Home /News /business /
ATM Card: এটিএম কার্ড থাকলেই গ্রাহকরা পেয়ে যাবেন ৫ লক্ষ টাকার বিমা! দাবি করার বিস্তারিত উপায় জানুন

ATM Card: এটিএম কার্ড থাকলেই গ্রাহকরা পেয়ে যাবেন ৫ লক্ষ টাকার বিমা! দাবি করার বিস্তারিত উপায় জানুন

প্রতীকী ছবি ৷

প্রতীকী ছবি ৷

ATM Card: গ্রাহকের কাছে যদি কোনও সরকারি কিংবা বেসরকারি ব্যাঙ্কের এটিএম কার্ড থাকে, তবে আপনা-আপনিই তিনি দুর্ঘটনা বিমা পেয়ে যাবেন।

  • Share this:

    #নয়াদিল্লি: আর্থিক লেনদেনের পাশাপাশি আমাদের জীবনকেও অনেকটা সহজ করে তুলেছে এটিএম কার্ড (ATM Card)। আসলে এর মাধ্যমে আমরা যে কোনও জায়গায় টাকা তুলতে তো পারিই, সেই সঙ্গে দোকানে কিংবা শপিং মলে সোয়াইপ করে কেনাকাটা করতে পারবেন। তবে শুধু কি টাকা তোলা কিংবা কেনাকাটাই করা যায় এর মাধ্যমে? আসলে এটিএম কার্ডে কেনা কিংবা টাকা তোলা ছাড়াও বেশ কিছু সুবিধা পাওয়া যায়। যা বেশির ভাগ গ্রাহকই জানেন না। আবার অনেকেই জানেন না যে, এটিএম কার্ডধারীর মৃত্যু হলে কিংবা দুর্ঘটনা ঘটলে এটি ওই এটিএম কার্ডধারী ব্যক্তির উপর নির্ভরশীল মানুষের সহায় হতে বা কাজে লাগতে পারে।

    এটিএম কার্ডের মাধ্যমে বিনামূল্যে মিলবে দুর্ঘটনা বিমা:

    আসলে এটিএম কার্ডের মাধ্যমে গ্রাহকরা বিনামূল্যে দুর্ঘটনা বিমা (Insurance) পেয়ে যাবেন। গ্রাহকের কাছে যদি কোনও সরকারি কিংবা বেসরকারি ব্যাঙ্কের এটিএম কার্ড থাকে, তবে আপনা-আপনিই তিনি দুর্ঘটনা বিমা পেয়ে যাবেন। শুধু তা-ই নয়, এই বিমা প্রায় ২৫ হাজার টাকা থেকে ৫ লক্ষ টাকা পর্যন্ত হতে পারে। অথচ এই বিষয়ে কিছুই জানা থাকে না বলে বেশির ভাগ গ্রাহকই এই বিমা ক্লেম করতে পারেন না।

    আলাদা-আলাদা কার্ডের ভিন্ন-ভিন্ন পরিমাণ:

    এটিএম কার্ডের ক্যাটেগরি অনুযায়ী বিমার পরিমাণ ধার্য করা হয়। ক্লাসিক কার্ডে এক লক্ষ টাকা, প্ল্যাটিনাম কার্ডে ২ লক্ষ টাকা, সাধারণ মাস্টার কার্ডে ৫০ হাজার টাকা, প্ল্যাটিনাম মাস্টার কার্ডে ৫ লক্ষ টাকা এবং ভিসা কার্ডে দেড় থেকে দুই লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিমা কভারেজ পাওয়া যায়। এমনকী প্রধানমন্ত্রী জন-ধন অ্যাকাউন্টের উপর প্রাপ্ত রুপে (RuPay) কার্ডের সঙ্গেও গ্রাহকরা ১ থেকে ২ লক্ষ টাকা পর্যন্ত বিমা কভারেজ পেতে পারেন।

    আরও পড়ুন:  ITR: বাড়ি ভাড়া গুণতে হয় কিন্তু মেলে না HRA! দেখে নিন কী ভাবে পাবেন আইটিআর জমায় আয়করে ছাড়!

    দুর্ঘটনা বিমার ক্লেম কীভাবে পাওয়া যেতে পারে?

    ধরা যাক, এটিএম কার্ডধারীর কোনও দুর্ঘটনায় মৃত্যু হয়েছে। সে-ক্ষেত্রে সেই কার্ডধারীর নমিনিকে ব্যাঙ্কের সেই শাখায় যেতে হবে, যেখানে ওই কার্ডধারী ব্যক্তির অ্যাকাউন্ট ছিল। ব্যাঙ্কের ওই শাখায় গিয়েই ক্ষতিপূরণের জন্য আবেদন জমা দিতে হবে। সংশ্লিষ্ট ব্যাঙ্কে প্রয়োজনীয় নথিপত্র জমা দিলে তবেই নমিনি বিমা ক্লেম পেয়ে যাবেন।

    আরও পড়ুন: 7th Pay Commission: DA Hike সংক্রান্ত বিষয়ে কেন্দ্রীয় সরকারি কর্মীদের জন্য বিরাট খুশির খবর! বেতন বৃদ্ধির বিস্তারিত তথ্য

    সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, ধরা যাক ব্যাঙ্কগুলির এটিএম কার্ড ব্যবহার করার ৪৫ দিনের মধ্যেই মৃত্যু বা দুর্ঘটনা ঘটল গ্রাহকের। সে-ক্ষেত্রে তাঁর উপর নির্ভরশীল মানুষ এই বিমা পলিসির অধীনে ক্ষতিপূরণ ক্লেম করতে পারেন৷

    First published:

    Tags: ATM Card, Business

    পরবর্তী খবর