Social Media: Facebook, twitter, Instagram ব্যবহারের সময়ে এবার মানতে হবে এই নিয়ম

photo source collected

কোনও অভিযোগ জমা পড়লে তা মান্যতা দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অ্যাকশন নিতে হবে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: ডিজিটাল মাধ্যমে প্রকাশিত সমস্ত বিষয় নিয়ন্ত্রণের জন্য সক্রিয় হয়েছে কেন্দ্র। বুধবার থেকে কার্যকর হয়েছে ভারতের নয়া তথ্য প্রযুক্তি আইন (IT Rules 2021)। গত ফেব্রুয়ারি মাসে নতুন তথ্য প্রযুক্তি নিয়মের একটি গাইডলাইনস প্রকাশ করা হয় কেন্দ্র সরকারের তরফে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে এই নতুন নীতি চালু করার জন্য তিন মাস সময় বেঁধে দিয়ে ডেডলাইন ধার্য করা হয় ২৬ মে। সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলিকে একজন চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার, একজন নোডাল কনট্যাক্ট পার্সন এবং সদা তদারকির জন্য একজন গ্রিভ্যান্স অফিসার নিয়োগ করতে হবে। ভারত সরকারের সঙ্গে সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটফর্মগুলির একজন আধিকারিককে সর্বদা সমন্বয় রেখে চলতে হবে। সরকারের বিভিন্ন নির্দেশ সম্পর্কে সংস্থার কাছে জানাতে হবে এবং ভাইস ভার্সা। প্রতি মাসে একটি কমপ্লায়েন্স রিপোর্ট পেশ করতে হবে। পাশাপাশি আবার কোনও বিতর্কিত কন্টেন্ট সম্পর্কে যাতে ইউজারেরা অভিযোগ জানাতে পারেন, তার জন্যও এই নির্দেশ। কোনও অভিযোগ জমা পড়লে তা মান্যতা দিয়ে নির্দিষ্ট সময়ের মধ্যে অ্যাকশন নিতে হবে।

আইটি আইনের ৭৯ ধারাটি কী?

তথ্যপ্রযুক্তি আইনের ৭৯ নম্বর ধারায় বলা হয়েছে 'আপাতত কার্যকর থাকা কোনও আইনে, যে কোনও কিছু অন্তর্ভুক্ত থাকা সত্ত্বেও কোনও মধ্যস্থতাকারী, কোনও তৃতীয় পক্ষের তথ্য, বা যোগাযোগ লিঙ্কের জন্য দায়ী থাকবে না। হতে পারে সেই লিঙ্ক বা তথ্য এমনিতেই পাওয়া গিয়েছে বা উপলব্ধ করা হয়েছে সেই মধ্যস্থতাকারীর দ্বারাই।' পাশাপাশি সেখানে আরও বলা হচ্ছে, 'মধ্যস্থতাকারীর কাজটি কোনও যোগাযোগ ব্যবস্থায় অ্যাক্সেস সরবরাহের মধ্যেই সীমাবদ্ধ যার উপর তৃতীয় পক্ষের দ্বারা সরবরাহিত তথ্য প্রেরণ বা অস্থায়ীভাবে সংরক্ষণ করা হয়েছে।'

কোনও সোশ্যাল মিডিয়া ফার্ম যদি ৭৯ ধারাটি না মানে তাহলে কী হবে?

এখনই রাতারাতি কিছুই বদলাবে না। দৈনন্দিন সোশ্যাল মিডিয়া ব্যবহারে কোনও পরিবর্তন হবে না। ইউজাররা কোনওরকম ঝামেলা ছাড়াই তাদের প্রোফাইলগুলি চালাতে পারবেন এবং পোস্ট করতে পারবেন। Twitter, Facebook এবং Instagram-এর মতো সোশ্যাল মিডিয়া ফেব্রুয়ারিতে ঘোষিত নতুন বিধি অনুসারে চিফ কমপ্লায়েন্স অফিসার এবং একটি নোডাল যোগাযোগ ব্যক্তিকে নিযুক্ত করেনি। তারা ইউজারদের অভিযোগ এবং অভিযোগের বিষয়ে মাসিক রিপোর্ট জমা দিতে ব্যর্থ হয়েছে। তাঁদেরকে আর একটু সময় দেওয়া হয়েছে। যদি এই নির্দেশ তারা না মানে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে কঠোর থেকে কঠোরতর পদক্ষেপ নেওয়া হতে পারে। এমনকী ব্যান করা পর্যন্ত হতে পারে তাদের। সংশ্লিষ্ট সংস্থার CEO-কে ৭ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের শাস্তি হতে পারে। এছাড়াও ওই প্ল্যাটফর্মের কর্মচারীদের কোনও দোষ না করা সত্ত্বেও দায়বদ্ধ মানা হতে পারে।

Published by:Piya Banerjee
First published: