Home /News /sports /
ATK Mohun Bagan beat SC East Bengal : ১১ মিনিটের সবুজ মেরুন ঝড়, ইস্টবেঙ্গলকে উড়িয়ে ডার্বিতে বাজিমাত কৃষ্ণদের

ATK Mohun Bagan beat SC East Bengal : ১১ মিনিটের সবুজ মেরুন ঝড়, ইস্টবেঙ্গলকে উড়িয়ে ডার্বিতে বাজিমাত কৃষ্ণদের

ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে গোল করে সেলিব্রেশন লিস্টনের। পাশে অন্য স্কোরার রয় কৃষ্ণ

ইস্টবেঙ্গলের বিরুদ্ধে গোল করে সেলিব্রেশন লিস্টনের। পাশে অন্য স্কোরার রয় কৃষ্ণ

ATK Mohun Bagan beat SC East Bengal 3-0 in Kolkata Derby, ১২ মিনিটে প্রথম গোল সবুজ মেরুনের। সেই রয় কৃষ্ণ ইস্টবেঙ্গলের জালে বল জড়ান। মনবির হয়ে প্রীতম কোটাল বল বাড়ান। বক্সে ভলি করে অরিন্দমকে পরাস্ত করেন কৃষ্ণ।

  • Share this:
    এস সি ইস্টবেঙ্গল -০ এটিকে মোহনবাগান -৩ #গোয়া: কলকাতা ডার্বিতে (Kolkata Derby) এবারও তুলনায় কিছুটা হলেও এটিকে মোহনবাগান (ATK Mohun Bagan beat SC East Bengal) এগিয়ে সেটা আগেই জানা ছিল। গতবার দুবারের সাক্ষাতে দুবারই জিতেছিল সবুজ মেরুন। প্রথম পর্বে ২-০। দ্বিতীয় পর্বে ৩-১। আজ মোহনবাগান এর পক্ষে লড়াই এতটা সহজ হবে না আশা করা গিয়েছিল। তবে দুই দলের স্প্যানিশ কোচ ধুরন্ধর সেটা জানাই ছিল। শুরুটা খারাপ করেনি ইস্টবেঙ্গল। ৩-৪-৩ ফরমেশনে দল সাজিয়েছিলেন মানোলো ডিয়াজ। অন্যদিকে ৪-৩-৩ দল নামিয়েছিল মোহনবাগান। আরও পড়ুন - India vs New Zealand Kanpur Test: গ্যালারিতে পড়ে থাকা জলের বোতল, প্লাস্টিক তুলছেন এক আইপিএস অফিসার! কানপুরে বিরল ছবি ১২ মিনিটে প্রথম গোল সবুজ মেরুনের। সেই রয় কৃষ্ণ (Roy Krishna) ইস্টবেঙ্গলের জালে বল জড়ান। মনবির হয়ে প্রীতম কোটাল বল বাড়ান। বক্সে ভলি করে অরিন্দমকে পরাস্ত করেন কৃষ্ণ। প্রথম গোলের আঘাত কাটিয়ে উঠতে না উঠতেই দু মিনিটের মধ্যে দ্বিতীয় গোল। এবার মনবির (Manvir Singh) লক্ষ্যভেদ করলেন। জনি কাউকোর (Joni Kauko) বাড়ানো বল ধরে গোলার মত শটে। ২৩ মিনিটে ৩-০ করলেন লিষ্টন কোলাসো (Liston Colaco)। অরিন্দম এগিয়ে এসে বল বের করে দিলেন হাত থেকে। বল জালে ঠেলতে ভুল করেননি কোলাসো। আরও পড়ুন - Ind vs Nz 1st Test kanpur: ভয়ঙ্কর কাণ্ড! সজোরে বল লাগল পাকিস্তানের আম্পায়ার আলিম দারের মাথায় এদিন অবশ্য চিমা এবং হীরা মণ্ডলকে প্রথম দলে রাখেননি ইস্টবেঙ্গল কোচ। ডাচ ফুটবলার দ্যারেন সিডল এবং মহেশ সিং কে সুযোগ দিয়েছিলেন তিনি। দ্বিতীয়ার্ধের শুরুতেই ইস্টবেঙ্গল টমিস্লাভকে তুলে নিয়ে আমির দেরসিভিচকে নিয়ে এল। মিডফিল্ড শক্ত করার জন্য। চোট পেয়ে উঠে গেলেন রাজু গায়কোয়াড়। তার জায়গায় ইস্টবেঙ্গল নামাল আদিল খানকে। ৫৯ মিনিটে সিডলের পরিবর্তে নামলেন চিমা। মোহনবাগান সমর্থকদের মনে যতই পাঁচ গোলের স্বপ্ন উঁকি মারতে থাকুক না কেন, অ্যান্টোনিও লোপেজ হাবাস তিন গোল পেয়ে যাওয়ার পর, অলআউট আক্রমণে যাবেন না, সেটা জানা ছিল। বাকি সময়টা গোল না হজম করে ম্যাচ শেষ করা ছিল তার লক্ষ্য।  ৬৫ মিনিটে বুমুকে তুলে নিয়ে ডেভিড উইলিয়ামসকে নিয়ে এলেন হাবাস। এই সময় ইস্টবেঙ্গল বল ধরে খেলার চেষ্টা করল। আক্রমণ তুলে আনল। কিন্তু ফিনিশ করতে পারল না। এটিকে মোহনবাগানের ডিফেন্স অ্যান্টোনিও পেরসেভিচ, চিমাদের বিশেষ ফাঁকা জায়গা দিল না। মোহনবাগান মিডফিল্ডে দুর্দান্ত বুদ্ধি করে বক্স টু বক্স ফুটবল খেললেন জনি কাউকো। ভাগ্য সহায় থাকলে গোল পেতেও পারতেন। ইস্টবেঙ্গলকে ডি বক্সের ভেতর ভয়ঙ্কর হতে দেয়নি কার্ল ম্যাক হিউ, শুভাশীষ বসুরা। বাঙালির আবেগের ম্যাচে ফের বাজিমাত মোহনবাগানের। রয় কৃষ্ণ ডার্বি জয়ের হ্যাটট্রিক করে ফেললেন।
    Published by:Rohan Chowdhury
    First published:

    Tags: ATK Mohubagan, SC East Bengal

    পরবর্তী খবর