Home /News /sports /
Virat Kohli: ইঙ্গিত ছিল ১ মাস আগেই, বিরাটের অধিনায়কত্ব ত্যাগে যে কারণ উঠে আসছে...

Virat Kohli: ইঙ্গিত ছিল ১ মাস আগেই, বিরাটের অধিনায়কত্ব ত্যাগে যে কারণ উঠে আসছে...

সরে গেলেন বিরাট

সরে গেলেন বিরাট

Virat Kohli: নিউজ 18 বাংলা-র খবরে সিলমোহর। ভারতীয় টেস্ট দলের নেতৃত্ব থেকে যে বিরাট কোহলি সরে যাবেন তার ইঙ্গিত একমাস আগেই ছিল।

  • Share this:

#নয়াদিল্লি: নিউজ18 বাংলা-র খবরে সিলমোহর। ভারতীয় টেস্ট দলে নেতৃত্ব থেকে যে বিরাট কোহলি (Viral Kohli) সরে যাবেন, তার ইঙ্গিত একমাস আগেই নিউজ18 বাংলা-র এসক্লুসিভ প্রতিবেদনে ছিল। গত বছর ১৩ ডিসেম্বর সকাল ৭:০৫ নাগাদ নিউজ18 বাংলা-র ওয়েবসাইটে একটি বিরাট সংক্রান্ত খবর প্রকাশ হয়। খবরের শিরোনামে লেখা হয় "ভারতীয় টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব থেকে সরতে পারেন বিরাট? দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ব্যর্থ হলে সত্যি হতে পারে জল্পনা।"

এই প্রতিবেদনে স্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়ে লেখা হয়, দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ অধিনায়ক বিরাটের অগ্নিপরীক্ষা হতে চলেছে। এই সিরিজে দল এবং বিরাট নিজে ব্যর্থ হলে কোহলির লাল বলের নেতৃত্ব নিয়ে প্রশ্ন উঠতে চলেছে। এমনকি বোর্ডের সূত্র থেকে এও শোনা যাচ্ছে, বিরাট যদি টেস্ট দলের অধিনায়কত্ব ছাড়তে চান তাহলে বোর্ড কর্তারা বাধা দেবেন না এবং কোন অনুরোধ করবেন না। মূলত কি কারণে এটি হতে পারে তার বিস্তারিত বিবরণ প্রতিবেদনে লেখা হয়। আর এই প্রতিবেদনের ঠিক এক মাসের মধ্যেই সিলমোহর লেগে গেল।

শনিবার বিরাট কোহলি নিজে জানিয়ে দেন ভারতীয় টেস্ট দলের নেতৃত্বে তিনি আর থাকছেন না। আসলে এই দেয়াললিখনটা বিগত কয়েক মাস ধরেই তৈরি হচ্ছিল। সবকিছু দাঁড়িয়ে ছিল দক্ষিণ আফ্রিকা টেস্ট সিরিজে বিরাট এবং দলের পারফরমেন্সের উপর। বর্তমানে বিতর্কের শীর্ষে থাকা বিরাট কোহলিকে টেস্ট দলের নেতৃত্ব ধরে রাখতে গেলে নাকি দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজ জিততে হতো এবং নিজেকেও ব্যাটে বড় রান করতে হতো। আর এই দুটোর কোনটাই প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে করতে পারেননি কোহলি।

আরও পড়ুন: 'ওয়েল ডান', টেস্ট অধিনায়কত্ব ছাড়তেই 'সেরা খেলোয়ার' বিরাটকে নিয়ে প্রতিক্রিয়া সৌরভের!

শেষ টেস্ট ম্যাচে কেপটাউনে প্রথম ইনিংসে ৭৯ করা ছাড়া বাকি ৩ ইনিংসে সেভাবে দাগ কাটতে পারেননি কোহলি। পিঠের চোটের জন্য জোহানেসবার্গে খেলতে পারেননি। দু বছরের বেশি সময় বিরাটের সেঞ্চুরি নেই। নিজের অধিনায়কত্ব ধরে রাখতে গেলে কোহলিকে প্রোটিয়াদের বিরুদ্ধে বড় রান করতেই হতো। আর সিরিজ জিততে না পারলেও অন্তত কম শক্তিশালী দক্ষিণ আফ্রিকা দলের বিরুদ্ধে সিরিজ ড্র করে ফিরতে হতো। আর এইগুলো কোনটাই না হওয়ায় বিরাট নিজেই নাকি নিজের ভবিষ্যৎ বুঝতে পেরে টেস্ট দলের নেতৃত্ব থেকে সরে দাঁড়ানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছেন সিরিজ হারার ২৪ ঘন্টার মধ্যেই। আসলে সিরিজ শুরুর আগে বোর্ডের সঙ্গে রীতিমতো সংঘাতে জড়িয়ে পড়েছিলেন বিরাট। নাম না করে বোর্ড সভাপতি সৌরভকে মিথ্যেবাদী আখ্যা দিয়ে ফেলেছিলেন সদ্য প্রাক্তন অধিনায়ক। গত বছর ১৬ সেপ্টেম্বর টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছাড়ার সিদ্ধান্তের পর সৌরভ সহ ভারতীয় বোর্ড কর্তারা বিরাটকে নিজেই সিদ্ধান্তের বিষয়টি ভেবে দেখার জন্য অনুরোধ করেছিলেন বলে খবর। এমনকি সংবাদমাধ্যমে সৌরভ সে কথা জানান। তবে সিরিজ শুরুর আগে বিরাট স্পষ্ট করে দেন বোর্ডের তরফ থেকে টি-টোয়েন্টিতে অধিনায়ক চালিয়ে যাওয়ার জন্য কোন অনুরোধ তার কাছে আসেনি। এবং এক ঘণ্টার মধ্যেই তাকে রীতিমত অন্ধকারে রেখেই একদিনের নেতৃত্ব থেকে সরিয়ে দেওয়া হয়েছে। বিরাটের এই মন্তব্যের পরই শুরু হয় বিতর্ক। কোহলির আচমকা এই মন্তব্যে ঝড় ওঠে। সেই ঘটনার পর থেকে বিরাট ইস্যুতে মুখে কুলুপ এঁটেছিলেন বোর্ড প্রেসিডেন্ট।

আরও পড়ুন: বিদায়বেলায় মাথা উঁচু করে যাও বিরাট, আবেগপ্রবণ হলেন রবি শাস্ত্রী

বিরাট প্রসঙ্গে এক মাস কোন মন্তব্য করেননি সৌরভ। যদিও এর মাঝেই গত বছরের শেষ দিন বিরাট সত্যি কথা বলছেন না বলে জানিয়ে দিয়েছিলেন ভারতীয় নির্বাচক কমিটির প্রধান চেতন শর্মা। আর এরপর থেকেই স্পষ্ট হয়ে যায় বিরাটের মন্তব্যে খুব একটা ভালোভাবে নেননি বোর্ড কর্তারা। সূত্রের খবর, দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের যাতে কোনো রকম প্রভাব না পড়ে সেই জন্য বিরাটের অসৎ মন্তব্যের পরেও কোনো ব্যবস্থা নেননি বোর্ড কর্তারা। বিসিসিআই বিষয়টি ধীরে চলো নীতি নিয়ে এগোচ্ছিল। আসলে ভোট করতে পারো না কি অপেক্ষা করছিলেন দক্ষিণ আফ্রিকা সিরিজের বিরাটের পারফর্মেন্স এবং দলের পারফরমেন্সের উপর। এমনকি সূত্রের দাবি, বোর্ড কর্তারা গত মাসে ঠিক করে রেখেছিলেন বিরাট টেস্ট দল থেকেও অধিনায়কত্ব ছাড়তে আর কোন অনুরোধ করা হবে না।

তাই শনিবার দুপুরে বোর্ড কর্তাদের বিরাট নিজের সিদ্ধান্ত জানানোর পর আর কোন অনুরোধ করা হয়নি বলেই খবর। এমনকি বিষয়টা যেহেতু বোর্ড কর্তারা জানতেন তাই বিরাটের নেতৃত্ব ছাড়ার ঘোষণার ১০ মিনিটের মধ্যেই টুইট করা হয় বিসিসিআইয়ের তরফে। সফলভাবে টেস্টে ভারতকে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য প্রশংসা করা হয় এবং আগামীর জন্য ক্রিকেটার বিরাটকে শুভেচ্ছা জানানো হয়। আসলে নিজের দেয়াল লিখন হয়তো টেস্ট ম্যাচ হারার সঙ্গে সঙ্গেই পড়ে ফেলেছিলেন বিরাট। সেই জন্যই হয়তো ম্যাচ শেষে ড্রেসিংরুমে নেতৃত্ব ছাড়ার কথা সতীর্থদের জানিয়ে দিয়েছিলেন কোহলি। শুধু অনুরোধ করেছিলেন এই খবরটি যেন তার ঘোষণার আগে প্রকাশ্যে না আসে।

Published by:Suman Biswas
First published:

Tags: India Team, Virat Kohli

পরবর্তী খবর