• Home
  • »
  • News
  • »
  • explained
  • »
  • Explained: মিষ্টি খেলেই কি Diabetes রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে? এক ক্লিকেই ধারণা হবে পরিষ্কার

Explained: মিষ্টি খেলেই কি Diabetes রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে? এক ক্লিকেই ধারণা হবে পরিষ্কার

how diabates is caused - Photo- Representative

how diabates is caused - Photo- Representative

Explained: বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে অতিরিক্ত চিনি বা শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়ার জন্য মধুমেহ রোগ হয় না।

  • Share this:

#কলকাতা: বিভিন্ন রোগের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে মধুমেহ রোগে আক্রান্তের সংখ্যা। গোটা দেশ জুড়ে বহু মানুষ আক্রান্ত হয়েছেন। এমনকী কম বয়সের অনেকেই রয়েছেন আক্রান্তের তালিকায়। মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হলে শরীরের বিভিন্ন অঙ্গ-প্রতঙ্গের কার্যক্ষমতা নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। যা নিয়ে সব থেকে বেশি চিন্তিত থাকেন বিশেষজ্ঞরা। এবং তার সঙ্গে একাধিক রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা বেড়ে যায়। তাই মধুমেহ রোগ থেকে যতটা দূরে থাকা যায় ততই মঙ্গল।

এর পাশাপাশি মধুমেহ থেকে বাঁচতে বিভিন্ন নিয়ম মেনে চলেন অনেকে। ভাত বা শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়া সম্পূর্ণ বন্ধ করে দেন অনেকে। এর পাশাপাশি অনেকে আছেন যাঁরা সম্পূর্ণ মিষ্টি খাওয়া বন্ধ করে দেন। কিন্তু এগুলো খেলে কি মধুমেহ থেকে দূরে থাকা সম্ভব? জেনে নেওয়া যাক…

তবে বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে অতিরিক্ত চিনি বা শর্করা জাতীয় খাবার খাওয়ার জন্য মধুমেহ রোগ হয় না। এর সঙ্গে জড়িত রয়েছে আরও তিনটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। বিভিন্ন গবেষণায় প্রকাশ সারা দেশে প্রায় প্রায় ৭০ মিলিয়ন সাধারণ মানুষ ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হয়েছেন। এবং যদি অন্য দেশের তুলনায় দেখা যায় তাহলে ‘ডায়াবেটিস ক্যাপিটাল’ বলা যেতে পারে ভারতকে। বর্তমানে পরিস্থিতি এমন জায়গায় যে প্রতি পরিবারের একজন করে মধুমেহ রোগে আক্রান্ত রোগীর সন্ধান পাওয়া যাবে। কিন্তু অনেকের কাছে অজানা রয়েছে কী ভাবে মধুমেহ থেকে দূরে থাকা সম্ভব? এই প্রতিবেদনে ডায়াবেটিস (Diabetes) নিয়ে বিস্তারিত তথ্য রইল…

আরও পড়ুন - Ind vs NZ: টি টোয়েন্টি বিশ্বকাপের পরে ফের সিরিজ, দলে কোন কোন চমক থাকবে

অতিরিক্ত মিষ্টি খেলে কি ডায়াবেটিসে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে?

অতিরিক্ত শর্করাজাতীয় খাবার যেমন সোডা ওয়াটার বা প্রসেসড ফুড খেলে মধুমেহ রোগের সম্ভাবনা যে খুব বেড়ে যায় তা সম্পূর্ণ ভুল। এই ধরনের খাবার গ্রহণ করার ফলে ওবেসিটি বা স্থুলকায়তা বেড়ে যায়। আর স্থুলকায়তা বেড়ে গেলে মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভবনা থাকে। বলা যেতে পারে, প্রসেসড ফুড, সোডা ওয়াটার বা শর্করাজাতীয় পানীয় সরাসরি মধুমেহ রোগের জন্য দায়ী নয়। পাশাপাশি অনেকে ভাবেন, অতিরিক্ত মিষ্টি বা চিনি খেলে মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কিন্তু তা সঠিক নয়। চিনি এবং ডায়াবেটিসের মধ্যে সরাসরি কোনও সম্পর্ক নেই।

দ্বিতীয়ত, সব থেকে বেশি সংখ্যক মানুষ টাইপ ২ ডায়াবেটিসে (Type 2 Diabetes) আক্রান্ত হয়। এবং এক্ষেত্রে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা ইনসুলিন (Insulin) হরমোন। ইনসুলিন হরমোনের কম নিঃসারণ হওয়ার কারণে টাইপ ২ ডায়াবেটিস হওয়ার সম্ভাবনা থাকে। কারণ ইনসুলিনের অভাবে রক্তে শর্করার মাত্রা সঠিক থাকে না। যার ফলে মধুমেহ রোগ দেখা যায়। এবং হঠাৎ করে এই সমস্যা হয় না। দীর্ঘ দিন ধরে ইনসুলিন হরমোনের ক্ষরণের সমস্যা হলেই তবেই রক্তের শর্করার মাত্রা সমান থাকে না। এছাড়া অনেক ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে, কোনও পরিবারের সদস্যদের মধ্যে কেউ মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হয়ে থাকলে পরবর্তী প্রজন্মের মধ্যেও এই সমস্যা দেখা যায়। মূলত জিনগত কারণেও এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা থাকে।

আরও পড়ুন - Explained: চতুর্দেশীয় বৈঠকে জয়শঙ্কর: চিনের দাদাগিরি রুখতেই কি নতুন ‘Quad’ গড়ছে ভারত, আমেরিকা, আমিরশাহি ও ইজরায়েল?

মধুমেহ রোগে আক্রান্ত রোগীরা কি মিষ্টি খাবেন না?

অনেকের মধ্যে ভ্রান্ত ধারণা রয়েছে যাঁরা মধুমেহ রোগে আক্রান্ত তাঁরা মিষ্টি বা অতিরিক্ত শর্করা জাতীয় খাবার খেতে পারবেন না। কিন্তু তা সম্পূর্ণ ভুল। বিশেষজ্ঞদের বক্তব্য, এটা সম্পূর্ণ একটা ভ্রান্ত ধারণা। এই বিষয়ে তাঁদের পরামর্শ, সঠিক পরিকল্পনা করে মিষ্টিজাতীয় খাবার খেতে পারেন মধুমেহ রোগে আক্রান্তরা। তাঁরা জানিয়েছেন, হয় তো মধুমেহ রোগে আক্রান্ত কেউ এক টুকরো কেক বা মিষ্টি খেলেন তাহলে তাঁকে অন্য রিচ খাবার বা যে খাবারে শর্করা থাকে সেই খাবার বর্জন করতে হবে। যেমন, এক্ষেত্রে ভাত খাওয়ার পরিমাণ কমাতে হবে। অথবা অন্য যে শর্করাজাতীয় খাবার খাদ্যতালিকায় থাকে সেগুলি খাওয়া সাময়িক ভাবে বন্ধ রাখতে হবে। মিষ্টি বা অন্য শর্করা জাতীয় খাবার খেলে সেই শর্করা রক্তে মিশে শর্করার পরিমাণ বাড়িয়ে দেয়। তাই মিষ্টি বা কুকিজ জাতীয় কোনও খাবার খেলে বাকি খাবার নিয়ে সঠিক পরিকল্পনা করা উচিত। প্রয়োজনে কোনও ডায়াটেশিয়ানের পরামর্শ নেওয়া প্রয়োজন।

জেসটেশনাল ডায়াবেটিস হলে কি সন্তানেরও ডায়াবেটিসের সম্ভাবনা থাকে?

গর্ভধারণ অবস্থায় প্রায় ৯ শতাংশ মহিলা ইনসুলিন রেসিস্ট্যান্স থাকে এবং শরীরে জেসটেশনাল ডায়াবেটিস তৈরি হয়। কিন্তু এর ফলে যে সন্তানও মধুমেহ রোগে আক্রান্ত হবে এমনটা নয়। এর প্রতিকার সম্ভব। সঠিক সময়ে বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে পরামর্শ করলে এই সমস্যা থেকে মুক্তি লাভ সম্ভব।

তবে যদি কোনও মহিলার উচ্চ রক্তচাপ থাকে তাহলে সেই মহিলার সন্তানের ইনসুলিন ক্ষরণের পরিমাণ বাড়ে। এর ফলে ওই সন্তানের ওজন বেড়ে যেতে পারে। এছাড়াও ওবেসিটি, শ্বাস,কষ্ট, এবং রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা বেড়ে যেতে পারে। যার ফলে ওই সন্তান সারা জীবন মধুমেহ রোগে আক্রান্ত থাকতে পারে।

আরও পড়ুন - টাকার বিনিময়ে Cricket দলে সিলেকশন, বাংলার প্রাক্তন অনুর্ধ্ব ১৯ ক্রিকেটার গ্রেফতার, নজরে IPL প্লেয়ার

মধুমেহ রোগের কারণে কি মানসিক স্বাস্থ্যে প্রভাব ফেলে?

বিভিন্ন গবেষণায় দেখা গিয়েছে যে যাঁরা মধুমেহ রোগে আক্রান্ত তাঁরা অন্যদের তুলনায় একটু ভিন্ন হন। অল্পতেই রেগে যাওয়ার প্রবণতা দেখা দেয় তাঁদের মধ্যে। শুধু তাই নয়, কোনও সাধারণ কারণে অবসাদগ্রস্ত দেখায় তাঁদের। এছাড়াও তাঁদের মধ্যে দুশ্চিন্তার প্রবণতা থাকে। সঠিক ভাবে ঘুমও হয় না বলে বিভিন্ন রিপোর্টে দেখা গিয়েছে।

এই সমস্যা থেকে মুক্তি পায়া যায় কী ভাবে?

মধুমেহ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির সঠিক চিকিৎসার পাশাপাশি প্রয়োজন সঠিক আহার এবং শরীরচর্চা। এই তিনটি উপায়ে মধুমেহ রোগে আক্রান্ত রোগীরা সুস্থ থাকতে পারেন।

কী কী খাওয়া প্রয়োজন?

একটি মধুমেহ রোগে আক্রান্ত ব্যক্তির উচিত কোনও ডায়াটেশিয়ানের পরামর্শে খাবার গ্রহণ করা। কারণ, সেই ব্যক্তির কোন খাবার খাওয়া প্রয়োজন বা কোন খাবার খাওয়া উচিত নয় তা একমাত্র সঠিক ভাবে বলতে পারবেন একজন ডায়াটেশিয়ান। খাবারে সব পুষ্টিগুণ এবং সব কিছুর মাত্রা সমান থাকা প্রয়োজন। এর সঙ্গে শাকসবজি এবং ফল খাওয়ার বিষয়ে জোর দেন বিশেষজ্ঞরা।

এর সঙ্গে শরীরচর্চা করার পরামর্শ দেন বিশেষজ্ঞরা। প্রতি দিন নিয়ম করে ব্যায়াম করতে হবে। পাশাপাশি হাঁটাহাঁটি এবং দৌড়ানোর অভ্যাস করতে হবে। চিকিৎসদের পরামর্শ, এই সব করার পাশাপাশি একজন মধুমেহ রোগে আক্রান্ত রোগীর উচিত দৈনিক রক্তে শর্করার মাত্রা পর্যবেক্ষণে রাখা এবং রক্তচাপ পর্যবেক্ষণে রাখা। এই বিষয়গুলি মাথায় রাখলে মধুমেহ রোগ থেকে দূরে থাকা সম্ভব।

Published by:Debalina Datta
First published: