• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • Ravi Shastri on coaching job : হিংসে করার লোকের অভাব ছিল না, ব্যর্থতা চাইত দলের ! বোমা রবি শাস্ত্রীর

Ravi Shastri on coaching job : হিংসে করার লোকের অভাব ছিল না, ব্যর্থতা চাইত দলের ! বোমা রবি শাস্ত্রীর

কোচের পদ থেকে সরানো নিয়ে বোমা ফাটালেন শাস্ত্রী

কোচের পদ থেকে সরানো নিয়ে বোমা ফাটালেন শাস্ত্রী

Ravi Shastri says there were specific people against him in BCCI. কোচের পদ থেকে সরানো নিয়ে বোমা ফাটালেন শাস্ত্রী, অনেকেই চাইত ব্যর্থ হোক দল, বলছেন রবি শাস্ত্রী

  • Share this:

    #মুম্বই: ভারতীয় কোচের পদে থেকে তিনি যেটা বলতে পারতেন না, এখন সরে গিয়ে বলার সাহস দেখাচ্ছেন। বেশ বড়সড় অভিযোগ করলেন রবি শাস্ত্রী। ভারতের প্রাক্তন কোচ বলেন তিনি নাকি বহু মানুষের বিরুদ্ধে গিয়ে কোচিং করিয়েছেন জাতীয় দলকে। বাইরে থেকে সমর্থন পাচ্ছেন মনে হলেও, এতটা সহজ ছিল না ব্যাপারটা। ব্যক্তিগত কারো নাম না নিলেও, তিনি জানিয়েছেন তিনি যাতে কোচের চাকরি না পান, তার চেষ্টা করা হয়েছিল ভরপুর।

    আরও পড়ুন - Ashes Root and Malan : অধিনায়ক রুট এবং মালানের ব্যাটে তৃতীয় দিনে অ্যাশেজে ঘুরে দাঁড়াল ইংল্যান্ড

    আসলে তিনি মনে করেন তার সাদাকে সাদা বলার সাহস অনেকেই মেনে নিতে পারেননি। ২০১৭ সালের জুলাই মাসে ভারতীয় দলের প্রধান কোচের পদে বসেন রবি শাস্ত্রী। তাঁকে নিয়োগ করে সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায়, সচিন তেন্ডুলকর এবং ভিভিএস লক্ষ্ণণ'কে নিয়ে তৈরি ক্রিকেট অ্যাডভাইজারি কমিটি। ২০১৯ বিশ্বকাপের মধ্যেই ১৩ জুন বিসিসিআই কোচ হিসেবে শাস্ত্রী'র মেয়াদ বাড়ায়। তারা ঘোষণা করে বিশ্বকাপের পর ৪৫ দিন শাস্ত্রীর মেয়াদ বাড়ানো হল।

    ২০১৯-এর ১৬ অগস্ট তাঁর চুক্তি নবীকরন করে বোর্ড। ২০২১ টি-২০ বিশ্বকাপ পর্যন্ত মেয়াদ ছিল সেই চুক্তির। ভারতের হয়ে ৮০টি টেস্ট এবং ১৫০টি একদিনের আন্তর্জাতিক ম্যাচে প্রতিনিধিত্ব করা শাস্ত্রী নিজের পদত্যাগের সিদ্ধান্তের বিষয়েও মুখ খুলেছেন এই সাক্ষাৎকারে। তিনি জানিয়েছেন, কখন বিরাটদের কোচের পদ থেকে সরে দাঁড়ানোর কথা ভাবেন তিনি।

    আরও পড়ুন - Venkatesh Iyer in Vijay Hazare : বিজয় হাজারেতে ঝোড়ো শতরান ভেঙ্কটেশ আইয়ারের, নিলেন ৩ উইকেট

    ইংল্যান্ড সফরে যাওয়ার আগের প্রসঙ্গ তুলে এনে তিনি বলেন, ইংল্যান্ডে যাওয়ার আগে আমি মানসিকভাবে সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেছিলাম দায়িত্ব ছাড়ার বিষয়ে। কয়েকটা কারণ আমিকে এই সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য করেছে। প্রথমত আমার বয়স ৬০-এ দোরগোড়ায় এবং সুপ্রিম কোর্টে বিভিন্ন নিয়ম আছে এই বয়স নিয়ে। দ্বিতীয়ত, আমি জানতাম আগামী দু'বছরও এই নিভৃতবাস বা জৈব সুরক্ষা বলয়ে একই রকম থাকবে। আইসোলেশনের মধ্যেই ক্রিকেট খেলতে হবে। ফলে অনেক হয়েছে আর নয়।

    সম্প্রতি এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম'কে দেওয়া সাক্ষাৎকারে শাস্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর সময়ে এমন বহু মানুষ ছিল যাঁরা বিরাট কোহলির নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দলের ব্যর্থতা কামনা করতেন। কিন্তু দল যত বেশি সাফল্য পেত ততই জ্বলতেন এই ব্যক্তিরা। শাস্ত্রী'র কথায়, সব সময়ে বহু মানুষ থাকত যাঁরা চাইত আমরা ব্যর্থ নই কিন্তু আমার কাছে তাঁদের জন্য কোনও সময় ছিল না।

    কিন্তু যাঁরা আমায় চেনেন তাঁরা জানেন আমার চামড়া কতটা মোটা। এগুলো আমার উপর কোনও প্রভাবই ফেলত না। তবে কোচ হিসেবে তিনি যেমন ভারতীয় দলকে আত্মবিশ্বাস দিয়েছেন, তেমনই এমন অনেক দাবি করেছেন যা নিয়ে সমালোচিত হতে হয়েছিল তাঁকে। অস্ট্রেলিয়ায় সিরিজ জয়ের পর তিনি দাবি করেন এই জয় নাকি ভারতের প্রথম বিশ্বকাপ জয়ের থেকেও বড়। গৌতম গম্ভীর তীব্র প্রতিবাদ করেন।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: