জলের অভাবে ধান চাষে ক্ষতি , হুগলির বিভিন্ন ব্লকে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা

জলের অভাবে ধান চাষে ক্ষতি , হুগলির বিভিন্ন ব্লকে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা
  • Share this:

#হুগলি: জলের অভাব। এই মরশুমে হুগলি জেলাজুড়ে কম ফলেছে আমন ধান। বৃষ্টি কম আর ডিভিসির সেচের জলের জোগান পর্যাপ্ত না হওয়ায় ধান শুকিয়েছে মাঠেই। ধােন ধরেছে পোকা। লোকসানের জেরে আলুচাষেও অনীহা দেখা দিয়েছে কৃষকদের।

এই মরশুমে খেত ভেেজনি। তাই.. চোখ ভিজেছে। শুকনো খটখটে জমি দুশ্চিন্তা বাড়িয়েছে। মুখ শুকিয়েছে কৃষকদের। হুগলি জেলায় এবছর কম ফলন হয়েছে আমন ধানের। পরিমাণের তুলনায় কম হয়েছে বৃষ্টি। বিভিন্ন ক্যানাল, জলাশয়, পুকুর-ডোবাও জলশূন্য। ডিভিসির সেচের জলের জোগানও ছিল কম। আরামবাগ, পুরশুড়া, খানাকুল, গোঘাটে ফুটিফাটা জমিতে ধস নেমেছে ধান চাষে।

- গত মরশুমে হুগলি জেলায় প্রতি হেক্টর জমিতে সাড়ে ৪ মেট্রিক টন ধান উৎপাদন

- ৫ বছরে গড় উৎপাদন প্রায় একই রয়েছে

- তবে এই মরশুমে ধানের উৎপাদন নিয়ে চিন্তায় কৃষি দফতর

Loading...

আগের মরশুমে চাষ করা আলুর দামই পাননি। ধান চােষ লোকসানের জেরে এই মরশুমে আর আলুচাষের ঝুঁকি নিতে চাইছেন না কৃষকরা। আলুবীজ কেনার প্রবণতা কমেছে।

- গত মরশুমে হুগলিতে ৩৩ লক্ষ মেট্রিক টন আলু উৎপাদন হয়েছে

- গত মরশুমের থেকে পঞ্জাবের আলুর বীজের দাম বেড়েছে

- বিঘা প্রতি আলু চাষে ১ হাজার টাকা বেশি খরচ হবে

- বস্তা পিছু সারের দামও বেড়েছে

- আগামী মরশুমে আরামবাগ, তারকেশ্বর, পুড়শুড়া, হরিপাল, সিঙ্গুর-সহ বিভিন্ন ব্লকে আলুর জোগানে ঘাটতির সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে

বিকল্প চাষ হিসেবে সূর্যমুখী, সরষে ও ডাল চাষের চিন্তাভাবনা শুরু করেছেন কৃষকরা। হুগলি জেলা-সহ রাজ্যের বিভিন্ন হিমঘরে প্রায় চোদ্দ লক্ষ মেট্রিক টন আলু মজুত আছে। এবার ডিভিসি কতটা জল সরবরাহ করবে সেদিকেই তাকিয়ে জেলার কৃষকরা। আমন ধানের ক্ষতি কাটিয়ে আলু চাষে কতটা ক্ষতিপূরণ হবে তা নিয়ে চিন্তা বেড়েছে।

আরও পড়ুন-রাজ‍্য রাজনীতিতে হঠা‍ৎ টুইট বিতর্ক

First published: 04:27:12 PM Nov 27, 2018
পুরো খবর পড়ুন
Loading...
अगली ख़बर