‘ফুটবল ওঁর প্রথম প্রায়োরিটি ছিল, আর এই জায়গাতেই আমরা একসঙ্গে লড়াই করতাম’- দেবব্রত সরকার

মোহনবাগান কর্মকর্তার প্রয়াণে শোকস্তব্ধ চিরপ্রতিদ্বন্দ্বী ক্লাব ইস্টবেঙ্গলেও

Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Nov 08, 2019 11:36 AM IST
‘ফুটবল ওঁর প্রথম প্রায়োরিটি ছিল, আর এই জায়গাতেই আমরা একসঙ্গে লড়াই করতাম’- দেবব্রত সরকার
Bangla Editor | News18 Bangla
Updated:Nov 08, 2019 11:36 AM IST

#কলকাতা : গঙ্গাপাড়ের দুই ক্লাব মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল ৷ এই দুই ক্লাবের মধ্যে ও শব্দটা ব্যবহারের জায়গা বড়ই কম পাওয়া যায় তা বাংলার ফুটবলপ্রেমী মাত্রই জানেন ৷ সবসময়েই ব্যবহার হয় বনাম শব্দটা ৷ কিন্তু প্রাক্তন মোহনবাগান সচিব অঞ্জন মিত্রের প্রয়ানে চির প্রতিদ্বন্দ্বী ইস্টবেঙ্গল ক্লাবেও শোকের ছায়া ৷ মাঠে দল নামলে যাঁরা দুই সাইডলাইনের মানুষ তাঁর প্রয়ানে শোকস্তব্ধ ইস্টবেঙ্গল কর্মকর্তা দেবব্রত সরকার বা ময়দানের চির পরিচিত নীতুদা ৷

নিউজ ১৮ বাংলা . কমের সঙ্গে কথা বলতে গিয়ে অকপটভাবে ধরা দিলেন ময়দানের এই অভিজ্ঞ প্রশাসক ৷ ‘‘অঞ্জনবাবু মোহনবাগান ক্লাবের ছিলেন, দূরত্ব সেই সুবাদে ছিল নিঃসন্দেহে ৷ মোহনবাগান-ইস্টবেঙ্গলের  জন্য  মতপার্থক্য ছিল ৷ তবে একটা জায়গায় আমরা একমত ছিলাম সেটা ওঁর ফুটবল প্রমোট করা ৷ উনি ফুটবলকে সবার আগে রাখতেন ৷ এই জায়গাতেই একসঙ্গে লড়াই করতাম ৷ আইএসএলে -র প্রশ্নেও উনি অনড় ছিলেন ফ্রাঞ্চাইজি হিসেবে খেলবে না মোহনবাগান ও ইস্টবেঙ্গল ৷ ’’

maxresdefault

আরও পড়ুন - ‘বাবা-মায়ের পরে আমার জীবনে যাঁর প্রভাব সবচেয়ে বেশি তিনি অঞ্জন মিত্র’- দেবাশিস দত্ত

‘‘ক্রিকেট-হকি সব খেলাকেই মাথায় রেখেও উনি সবসময় বলতেন ফুটবলই এই দুই ক্লাবে অস্তিত্ব , ফুটবল থাকলেই ইস্টবেঙ্গল -মোহনবাগান থাকবে ৷ ওঁনার প্রশাসনিক ক্ষমতা ছিল নিঃসন্দেহে দারুণ ৷ ’’

Loading...

ব্যক্তিগত সম্পর্ক খুব বেশি না থাকলেও অঞ্জন মিত্রের যে গুণকে কুর্নিশ করছেন নীতুদা তা হল নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকতেন ৷ অর্থাৎ কোনও বিষয়ে কোনও সিদ্ধান্ত নিলে তা নিয়ে আত্মবিশ্বাসী থাকতেন , ফলে আজ একটা আবার কাল আরেকটা কথা বলতেন না ৷

আরও দেখুন

First published: 11:35:52 AM Nov 08, 2019
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर