• Home
  • »
  • News
  • »
  • sports
  • »
  • FOOTBALL SPANISH COURT DISMISSED A NEW COMPLAINT FILED IN 2020 AGAINST LIONEL MESSI OF FRAUD AND MONEY LAUNDERING RRC

স্পেনে অর্থ আত্মসাৎ এবং অনৈতিক কাজের মামলা থেকে রেহাই পেলেন মেসি

ফের বিতর্কে জড়ানোর চেষ্টা মেসিকে

লিওনেল মেসির জন্য এলো আরেকটি সুখবর। তাকে ২০২০ সালে তার বিরুদ্ধে ওঠা জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাৎ এবং তছরুপের অভিযোগ থেকে মুক্তি দিয়েছে স্পেনের আদালত

  • Share this:

    #বার্সেলোনা: এই মুহূর্তে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মায়ামিতে ছুটি কাটাচ্ছেন তিনি। সোশ্যাল মিডিয়ায় ধরা পড়েছে তাঁকে ঘিরে মায়ামি বিমানবন্দরে ভক্তদের পাগলামো। স্বপ্নের নায়ককে একবার ছুঁয়ে দেখতে চাইছেন হাজার হাজার জনতা। সদ্যই কোপা আমেরিকার শিরোপা জিতেছেন। ক্যারিয়ারের প্রথম আন্তর্জাতিক শিরোপা। এবার লিওনেল মেসির জন্য এলো আরেকটি সুখবর। তাকে ২০২০ সালে তার বিরুদ্ধে ওঠা জালিয়াতি, অর্থ আত্মসাৎ এবং তছরুপের অভিযোগ থেকে মুক্তি দিয়েছে স্পেনের আদালত।

    ফেডেরিকো রেত্তোরি নামক এক আর্জেন্টাইন ব্যক্তি মেসির বিরুদ্ধে এই ধরনের অভিযোগ করেছিলেন। যিনি আর্জেন্টাইন হলেও স্পেনেই থাকতেন। ওই ব্যক্তির দাবি, তিনি মেসির স্বেচ্ছাসেবী সংস্থায় কাজ করতেন। ২০১৯ সালেও একই অভিযোগ করেছিলেন রেত্তোরি। সে বারেও তার অভিযোগ নাকচ করে দেওয়া হয়। রেত্তোরির অভিযোগ, মেসির সংস্থা যে অর্থ পেত তা সোজাসুজি দান করে দেওয়ার কথা। কিন্তু তা হয়নি। সেই অর্থ যেত বিভিন্ন ব্যাঙ্কে এবং ব্যক্তিগত কাজে। যে গুলির স্বেচ্ছাসেবী সংস্থার সঙ্গে কোনো যোগ নেই।

    তবে স্পেনের আদালত জানিয়েছে দুই বছর ধরে তদন্ত করেও কোনো অনৈতিক কাজ চোখে পড়েনি। ওই ব্যক্তির অভিযোগ প্রমাণ করার মতো কোনো কিছু খুঁজেও পাওয়া যায়নি। রেত্তোরি যে মেসির সংস্থায় কাজ করতেন তার কোনো প্রমাণ পাওয়া যায়নি। 'এল বুয়েন ক্যামিনো' নামক এক সংস্থার প্রধান হিসেবে নাম পাওয়া গিয়েছে রেত্তোরির। সেই সংস্থা পশ্চিম আফ্রিকার সিয়েরা লিয়োনে নামক একটি দেশের শিশুদের সাহায্য করার জন্য মোটা অংকের অর্থ পেয়েছিল। যদিও ইবোলা ভাইরাসের মহামারীতে তা বন্ধ হয়ে যায়।

    মেসির নামে এমন অভিযোগ করা সেই ব্যক্তি আসলে কোন উদ্দেশ্য থেকে এমন কাজ করেছেন সেটা দেখার নির্দেশ দিয়েছে আদালত। অতীতে স্পেনে ট্যাক্স ফাঁকি দেওয়ার অভিযোগে অভিযুক্ত হয়েছিলেন আর্জেন্টাইন তারকা। শেষ পর্যন্ত আদালত মুক্তি দেয় তাঁকে। কিন্তু এবারের ঘটনা সম্পূর্ণ উদ্দেশ্যপ্রণোদিত বলেই মনে হচ্ছে। যাই হোক, এসব নিয়ে মাথা ঘামাতে রাজি নন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার। অর্থ কম করে দিয়ে পরবর্তী পাঁচ বছরের জন্য বার্সেলোনাতেই থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। পরের বছর কাতার বিশ্বকাপ দেশের হয়ে শেষ বড় আন্তর্জাতিক টুর্নামেন্ট হতে চলেছে মেসির।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published: