Home /News /west-midnapore /
Paschim Medinipur: 'সবুজের অঙ্গীকার'! মেদিনীপুরে অরণ্য সপ্তাহে রোপন ২০ লক্ষ গাছের চারা

Paschim Medinipur: 'সবুজের অঙ্গীকার'! মেদিনীপুরে অরণ্য সপ্তাহে রোপন ২০ লক্ষ গাছের চারা

\"গাছের সবুজটুকু শরীরে দরকার/ আরােগ্যের জন্যে ওই সবুজের ভীষণ দরকার....চোখ তাে সবুজ চায়/ দেহ চায় সবুজ বাগান/ গাছ আনো, বাগানে বসাও/ আমি দেখি।\"

  • Share this:

    #পশ্চিম মেদিনীপুর : \"গাছের সবুজটুকু শরীরে দরকার/ আরােগ্যের জন্যে ওই সবুজের ভীষণ দরকার....চোখ তাে সবুজ চায়/ দেহ চায় সবুজ বাগান/ গাছ আনো, বাগানে বসাও/ আমি দেখি।\" কবি শক্তি চট্টোপাধ্যায় এই 'সবুজ'-ই দেখতে চেয়েছিলেন শহুরে জীবনের 'হতাশা' দূরে সরিয়ে। বিশ্ব উষ্ণায়নের ভয়াবহতা যখন এই সভ্যতাকে আষ্টেপৃষ্ঠে জড়িয়ে ফেলেছে, হু হু করে যখন বেড়ে চলেছে কার্বন-ডাই-অক্সাইড, হিমালয়ের বরফ যখন বিপজ্জনক হারে গলতে শুরু করেছে, ঠিক সেই সময় সবুজের এই 'অঙ্গীকার' করা ছাড়া বোধহয় আর উপায় নেই! আসন্ন 'অরণ্য সপ্তাহ' (১৪ থেকে ২০ জুলাই) বা বন মহোৎসব উপলক্ষে মেদিনীপুর বনবিভাগ তাই সবুজায়নের শপথ নিয়েছে। চারিপাশ 'সবুজে সুবজ' করে তোলার অঙ্গীকার নিয়েছে বনদপ্তর, আর এগিয়ে আসার বার্তা দেওয়া হয়েছে সাধারণ মানুষের উদ্দেশ্যে। কারণ, উত্তপ্ত এই পৃথিবীকে পুনরায় সবুজ-শীতল করে তুলতে হলে, হাতে হাত রেখে সবুজের শপথ নিতে হবে সকলকেই।

    প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, আজ ১৪ থেকে ২০ জুলাই সারা রাজ্য জুড়ে পালিত হবে, অরণ্য সপ্তাহ বা বন মহোৎসব। মেদিনীপুর বনবিভাগের পক্ষ থেকেও পালিত হবে এই বন মহোৎসব। আর, সেই উপলক্ষেই জেলা জুড়ে প্রায় ২০ লক্ষ চারাগাছ রোপন করার উদ্যোগ নিল রাজ্য বনদফতর বলে জানিয়েছেন বনাধিকারিকরা। আজ বৃহস্পতিবার থেকেই সপ্তাহ জুড়ে সাধারণ মানুষের হাতে সম্পূর্ণ বিনামূল্যে ৫-টি করে চারাগাছ, যেকোনও ক্লাব, এনজিও, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের হাতে ১০০-টি চারাগাছ এবং বিধায়কদের হাতে ১০০০-টি চারাগাছ তুলে দেওয়ার পরিকল্পনা নেওয়া হয়েছে মেদিনীপুর বনবিভাগের পক্ষ থেকে।

    আরও পড়ুনঃ কাদায় আটকে রোগীর গাড়ি! বিপাকে পরিজনেরা

    ইতিমধ্যে, মেদিনীপুর, ভাদুতলা সহ বিভিন্ন বনাঞ্চল (রেঞ্জে) সেই চারাগাছ তৈরীর কাজ প্রায় শেষ এমনটাই জানিয়েছেন বনাঞ্চল আধিকারিক। এ প্রসঙ্গে এও উল্লেখ্য যে, সম্প্রতি (২৭ জুন) রাজ্যের বনমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক মেদিনীপুর শহরে এসে ঘোষণা করে গেছেন যে, অবৈধভাবে গাছ কাটলেই এবার থেকে কড়া শাস্তির মুখে পড়তে হবে প্রত্যেককেই।

    আরও পড়ুনঃ  আর প্যাসেঞ্জার নয়! এক্সপ্রেস হিসেবে ছুটবে খড়্গপুর-হাতিয়া-খড়্গপুর ট্রেনটি

    আর, এই অবৈধ গাছ কাটা রুখতে খুব তাড়াতাড়ি বিভিন্ন জেলার জন্য পৃথক পৃথক টোল-ফ্রি নম্বর এবং হোয়াটসঅ্যাপ নম্বর দেওয়া হবে। যেকোনও সাধারণ মানুষ গাছ কাটার বা গাছ পাচারের খবর দিয়ে পুরস্কৃত হতে পারবেন। তাঁর মতে, \"আগামী ৫-৭ বছরের মধ্যেই মেদিনীপুরের মতো সাধারণ জায়গাতে সর্বোচ্চ উষ্ণতা ৫০ ডিগ্রি ছুঁয়ে ফেলতে পারে। তাই, প্রয়োজন শুধু বৃক্ষ রোপন।\"

    Partha Mukherjee
    Published by:Soumabrata Ghosh
    First published:

    Tags: Paschim medinipur

    পরবর্তী খবর