IT Rules 2021: Facebook, Twitter, Koo, WhatsApp-এ ঠিক কী হতে চলেছে?

নতুন IT বিধি ২০২১ অনুসারে, ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে এখন একটি বৃহত্তর অভিযোগ প্রতিকারের ব্যবস্থা দরকার।

নতুন IT বিধি ২০২১ অনুসারে, ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে এখন একটি বৃহত্তর অভিযোগ প্রতিকারের ব্যবস্থা দরকার।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মে রাশ টানতে গত ২৫ ফেব্রুয়ারি Facebook, Instagram, Twitter-সহ সমস্ত সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম, ওটিটি, এবং ডিজিটাল মিডিয়ার উপর একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করেছিল কেন্দ্র। এই নির্দেশিকা লাগু করতে তিন মাসের সময়সীমাও দেওয়া হয়েছিল। সেই গাইডলাইনের সময়সীমা শেষ হয়েছে ২৫ মে। তাই এবার ভারতে ব্যবহৃত সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলিকে নতুন তথ্য প্রযুক্তি (মধ্যস্থতাকারী নির্দেশিকা এবং ডিজিটাল মিডিয়া নীতিশাস্ত্র কোড) বিধি ২০২১ কার্যকর করতে হবে, যে সমস্ত বিধি আজ থেকেই প্রযোজ্য হবে।

IT বিধি ২০২১-এর প্রধান প্রয়োজনীয়তাগুলি কী কী?

যেমনটি আমরা ইতিমধ্যে উল্লেখ করেছি যে ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির জন্য নতুন আইটি বিধি ২০২১-এর মধ্যে একটি গ্রিভ্যান্স অফিসার নিয়োগের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে, যিনি বৃহত্তর অভিযোগ নিষ্পত্তি ব্যবস্থার অংশ হিসাবে থাকবেন। এবং তাঁকে অবশ্যই ভারতের বাসিন্দা হতে হবে। অভিযোগের প্রতি প্রতিক্রিয়াশীলতা, প্রতিশোধমূলক পর্নোগ্রাফি-সহ ভারতীয় ব্যবহারকারীদের জন্য মাসিক সম্মতি রিপোর্ট, স্ব-নিয়ন্ত্রণ ব্যবস্থা এবং দেশের ইলেক্ট্রনিক্স এবং তথ্য প্রযুক্তি মন্ত্রকের মাধ্যমে একটি তদারকি প্রক্রিয়া শুরু হবে।

৫০ লক্ষেরও বেশি (৫ মিলিয়ন) ব্যবহারকারী-সহ সমস্ত উল্লেখযোগ্য সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম যেমন, Facebook, Instagram, Twitter এবং Koo-কে অনেক বড় সোশ্য়াল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ করা হয়েছে। চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত WhatsApp-এ ৩৯০ মিলিয়নেরও বেশি ব্যবহারকারী রয়েছে ভারতে। অন্য দিকে ভারতে Facebook ব্যবহারকারীদের সংখ্যাটাও নিতান্ত কম নয়। গবেষণা সংস্থা স্ট্যাটিস্টা (Statista) জানিয়েছে জানুয়ারি ২০২১ অনুসারে ভারতে Facebook ব্যবহারকারীর সংখ্যা ৩২০ মিলিয়ন।

অভিযোগ নিষ্পত্তি ব্যবস্থার জন্য প্রয়োজনীয়তা কী?

নতুন IT বিধি ২০২১ অনুসারে, ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিতে এখন একটি বৃহত্তর অভিযোগ প্রতিকারের ব্যবস্থা দরকার। সরকারের নতুন ডিজিটাল বিধি ঠিকঠাক পালিত হচ্ছে কি না তা দেখভালের জন্য থাকবেন একজন নোডাল ও গ্রিভ্যান্স অফিসার। সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে তাদের অ্যাপ এবং ওয়েবসাইটে, সেই সঙ্গে প্ল্যাটফর্মের যে কোনও সামগ্রীর বিরুদ্ধে অভিযোগ করার জন্য ব্যবহারকারীদের সেই ব্যবস্থাটির ব্যাখ্যা করতে হবে। এই অভিযোগগুলি পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে তার সত্যতা স্বীকার করতে হবে এবং অভিযোগগুলি প্রাপ্তির তারিখ থেকে ১৫ দিনের মধ্যেই তা নিষ্পত্তির ব্যবস্থা নিতে হবে।

পাশাপাশি জানানো হয়েছে, কোনও অসংবেদনশীল বা আপত্তিকর পোস্ট অভিযোগ পাওয়ার ২৪ ঘণ্টার মধ্যে মুছে ফলতে হবে। কোনও সরকারি নোটিশ বা আদালতের আদেশের জন্য সোশ্যাল মিডিয়া এবং ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির তাৎক্ষণিকভাবে প্রতিকারের প্রয়োজন হবে।

চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার (Chief Compliance Officer) কী?

নতুন তথ্য প্রযুক্তি (ইন্টারমিডিয়েট গাইডলাইনস অ্যান্ড ডিজিটাল মিডিয়া এথিক্স কোড) বিধি ২০২১ পরিষ্কারভাবে জানিয়েছে যে “এই ধারাটির উদ্দেশ্যে” “চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার” অর্থ হল, একটি মূল পরিচালনাকারী কর্মী বা কোনও গুরুত্বপূর্ণ সামাজিক মিডিয়া মধ্যস্থতাকারী। যিনি হবেন ভারতের বাসিন্দা।

যদি সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলি আইটি বিধি ২০২১ অনুসরণ না করে?

এখানেই আইটি বিধি ২০২১-এর ৭৯ ধারাটির উপধারা ১ কার্যকর হয়। নতুন আইটি বিধি ২০২১-এ এটি স্পষ্টভাবে উল্লেখ করা হয়েছে যে, “যখন কোনও মধ্যস্থতাকারী এই বিধিগুলি পালনে ব্যর্থ হন, তখন এই মধ্যস্থতাকারীর জন্য আইনের ধারা ৭৯- এর উপ-ধারা (১) এর বিধান প্রযোজ্য হবে না। তবে মধ্যস্থতাকারী, আইন ও ভারতীয় দণ্ডবিধি আপাতত কার্যকর যে কোনও আইনের অধীনে শাস্তি পাবে।” ৭৯ ধারাটি বিশেষত ডিজিটাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্ম যেমন, Facebook, Twitter, YouTube এবং WhatsApp-এর ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হবে।

এই পরিবর্তন কি আপনার WhatsApp or Facebook or Twitter ব্যবহারে পরিবর্তন আনতে পারে?

না, যে কোনও সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মের সঙ্গে আপনার নিয়মিত যোগাযোগের ক্ষেত্রে কোনও রকম পরিবর্তন হবে না, যতক্ষণ না পর্যন্ত আপনি নিয়মাবলী ভঙ্গ করে কোনও আপত্তিজনক এবং বিপদজনক পোস্ট করছেন।

Published by:Siddhartha Sarkar
First published: