• Home
  • »
  • News
  • »
  • explained
  • »
  • EXPLAINED : সন্তানকে কি কোভিড টিকা দেওয়া উচিত? টিকার সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী কী?

EXPLAINED : সন্তানকে কি কোভিড টিকা দেওয়া উচিত? টিকার সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী কী?

File photo

File photo

EXPLAINED : যখন কোভিড (Covid-19) বা অন্য কোনও রোগের বিরুদ্ধে টিকা নেওয়ার কথা আসে, তখন অনেক অভিভাবক দ্বিধায় থাকে।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আগামী বছরের ৩ জানুয়ারি থেকে ভারতে ১৫-১৮ বছর বয়সীদের টিকাকরণ (Coronavirus Vaccinations) শুরু হবে। এতদিন ১৮ বছরের বেশি বয়সিদের টিকাকরণ চলছিল দেশে। বেশ কয়েকটি পশ্চিমি এবং ইউরোপীয় দেশ এই বছরের শুরুতেই সংক্রামক রোগের জন্য বাচ্চাদের টিকা দেওয়া শুরু করেছে৷ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র (USA) এবং কানাডা (Canada) হল প্রথম দু'টি দেশ, যারা গত মে মাস থেকে ১২ বছর বা তার বেশি বয়সীদের টিকাকরণ শুরু করেছে। কেন্দ্রীয় সরকারের নতুন এই সিদ্ধান্তকে সবাই প্রায় স্বাগত জানিয়েছে। তবে, বাচ্চাদের টিকা দেওয়ার বিষয়ে অভিভাবকদের মধ্যে এখনও অনেক প্রশ্ন রয়েছে। এই প্রতিবেদনে আমরা কয়েকটি প্রশ্নের উত্তর দেওয়ার চেষ্টা করেছি।

কেন বাবা-মায়েদের দ্বিধা রয়েছে?

যখন কোভিড (Covid-19) বা অন্য কোনও রোগের বিরুদ্ধে টিকা নেওয়ার কথা আসে, তখন অনেক অভিভাবক দ্বিধায় থাকে। তারা তাদের বাচ্চাদের এমন রাসায়নিক পদার্থের সংস্পর্শে আসার ধারণায় বিশ্বাস করে না যার সম্পর্কে তাদের সীমিত জ্ঞান রয়েছে। তারা যুক্তি দেয় যে তাদের বাচ্চাদের বিভিন্ন ধরনের রাসায়নিকের সংস্পর্শে না এনে প্রাকৃতিকভাবে অনাক্রম্যতা তৈরি করা ভালো। এছাড়াও, অনেক অভিভাবক ধর্মীয় মতাদর্শের ভিত্তিতে, টিকার কার্যকারিতা এবং দীর্ঘমেয়াদী প্রভাবের ভয়ে সন্তানদের টিকাকরণ করায় না।

সন্তানের টিকাকরণ করানো কি উচিত?

বর্তমানে কোভিডের বিরুদ্ধে লড়াই করার জন্য বাচ্চাদের টিকা দেওয়া সর্বোত্তম উপায়। কোভিড টিকা (Covid Vaccine) নিলেই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে না। তবে ঝুঁকি অবশ্যই কমে, সংক্রমণ তীব্রতার সম্ভাবনা হ্রাস করে এবং হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকি হ্রাস করে। এছাড়াও করোনাভাইরাস ক্রমাগত নিজেকে পরিবর্তন করছে, যা আমাদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা এবং স্বাস্থ্যের জন্য একটা চ্যালেঞ্জ। টিকা ১০০ শতাংশ সুরক্ষা প্রদান না-ও করতে পারে, তবে এটি গুরুতর সংক্রমণের ঝুঁকি কমাতে পারে, হাসপাতালে ভর্তি এবং মৃত্যুর ঝুঁকি কমাতে পারে। ডেল্টা (Delta Variant) প্রজাতির কারণে সৃষ্ট করোনার দ্বিতীয় ঢেউ এটা প্রমাণ করেছে যে শিশুরা ভাইরাসের একমাত্র বাহক নয়, যেমনটি আগে বিশ্বাস করা হয়েছিল। শিশুদের মধ্যেও গুরুতর উপসর্গ দেখা দিতে পারে, তারাও সংক্রমণ পরবর্তী জটিলতায় ভুগতে পারে। এই বিষয়লি মাথায় রেখে সন্তানকে অবশ্যই টিকা দেবেন।

শিশুদের করোনাভাইরাস টিকাকরণের জন্য ১ জানুয়ারি থেকে শুরু হবে রেজিস্ট্রেশন প্রক্রিয়া। কো-উইন (CoWIN) প্ল্যাটফর্মে গিয়ে স্লট বুক করা যাবে। রেজিস্ট্রেশনের জন্য আধার কার্ড-সহ অন্যান্য সচিত্র পরিচয়পত্রের পাশাপাশি দশম শ্রেণির আইডি কার্ডও গৃহীত হবে।

টিকার সম্ভাব্য পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া কী হতে পারে?

বাচ্চাদের জন্য অনুমোদিত টিকাগুলির কার্যকারিতা এবং এর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া (Side Effects) কঠোরভাবে পরীক্ষা করা হয়েছে। তার পরেই, সাধারণ মানুষের ব্যবহারের জন্য ড্রাগস কন্ট্রোলার জেনারেল অফ ইন্ডিয়া (Drugs Controller General of India) দ্বারা অনুমোদিত হয়েছে। সুতরাং, এর কার্যকারিতা এবং এর সঙ্গে জড়িত জটিলতা সম্পর্কে চিন্তা করার দরকার নেই। ক্লিনিকাল ট্রায়াল থেকে জানা গিয়েছে যে টিকা গুরুতর পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া সৃষ্টি করে না। জ্বর, ইনজেকশন নেওয়ার জায়গায় ব্যথা, লাল হয়ে যাওয়া, তন্দ্রাচ্ছন্ন ভাব, শরীরে ব্যথা এবং ক্লান্তির মতো সামান্য অস্বস্তি হতে পারে, যা কয়েকদিনের মধ্যেই চলে যায়। টিকা নেওয়ার পরে এই পার্শ্ব প্রতিক্রিয়াগুলি দেখা দেওয়া আসলে এটির লক্ষণ যে বাচ্চার শরীর ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি করছে।

ভারতে বাচ্চাদের জন্য কোন দুই টিকা অনুমোদিত?

এখনও পর্যন্ত ডিজিসিআই (DCGI) দেশে শিশুদের জন্য দু'টি টিকার অনুমোদন করেছে। ভারত বায়োটেকের কোভ্যাক্সিন (Covaxin) টিকা গত সপ্তাহে ১২-১৮ বছর বয়সীদের উপর জরুরি ব্যবহারের জন্য অনুমোদন পেয়েছে। এর আগে অগাস্টে জাইডাস ক্যাডিলার (Zydus Cadila) তিন-ডোজের ডিএনএ টিকা প্রাপ্তবয়স্ক এবং ১২ বছরের বেশি বয়সীদের দেওয়ার জন্য় জরুরি অনুমোদন পেয়েছিল। রিপোর্ট অনুসারে, ৩ জানুয়ারি থেকে সম্ভবত কোভ্যাক্সিন দেওয়া হতে পারে।

শিশুরা কি গুরুতর ওমিক্রন সংক্রমণের ঝুঁকিতে রয়েছে?

বলা হয়, করোনাভাইরাস (Coronavirus) শিশুদের (Childrens) খুব একটা কাবু করতে পারে না। কারণে সংক্রমণ বিরোধী প্রতিরোধ ক্ষমতা (Immune Response) শিশুদের বেশি থাকে। বরং, ২০২০ সালের গোড়ার দিকে অতিমারী শুরু হওয়ার পর থেকেই থেকে প্রাপ্তবয়স্করা বেশি আক্রান্ত হয়েছে। গুরুতর পরিস্থিতিতে জ্বর, ক্লান্তি, কাশি এবং মাল্টিসিস্টেম ইনফ্ল্যামেটরি সিন্ড্রোমের (Multisystem Inflammatory Syndrome) মতো সাধারণ উপসর্গগুলি ছাড়া বাচ্চাদের মধ্যে হাসপাতালে ভর্তি অথবা মৃত্যুর কোনও উল্লেখযোগ্য ঘটনা ছিল না। তবে এখন নতুন ওমিক্রন (Omicron) প্রজাতি সামনে আসার পর বিশেষজ্ঞরা বলছে যে শিশুরা ভাইরাসে আক্রান্ত হওয়ার এবং গুরুতর উপসর্গের সম্মুখীন হওয়ার ঝুঁকিতে থাকতে পারে। কারণ, ১৮ বছরের কম বয়সী জনগোষ্ঠী এখনও টিকা পায়নি বেশিরভাগ দেশেই।

আরও পড়ুন - ৬০ বছরের ওপরে সতর্কতামূলক 'বুস্টার' ডোজ দেওয়ার ঘোষণা! ঠিক কারা কারা পাবেন এই ডোজ?

কোভিডের ওমিক্রন প্রজাতি কি প্রাপ্তবয়স্কদের চেয়ে শিশুদের বেশি প্রভাবিত করছে?

অনেকদিন ধরেই বিশেষজ্ঞ ও চিকিৎসকরা শিশুদের টিকা (Covid Vaccine) দেওয়ার তাগিদ দিয়ে আসছেন। বিশেষজ্ঞরা বলছেন যে কোভিড উপযুক্ত আচরণ অনুসরণ করা এবং টিকা দেওয়াই সামনে একমাত্র রাস্তা। সব বয়সীদের মধ্যেই গুরুতর কোভিড সংক্রমণ বাড়ছে, বিশেষ করে ৫ বছরের কম বয়সীদের মধ্যে। প্রাথমিকভাবে, শিশুরা নিজেরাই ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করতে সক্ষম বলে বিশ্বাস করা হয়েছিল। জটিলতার কোনও লক্ষণ ছিল না। এই কারণে তাদের টিকা দেওয়ার জন্য অগ্রাধিকার দেওয়া হয়নি। যাই হোক, সময় যত গড়িয়েছে ততই বাচ্চাদের মধ্যে কোভিড মামলার সংখ্যা বেড়েছে। নতুন প্রজাতিগুলির বিকাশে এই সংখ্যা ক্রমবর্ধমান। যদিও কোভিড টিকা নিলেই ভাইরাসের বিরুদ্ধে সম্পূর্ণ প্রতিরোধ ক্ষমতা গড়ে ওঠে না। তবে ঝুঁকি অবশ্যই কমে, সংক্রমণ তীব্রতার সম্ভাবনা হ্রাস করে এবং হাসপাতালে ভর্তির ঝুঁকি হ্রাস করে।

আরও পড়ুন- জরুরিকালীন পরিস্থিতিতে ব্যবহারের জন্য ছাড়পত্র অ্যান্টিভাইরাল পিল এবং দু’টি ভ্যাকসিনে

শিশুরা ঝুঁকিতে: সম্প্রতি বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার প্রধান বিজ্ঞানী সৌম্যা স্বামীনাথন বলেছেন যে কোভিডে সংক্রমিত হওয়ার মাত্র ৯০ দিন পরেই ওমিক্রনে সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা ডেল্টা প্রজাতির তুলনায় তিনগুণ বেশি। যার অর্থ পুনরায় সংক্রমণের ঝুঁকি আগের চেয়ে বেশি হতে পারে। উপরন্তু, তিনি হাইলাইট করেছেন যে টিকা না নেওয়া ব্যক্তিদের সংক্রমণের ঝুঁকি বেশি হতে পারে। তিনি বলেন, "খুব কম দেশই শিশুদের টিকা দিচ্ছে। শিশুরা এবং টিকা না নেওয়া ব্য়ক্তিরা বেশি সংক্রমণে আক্রান্ত হতে পারে। আমরা এখনও বাচ্চাদের উপর ওমিক্রন প্রজাতির প্রভাব সংক্রান্ত তথ্যের জন্য অপেক্ষা করছি। আমাদের টিকা দেওয়ার বিষয়ে একটি ব্যাপক এবং বিজ্ঞান-ভিত্তিক পদ্ধতি গ্রহণ করতে হবে। এটি সেই একই ভাইরাস, যার আমরা মোকাবিলা করছি।"

Published by:Swaralipi Dasgupta
First published: