Home /News /business /
Retirement Planning: তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করলে বেশি লাভ হয় কেন? কোথায় বিনিয়োগ করলে বেশি লাভ হবে?

Retirement Planning: তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করলে বেশি লাভ হয় কেন? কোথায় বিনিয়োগ করলে বেশি লাভ হবে?

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

বাজারের বড় বড় বিশেষজ্ঞরাও বিনিয়োগকারীদের তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: কেউ যদি চান যে অবসরগ্রহণের সময় তাঁর অর্থের সংকট না হয়, তাহলে তাঁকে তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ করা শুরু করতে হবে। এটাই হল সর্বোত্তম উপায়। বাজারের বড় বড় বিশেষজ্ঞরাও বিনিয়োগকারীদের তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করার পরামর্শ দিয়ে থাকেন। এছাড়া দীর্ঘ সময়ের জন্য বিনিয়োগ করার পরামর্শও দেন বিশেষজ্ঞরা।

তাড়াতাড়ি এবং দীর্ঘ সময়ের জন্য বিনিয়োগ করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল চক্রবৃদ্ধি। চক্রবৃদ্ধির ফলে বিনিয়োগ বেড়ে যেতে পারে বহুগুণ। ধরে নেওয়া যাক, যে ৩ জন ব্যক্তি আলাদা আলাদা বয়সে বিনিয়োগ করা শুরু করেছেন। প্রথম ব্যক্তি ২৫ বছর বয়সে, দ্বিতীয় ব্যক্তি ৩৫ বছর বয়সে এবং তৃতীয় ব্যক্তি ৪০ বছর বয়সে। তাঁদের বিনিয়োগের মেয়াদ ৬০ বছর বয়স পর্যন্ত। এবার ধরে নেওয়া যাক যে তিনজন ব্যক্তি মাসিক বিনিয়োগ করেছে ৫০০০ টাকা এবং তাঁরা বার্ষিক রিটার্ন পেয়েছে ৮ শতাংশ৷

কার কত লাভ হয়েছে?

২৫ বছর বয়সি ব্যক্তি ৩৫ বছর ধরে মোট ২১ লাখ টাকা বিনিয়োগের করেছেন। বিনিয়োগের উপর বার্ষিক রিটার্ন ছিল ৮ শতাংশ। যার ফলে ২১ লাখ টাকা বেড়ে হয়েছে ১.২ কোটি টাকা, অর্থাৎ ৯৪ লক্ষ টাকার থেকে বেশি লাভ হল প্রথম ব্যক্তির। একইভাবে ৩৫ বছর বয়সি ব্যক্তি ২৫ বছর ধরে ১৫ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। ১৫ লাখ টাকা বেড়ে হয়েছে ৪৮ লাখ টাকা, অর্থাৎ ৩৩ লাখ টাকা লাভ হল দ্বিতীয় ব্যক্তির। অন্য দিকে, ৪০ বছর বয়সি ব্যক্তি ২০ বছর ধরে ১২ লাখ টাকা বিনিয়োগ করেছেন। ১২ লাখ টাকা বেড়ে হয়েছে ৩০ লাখ টাকা, অর্থাৎ ১৮ লাখ টাকা লাভ হল তৃতীয় ব্যক্তির। যদি শতাংশের আকারে দেখা হয়, তাহলে প্রথম ব্যক্তি রির্টান পেয়েছেন ৪৫০ শতাংশ, দ্বিতীয় ব্যক্তি ২২০ শতাংশ এবং তৃতীয় ব্যক্তি ১৫০ শতাংশ রিটার্ন পেয়েছেন।

আরও পড়ুন: চাহিদা আকাশছোঁয়া, কম বিনিয়োগেই লাভবান হতে শুরু করতে পারেন এই ব্যবসা!

কম্পাউন্ডিং কী?

কম্পাউন্ডিং বা চক্রবৃদ্ধি হল বিনিয়োগের উপর যে টাকা উপার্জন হচ্ছে তা পুনরায় বিনিয়োগ করা। এর ফলে মূলধন থেকে সুদ পাওয়ার পাশাপাশি সুদের উপরও সুদ পাওয়া সম্ভব। চক্রবৃদ্ধির সঙ্গে বিনিয়োগ দ্রুত বাড়ানো যেতে পারে। এর জন্য, মিউচুয়াল ফান্ডে SIP-র মাধ্যমে বিনিয়োগ করা হল একটি দুর্দান্ত বিকল্প।

কোথায় বিনিয়োগ করলে ভাল হয়?

ইক্যুইটি এবং ডেট মিউচুয়াল ফান্ড, সরকারি বন্ড, পিপিএফ, ফিক্সড ডিপোজিট, জাতীয় পেনশন সিস্টেমে বিনিয়োগ করা যেতে পারে। মিউচুয়াল ফান্ডে ৮-১০ শতাংশ বার্ষিক রিটার্ন পাওয়া যায়, NPS-এ বার্ষিক রিটার্ন পাওয়া যায় ৬-৮ শতাংশ এবং PPF-এ ৭.১ শতাংশ বার্ষিক রিটার্ন পাওয়া যায়৷ অন্য দিকে, সরকারি বন্ডে ৭- ৮ শতাংশ বার্ষিক রিটার্ন পাওয়া যেতে পারে। এফডি-তে বিভিন্ন ব্যাঙ্ক বিভিন্ন সুদ অফার করে, তবে সাধারণত বার্ষিক রিটার্ন পাওয়া যায় ৫.২৫ শতাংশ থেকে ৭.২৫ শতাংশের মধ্যে।

সময়ের আগে অবসর

তরুণদের মধ্যে হালে দেখা যাচ্ছে সময়ের আগে অবসর নেওয়া ইচ্ছা এবং এখন দেশের একটি আলোচনার বিষয়ও হয়ে উঠেছে এটি। ২৩-২৪ বছর বয়সে যাঁরা চাকরি করা শুরু করেছেন, তাঁরা অবসর নিতে চান ৪৫-৫০ বছরের মধ্যে। তাড়াতাড়ি বিনিয়োগ শুরু করার কারণে তাঁরা তাঁদের এই ইচ্ছাও পূরণ করতে পারেন। কম্পাউন্ডিংয়ের সাহায্যে, ১৫-২০ বছরের মধ্যে তাঁরা অনেক অর্থ সংগ্রহ করে নিতে পারেন। এর ফলে সময়ের আগে অবসর নিলে তাঁদের অর্থের অভাব হবে না।

First published:

Tags: Investment

পরবর্তী খবর