Home /News /explained /
Arif Mohammad Khan: Explained: নেহরুর ধর্মনিরপেক্ষতার কী প্রভাব পড়েছে দেশে? মুখ খুললেন আরিফ মহম্মদ খান

Arif Mohammad Khan: Explained: নেহরুর ধর্মনিরপেক্ষতার কী প্রভাব পড়েছে দেশে? মুখ খুললেন আরিফ মহম্মদ খান

মুখ খুললেন আরিফ মহম্মদ খান

মুখ খুললেন আরিফ মহম্মদ খান

Arif Mohammad Khan: স্বাধীনতা-পরবর্তী ভারতে সংখ্যালঘু-সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজনীতি করা গুরুতর অপরাধ বলে মনে করেন তিনি।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: আটের দশকের গোড়া থেকে কেরলের বর্তমান রাজ্যপাল আরিফ মহম্মদ খান (Arif Mohammad Khan) ধারাবাহিকভাবে দেশের মৌলবাদী শক্তির বিরুদ্ধে লড়াই করে চলেছেন। স্বাধীনতা-পরবর্তী ভারতে সংখ্যালঘু-সংখ্যাগরিষ্ঠ রাজনীতি করা গুরুতর অপরাধ বলে মনে করেন তিনি।

প্রশ্ন: আপনি প্রায়ই মৌলবাদীদের দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন, এক সুন্নি নেতা আপনাকে ইসলাম ত্যাগ করতে বলেছিলেন। আপনি কীভাবে এই ঘটনা ব্যাখ্যা করবেন? উত্তর: আমি আগেও মন্দিরে গিয়েছি। আটের দশকের প্রথম দিকে আমি কয়েকটি মন্দির নির্মাণে অবদানও রেখেছিলাম। তখন আমাকে ফতোয়া দেওয়া হয়েছিল। ১৯৮৬ সালে শাহ বানো মামলার সময় আমি ধারাবাহিক ফতোয়া পেয়েছি। আমার কাছে ঈশ্বর সর্বব্যাপী এবং তিনি মন্দির বা মসজিদের মধ্যে সীমাবদ্ধ নন।

আরও পড়ুন: তবে কি 'কাকা ভাইপো'র বিবাদ মিটল? আশায় বুক বাঁধছে তৃণমূল!

প্রশ্ন: একজন মৌলবির আপনাকে ঘৃণা করা স্বাভাবিক। কিন্তু তথাকথিত উদারপন্থীরাও আপনাকে টার্গেট করেছে, যার মধ্যে আপনার নিজের ধর্মের লোকজনও রয়েছেন। কী বলবেন? উত্তর: উদারপন্থী হিন্দুরা (Hindu Liberals) আমাকে টার্গেট করেন কারণ তাণদের ধর্মনিরপেক্ষতার কল্পিত ধারণা তাঁদের রাজনৈতিকভাবে সঠিক হতে উৎসাহিত করে। আর মুসলিম উদারপন্থীদের (Muslim Liberals) সংস্কৃতি এবং ধর্মের মধ্যে পার্থক্য করতে হবে।

আরও পড়ুন: কর্নাটকের সাগরে এ কোন জন্তু! মুহূর্তে করতে পারে ফালাফালা, জালে উঠতেই তোলপাড়

প্রশ্ন: ধর্মনিরপেক্ষতা নিয়ে আপনার দর্শন কী? উত্তর: ধর্মনিরপেক্ষতার (Secularism) ব্যাখ্যায় আমি প্রকাশ্যে আপত্তি জানিয়েছি। এটি হিন্দু ও মুসলমানদের মধ্যে অবিশ্বাসের জন্ম দেয়। ব্রিটিশরা একটি সম্প্রদায়কে অন্য সম্প্রদায়ের বিরুদ্ধে লড়াই করানোর জন্য এই কার্ড খেলেছিল। এটি সমান নাগরিকত্বের ধারণা, গর্ববোধ কেড়ে নেয়। নেহরুর ধর্মনিরপেক্ষতার সবচেয়ে মৌলিক মূর্খতা হল যে এটি মুসলমানদের সমান নয়, বরং হিন্দুদের স্থায়ী সংখ্যালঘু হিসেবে স্থান দিয়েছে।

প্রশ্ন: আপনি হিজাব বিতর্ককে ষড়যন্ত্র বলেছেন, কেন? উত্তর: ঐতিহ্যগতভাবে হিজাব ইসলামের অবিচ্ছেদ্য অংশ নয়। এমন অনেক উদাহরণ রয়েছে যে নবীর সময়ে মহিলারা হিজাব পরতেন না।

আরও পড়ুন: দরজায় কড়া নাড়ছে 'বিপদ', বড় সিদ্ধান্ত নিলেন অনুব্রত মণ্ডল!

প্রশ্ন: তাহলে, আপনি কি মনে করেন দেশে অভিন্ন সিভিল কোড আনার সময় এসেছে? উত্তর: আসলে ইউনিফর্ম সিভিল কোড (Uniform Civil Code) শব্দটি সঠিক শব্দ নয়। সঠিক শব্দ কমন সিভিল কোড (Common Civil Code)। আমাদের বুঝতে হবে যে কমন সিভিল কোড একটি সাংবিধানিক বাধ্যবাধকতা, যা আমাদের গণপরিষদ দ্বারা নির্ধারিত হয়। একমাত্র বিতর্কের বিষয় হল এটির সময়, এটি এখন করা উচিত, না কি আমাদের আরও কিছু সময়ের জন্য অপেক্ষা করা উচিত, সেটাই বিবেচ্য!

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: Hijab, India, Jawaharlal Nehru

পরবর্তী খবর