Mucormycosis: এক রামে রক্ষে নেই, সুগ্রীব দোসর, কোভিড আক্রান্তদের শরীরে নতুন সংক্রমণের উপস্থিতি!

কোভিড আক্রান্তদের শরীরে নতুন সংক্রমণের উপস্থিতি!

দিল্লি, মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা-সহ বেশ কিছু রাজ্যে আক্রান্তদের শরীরে এই নয়া সংক্রমণের হদিশ পাওয়া গিয়েছে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: এক রামে রক্ষে নেই, সুগ্রীব দোসর। কোভিড আক্রান্ত রোগীদের শরীরে পাওয়া যাচ্ছে নতুন এক সংক্রমণের উপস্থিতি। মিউকরমাইকোসিস (Mucormycosis) নামের এই নতুন সংক্রমণ খুব সাধারণ সংক্রমণ নয়। এমনকি এই সংক্রমণ যে বিপুল ভাবে ছড়িয়ে পড়েছে এমনটাও বলা যায় না। কিন্তু দিল্লি, মহারাষ্ট্র, হরিয়ানা-সহ বেশ কিছু রাজ্যে আক্রান্তদের শরীরে এই নয়া সংক্রমণের হদিশ পাওয়া গিয়েছে। এই নতুন সংক্রমণ আবার ব্ল্যাক ফাঙ্গাস (Black Fungus) নামেও পরিচিত। বিজ্ঞানীদের মতে এই সংক্রমণের পিছনে রয়েছে মিউকরমাইসিটিস (Mucormycetes) বলে একটি ভাইরাস। এই ভাইরাস প্রকৃতিতে সহজাত। অর্থাৎ খুব সহজাত প্রাকৃতিক উপায়েই এই ভাইরাসের মানব শরীরে আক্রমণ করে থাকে। এই ভাইরাস আক্রমণ করলে শরীরে ত্বকের সমস্যা দেখা দেয় মূলত। অন্যান্য উপসর্গ হিসাবে থাকে ফুসফুসের সমস্যা। বিজ্ঞানীরা অনেকেই এই ভাইরাসকে ব্ল্যাক ফাঙ্গাস হিসাবে অভিহিত করেছেন। যে সমস্ত মানুষের রোগ-প্রতিরোধ ক্ষমতা কম ও অন্যান্য নানা শারীরিক অসুবিধা রয়েছে, এই ভাইরাস মূলত তাদের আক্রমণ করে থাকে।

উপসর্গ

এই ভাইরাস আক্রমণ করলে নিম্নোক্ত উপসর্গগুলি শরীরে দেখা যেতে পারে।

সিনাসিটিস: নাসিকা ঘটিত নানারকম সমস্যা যেমন নাসারন্ধ্র বন্ধ হয়ে যাওয়া প্রভৃতি।

গালের হাড় ও মুখের নানা মাংশপেশি জনিত সমস্যা।

দাঁত আলগা হয়ে যাওয়া, চোয়ালের সমস্যা।

চোখে যন্ত্রণা ও দৃষ্টি ঝাপসা হয়ে আসা।

শরীরে ছোট ছোট ক্ষতের সৃষ্টি।

বুকে যন্ত্রণা ও প্লুরাল ইনফেকশন।

মুখ্যত এই ধরণের সমস্যা বা উপসর্গ হলেই রোগীর ক্ষেত্রে এই ভাইরাসের দ্বারা সংক্রামিত হবার সম্ভাবনা থেকে যায়। দাঁত আলগা হয়ে যাওয়া, চোয়ালে যন্ত্রণা, বুকের সমস্যা, দৃষ্টি ঘোলাটে হয়ে আসা এই প্রত্যেকটি অনুভব করলে তৎক্ষণাৎ ডাক্তারের সঙ্গে পরামর্শ প্রয়োজন। এই ভাইরাসের সংক্রমণের ক্ষেত্রে শারীরিক ভাবে অস্ত্রোপচার বিশেষ জরুরি। অস্ত্রোপচারের মধ্যে দিয়েই এই ভাইরাসকে প্রতিহত করা যায়। যদিও ড: তাতারাও লাহানের (Tatayarao Lahane) মতে এই ভাইরাসের সংক্রমণ নিয়ত বাড়ছে। এই ভাইরাস থেকে বাঁচার উপায়ও বলেছেন তিনি। ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকার উপায় হিসাবে তিনি প্রত্যেককে মাস্ক ব্যবহার করতে বলেছেন। একই সঙ্গে বলেছেন সব সময় জুতো ও পায়জামা জাতীয় পোশাক ব্যবহার করার কথা। চিকিৎসক মহল থেকে বারে বারে সাবধান করে দেওয়া হয়েছে সেই সমস্ত মানুষজনকে যাঁরা শারীরিক ভাবে দুর্বল। কেন না এই ভাইরাস সেই সব মানুষকে আক্রমণ করে থাকে অনেক বেশি।

Published by:Raima Chakraborty
First published: