে।

  • Share this:

    #হুগলি: একেই বোধহয় বলে 'খাল কেটে কুমীর আনা\"।ভিনগ্রাম থেকে আসা অসুস্থ ষাঁড়ের চিকিৎসা করে সুস্থ করে তোলা গ্রামের মানুষকে এখন সেই ষাঁড়েই অতিষ্ট করে তুলেছে । বেশ কয়েক মাস আগে একটি আহত ষাঁড় এসে পৌঁছায় হুগলির পান্ডুয়ায়। গ্রামের কিছু ছেলে মিলে চিকিৎসা করে তাকে সরিয়ে তোলে। তার পর থেকেই শুরু হয় গ্রাম জুড়ে ষাঁড়ের তাণ্ডব। কখনও গ্রামের ক্ষেতের ফসল নষ্ট করে দিচ্ছে ওই ষাঁড়। রাতের বেলায় গুঁতানোর জন্য তাক করে গ্রামবাসীদেরই। তাই লাঠি হাতে গ্রামের পাহারায় নেমেছে খোদ গ্রামবাসীরাই. পান্ডুয়ার খন্যান পশ্চিম পাড়ায় বছরখানেক আগে হঠাৎই দেখা মেলে ওই আহত ষাঁড়টির, ভালো করে হাঁটতে পারছিল না ষাঁড়টি। গ্রামেরই কয়েকজন যুবক তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করে। ধীরে ধীরে সুস্থ হয়ে ওঠে।

    গ্রামের মানুষের সেবা শুশ্রুষায় খাওয়া দাওয়া করে সুস্থ সবল হয়ে ওঠে । চেহারাতেও তার পরিবর্তন দেখা যায়। গ্রামের লোকেরাই সাধ করে নাম রাখেন ভোলা। সবই ঠিক ছিল এপর্যন্ত কিন্তু তারপর ছন্দপতন। হঠাৎ কি হল, কেউ বুঝতে উঠতে পারলেন না।

    আরও পড়ুনঃ জানেন কি? শেওড়াফুলির পতিতা পল্লীর মন্টু পাইলট বাস্তবে একজন শিক্ষক!

    বেশ কিছুদিন ধরে গ্রামে রীতিমতো তান্ডব শুরু করেছে ভোলা। চাষের জমিতে নেমে সব্জি ফসল নষ্ট করতে থাকে। সন্ধায় ছোটো বাচ্চা মহিলারা ভোলার আতঙ্কে বাইরে বেরোতে ভয় পায়। তাড়িয়ে দেওয়ার চেষ্টা করলে গুঁতিয়ে দিতে আসে। লাঠি নিয়ে পাহারার ব্যবস্থা করে গ্রামবাসীরা। বন দপ্তরে খবর দেওয়া হয়।

    আরও পড়ুনঃ  দুর্গাপুজোয় থার্মোকলের ব্যবহার নিষিদ্ধ করায় সমস্যায় পুজো উদ্যোক্তারা

    গ্রামবাসী মহঃ মমিনূল ইসলাম বলেন, আমরা চাই বন দপ্তর ষাড়টিকে ধরে অন্যত্র নিয়ে যাক। সেখ কাদের আলি বলেন, রবি মরসুমে ধান আলু নষ্ট করেছে। আমন ধানের বীজ খেয়ে নিচ্ছে মানুষের ক্ষতি করছে ভোলা। বন দপ্তর কিছু একটা ব্যবস্থা করুক।

    Rahi Haldar
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Hooghly, Pandua

    পরবর্তী খবর