Digha Hotels: পুলিশি ধড়-পাকড়ে দিঘা ছাড়তে হচ্ছে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট না থাকা পর্যটকদের!

পুলিশি ধড়-পাকড়ে দিঘা ছাড়তে হচ্ছে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট না থাকা পর্যটকদের!

রাতের দিঘায় ব্যাপক ধড়-পাকড়, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দিঘায় পুলিশের হঠাৎ অভিযান (Digha Hotels)।

  • Share this:

#দিঘা: রাতের দিঘায় ব্যাপক ধড়-পাকড়, করোনা সংক্রমণ ঠেকাতে দিঘায় পুলিশের হঠাৎ অভিযান। অভিযান চালানো হয় দিঘার হোটেল থেকে বাস স্ট্যান্ড, দিঘা গেট থেকে সি-বিচ-সহ গোটা সৈকত নগরীতেই। পুলিশি ধড়-পাকড়ে দিঘা ছাড়তে হচ্ছে করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট হাতে না থাকা পর্যটকদের। দিঘার হোটেলে ঘর পেতে বাধ্যতামূলক করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট অথবা টিকার দুই ডোজ। এই নির্দেশ জারির পরপর রাতের দিঘায় শনিবারই প্রথম করোনার নেগেটিভ রিপোর্ট দেখতে পর্যটকদের জেরা শুরু করেছে প্রশাসন। রিপোর্ট না থাকায় ইতিমধ্যেই বেশ কয়েকজন পর্যটককে দিঘা ছাড়ার নির্দেশ দিয়েছেন পুলিশ ও ব্লক প্রশাসন। আসলে লকডাউনের বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল হতেই দিঘা, মন্দারমণির মতো পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে পর্যটকদের ভিড় বাড়ছে। বাড়ছে করোনা সংক্রমণের আশংকাও।

এবার থেকে তাই দিঘায় এসে হোটেল, লজে থাকতে গেলেই করোনার আরটি পিসিআর নেগেটিভ রিপোর্ট দেখাতে হবে পর্যটকদের বলে নিয়ম চালু করেছে মহকুমা প্রশাসন৷ তা না হলে পর্যটকদের করোনা ভ্যাকসিনের দু'টি ডোজই নেওয়া থাকতে হবে বলেও নিয়ম চালু করেছে প্রশাসন। শুধু দিঘা নয়, মন্দারমণি, শঙ্করপুর, তাজপুরের মতো কাঁথি মহকুমার অন্তর্গত জনপ্রিয় সব পর্যটন কেন্দ্রের জন্য এই নির্দেশিকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছে৷ কাঁথির এসডিও-র তরফে এই নির্দেশিকা জারি করা হয়েছে৷ অবিলম্বে নির্দেশিকা কার্যকর করার জন্য হোটেল, লজগুলিকে ইতিমধ্যেই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে৷ নির্দেশিকায় স্পট বলা হয়েছে, কাঁথি মহকুমার অন্তর্গত সমস্ত হোটেল, লজগুলিকে এই নির্দেশ মানতে হবে৷ নির্দেশিকা অনুযায়ী, ঘর ভাড়া নেওয়ার সময় পর্যটকদের আরএটি অথবা আরটিপিসিআর নেগেটিভ রিপোর্ট দেখাতেই হবে পর্যটকদের৷ সর্বাধিক ৪৮ ঘণ্টা আগে করা রিপোর্ট গ্রাহ্য করা হবে৷ তা না হলে ভ্যাকসিনের দু'টি ডোজই পেয়েছেন, এমন পর্যটকরাই ঘর ভাড়া নিতে পারবেন৷

পর্যটকদের সঙ্গে কথা বলছে পুলিশ। পর্যটকদের সঙ্গে কথা বলছে পুলিশ।

লকডাউনের বিধিনিষেধ কিছুটা শিথিল হতেই দিঘা, মন্দারমণির মতো পর্যটন কেন্দ্রগুলিতে পর্যটকদের ভিড় বাড়ছে৷ কিন্তু অনেকেই করোনা সংক্রান্ত বিধিনিষেধ মানছেন না৷ মাস্ক পরা, শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখার কথা ভুলে যাচ্ছেন অনেক পর্যটকই৷ যার ফলে গোটা রাজ্যে করোনা সংক্রমণের হার কমলেও পূর্ব মেদিনীপুরের পরিস্থিতি জেলা প্রশাসনের কপালে চিন্তার ভাঁজ ফেলছে৷ দিঘা, মন্দারমণিতে যেহেতু গোটা রাজ্য থেকে পর্যটক আসেন, তাই বিধিনিষেধ না মানলে পর্যটকদের মাধ্যমে এখান থেকেই রাজ্যের অন্যত্রও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে পারে৷ সেই কারণেই এই কড়া পদক্ষেপ করতে বাধ্য হল মহকুমা প্রশাসন৷ পাশাপাশি নির্দেশিকায় আরও বলা হয়েছে, হোটেল, লজের ভিতরেও করোনা সংক্রান্ত যাবতীয় বিধিনিষেধ মানতে হবে পর্যটকদের৷ পর্যটকরা যাতে বিধিনিষেধ মানেন, সংশ্লিষ্ট হোটেল বা লজ কর্তৃপক্ষকেই তা নিশ্চিত করতে হবে৷ অন্যথায় দায় বর্তাবে হোটেল কর্তৃপক্ষের উপরেই৷

এতদিন এক রাজ্য থেকে অন্য রাজ্যে গেলে অনেক ক্ষেত্রে করোনা পরীক্ষার নেগেটিভ রিপোর্ট থাকা বাধ্যতামূলক করা হয়েছিল৷ এবার দিঘা, মন্দারমণিতেও মানতে হবে সেই শর্ত৷ শর্ত যে শুধু খাতায় কলমে থাকবে না, সেটা জানান দিতেই আজ এই রাতেই ব্লক ও পুলিশ প্রশাসন দিঘা জুড়ে এই অভিযান এবং ধড়-পাকড় শুরু করেছে। ধড়-পাকড় শুরু হতেই সঙ্গে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট না থাকা পর্যটকদের হোটেল ছাড়তে যেমন হচ্ছে, তেমনি বাস বা প্রাইভেট গাড়ি থেকে দিঘায় সদ্য নামা পর্যটকদের সৈকত শহর ছেড়ে ফিরতে হচ্ছে নিজেদের বাড়ি!

Published by:Raima Chakraborty
First published: