Home /News /sports /
Bengal Cricket : আগামী পাঁচ বছরে সম্পূর্ণ বদলে যাবে বাংলার ক্রিকেট! পেছনে সৌরভের মাস্টার স্ট্রোক

Bengal Cricket : আগামী পাঁচ বছরে সম্পূর্ণ বদলে যাবে বাংলার ক্রিকেট! পেছনে সৌরভের মাস্টার স্ট্রোক

বাংলা ক্রিকেট দলের উন্নতিতে নতুন ভাবনা সিএবির

বাংলা ক্রিকেট দলের উন্নতিতে নতুন ভাবনা সিএবির

Cricket association of Bengal taking new initiatives for the development of cricket. বাংলা ক্রিকেট দলের উন্নতিতে নতুন ভাবনা সিএবির

  • Share this:

    #কলকাতা: সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় যখন যে কাজে হাত দিয়েছেন, চেষ্টা করেছেন উন্নতি করার। সেটা ভারতীয় ক্রিকেট দলের হয়ে হোক, বিসিসিআই হোক অথবা বাংলার ক্রিকেট। নিজের রাজ্যের ক্রিকেট উন্নতির জন্য এবার নতুন রাস্তা বের করেছেন তিনি। বলা হচ্ছে সিএবির পরিকল্পনা! কিন্তু আসল মাথা সৌরভের সেটা না বললেও হয়।

    অদূর ভবিষ্যতে বাংলার ভূমিপুত্রদের উপরেই নির্ভর করতে চাইছে বাংলার ক্রিকেট দল। বাংলা দলে বাংলার ক্রিকেটারের সংখ্যা বাড়াতে চাইছে সিএবি। রাজ্যের ক্রিকেট নিয়ামক সংস্থার তরফে তেমনই উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। এর জন্য দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে ৩২ বছর আগে বাংলার রঞ্জি জয়ী দলের সদস্যদের।

    বিভিন্ন জেলার অনূর্ধ্ব-১৬ স্তর থেকে প্রতিভাবান ক্রিকেটারদের তুলে বেছে নেবেন তাঁরা। অশোক মলহোত্র, ইন্দুভূষণ রায় এবং শরদিন্দু মুখোপাধ্যায়কে এই কাজের দায়িত্ব দিয়েছে সিএবি। বাংলার প্রতিটি জেলা থেকে ১২-১৩ জন করে ক্রিকেটার খুঁজে আনা হয়েছে। সেই জেলাগুলিকে উত্তর, পূর্ব, দক্ষিণ, পশ্চিম হিসাবে চারটি অঞ্চলে ভাগ করা হয়েছে।

    কলকাতা থেকেও ‘এ’ এবং ‘বি’ নামে দু’টি ভাগ করা হয়েছে। কোনও অঞ্চলে পাঁচটি, কোনও অঞ্চলে ছ’টি জেলাকে রাখা হয়েছে। সেখান থেকে ট্রায়ালের মাধ্যমে ক্রিকেটার বেছে নিচ্ছেন মলহোত্ররা। প্রতিটি অঞ্চল থেকে ১৬ জন ক্রিকেটারের দল তৈরি করা হবে। চার জনকে রাখা হবে স্ট্যান্ড বাই হিসাবে।

    চারটি অঞ্চল এবং কলকাতা, মোট পাঁচটি দল বেছে নেওয়া হবে ৩০ জুনের মধ্যে। সেই ক্রিকেটারদের নিয়ে বেশ কিছু এক দিনের ম্যাচ খেলা হবে। সমস্ত ম্যাচ হবে লাল বলে। ম্যাচগুলি বারাসাত এবং কল্যাণীর স্টেডিয়ামে খেলা হবে। এই ম্যাচগুলি থেকে ৩৫ জন ক্রিকেটারকে বেছে নেবেন মলহোত্ররা।

    মূল লক্ষ্য বাংলার ক্রিকেটের জন্য একাধিক ক্রিকেটারকে তৈরি রাখা। এখন অনূর্ধ্ব-১৬ ক্রিকেটারদের নিয়ে এই উদ্যোগ নেওয়া হলেও পরবর্তী সময়ে অনূর্ধ্ব-১৮ এবং অনূর্ধ্ব-১৯ ক্রিকেটারদের নিয়েও এই ভাবনা রয়েছে সিএবি-র।

    অভিষেক ডালমিয়া নিজে আশাবাদী এই রাস্তায় এগিয়ে চললে আগামী দিনে বাংলা ক্রিকেটের সাপ্লাই লাইনে অসুবিধা হবে না। আগামী দু-তিন বছরের ভেতর এই প্রক্রিয়ার সুফল পাওয়া যাবে বলে তিনি বিশ্বাসী।

    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: Bengal Cricket, CAB

    পরবর্তী খবর