Home /News /technology /
Online Banking Safety Hacks: ব্যাঙ্ক থেকে হঠাৎ গায়েব টাকা! কোন কোন কৌশলে হতে পারে প্রতারণা, সতর্ক থাকবেন কীভাবে ?

Online Banking Safety Hacks: ব্যাঙ্ক থেকে হঠাৎ গায়েব টাকা! কোন কোন কৌশলে হতে পারে প্রতারণা, সতর্ক থাকবেন কীভাবে ?

How do these online banking frauds happen in India and how to prevent it

How do these online banking frauds happen in India and how to prevent it

How To Stay Protected from Rising Online Banking Frauds: সাইবার প্রতারণার ফাঁদ এড়াতে গ্রাহকদের জন্য কিছু নির্দেশিকাও জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক

  • Share this:

Online Banking Safety Hacks: গত দু’দশকে ক্রমশ বেড়েছে ডিজিটাল নির্ভরতা (Digitization)। আর তারই সুযোগ নিয়ে ক্রমশ মাথাচাড়া দিয়েছে অপরাধ, মূলত সাইবার অপরাধ। সাইবার অপরাধীরা (cybercriminals) একযোগে নানা ধরনের অনলাইন অপরাধে সামিল হচ্ছে। তার মধ্যে রয়েছে তথ্য জালিয়াতি, চুরি, হ্যাকিং। ব্যাঙ্কিংয়ের মতো গুরুত্বপূর্ণ ক্ষেত্রও এ ধরনের অপরাধীদের আওতার বাইরে থাকতে পারছে না।

বেআইনি লেনদেন করতে সাইবার অপরাধীরা (cybercriminals) বেছে নিচ্ছে নানা পন্থা। তাদের হানাদারি থেকে রেহাই পায় না অনলাইন ব্যাঙ্কিং সার্ভিস (online banking scams), ক্রেডিট/ডেবিট/ATM কার্ড, নানা ধরনের পেমেন্ট পোর্টাল-সহ বিভিন্ন রকম ব্যাঙ্কিং ক্ষেত্র। গত কয়েক বছর পর্যবেক্ষণের পর নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা দেখেছেন যে, সাইবার অপরাধীরা ক্রমশ আধুনিক হয়ে উঠছে। নিত্য নতুন পদ্ধতি ব্যবহার করে তারা হানাদারি চালাচ্ছে আর তাতেই ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে অপরাধ রুখে দেওয়ার কাজ।

যে সব পদ্ধতিতে জালিয়াতি হয় (most common forms of banking fraud in India are)?

১. ভিশিং: কোনও ব্যাঙ্ক বা নন ব্যাঙ্ক ই ওয়ালেট সংস্থা এমনকী টেলিকম পরিষেবা প্রদানকারী সংস্থার নাম করে গ্রাহককে ফোন করা হয়। তারপর KYC আপডেট, অ্যাকাউন্ট/সিম-কার্ড আনব্লক করা, ডেবিট করা পরিমাণ ক্রেডিট করা ইত্যাদি নানা অজুহাতে গ্রাহকদের গোপনীয় বিশদ তথ্য জানাতে বাধ্য করা হয়।

২. ফিশিং- ব্যাঙ্ক অথবা ই ওয়ালেট সংস্থার মতো করে ছদ্ম ইমেল বা এসএমএস পাঠিয়ে গ্রাহকদের প্রতারিত করা হয়। সেখানে এমন কিছু লিঙ্ক শেয়ার করা থাকে যাতে ক্লিক করলেই গ্রাহকের গোপন তথ্য ফাঁস হয়ে যায়।

আরও পড়ুন - Discord Slow Mode: গ্রুপ চ্যাটে তুমুল ঝগড়া, স্লো মোড অন করলেই সব ঠান্ডা

৩. রিমোট অ্যাক্সেস: কোনও গ্রাহককে তাঁর মোবাইল ফোন বা কম্পিউটারে একটি অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড করার জন্য প্রলুব্ধ করা হয়। ওই বিশেষ অ্যাপ্লিকেশন ডাউনলোড হলেই ফোন বা কম্পিউটারে থাকা সমস্ত তথ্য ফাঁস হয়ে যেতে পারে সাইবার অপরাধীদের কাছে।

৪. টাকা পাওয়ার জন্য 'আপনার UPI পিন লিখুন'— এমন বার্তা দিয়েও প্রলুব্ধ করা হয় গ্রাহকদের।

৫. ওয়েব পেজ, সার্চ ইঞ্জিনে রাষ্ট্রায়ত্ত ব্যাঙ্কের ভুল নম্বর দিয়েও প্রতারণা করা হয় খুব সহজে।

বাঁচার উপায় (Prevention):

শুধু মাত্র কোনও ব্যক্তি যে এ ধরনের হানাদারির শিকার হচ্ছেন তা নয়। যে কোনও রকম সংস্থা বা প্রতিষ্ঠানেও এ ধরনের হামলা হতে পারে। আর ক্রমশই এ সব অপরাধের ডালপালা বিস্তৃত হচ্ছে।

আরও পড়ুন - Google Darker Mode: এ বার গুগল হবে আরও কালো, ডার্ক মোড নিয়ে আসছে নতুন আপডেট!

RBI তার সর্বশেষ নির্দেশিকাতে উল্লেখ করেছে যে, প্রতারকরা গ্রাহকের ID, লগ ইন পাসওয়ার্ড, OTP, ডেবিট বা ক্রেডিট কার্ডের বিশদ যেমন পিন, সিভিভি, মেয়াদ শেষ হওয়ার তারিখ এবং অন্যান্য ব্যক্তিগত তথ্য-সহ গোপনীয় বিবরণ পাওয়ার চেষ্টা করে।

RBI-এর অনুরোধ- কোনও রকম ডিজিটাল (অনলাইন/মোবাইল) ব্যাঙ্কিং/পেমেন্ট লেনদেন করার সময় সমস্ত রকম সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

সাইবার প্রতারণার ফাঁদ এড়াতে গ্রাহকদের জন্য কিছু নির্দেশিকাও জারি করেছে কেন্দ্রীয় ব্যাঙ্ক। RBI গ্রাহকদের লগইন আইডি, পাসওয়ার্ড, কার্ডের বিশদ এবং অন্যান্য তথ্য-সহ অ্যাকাউন্টের তথ্য কোনও ব্যাঙ্ক আধিকারিকের কাছেও জানাতে নিষেধ করেছে।

Published by:Ananya Chakraborty
First published:

Tags: Bank Account, Banking Frauds, Hacking, Online Scams

পরবর্তী খবর