Home /News /south-bengal /
Birbhum Tea Seller: চা বিক্রেতার ইচ্ছে পূরণে চায়ের দোকানেই আয়োজিত হল রক্তদান শিবির

Birbhum Tea Seller: চা বিক্রেতার ইচ্ছে পূরণে চায়ের দোকানেই আয়োজিত হল রক্তদান শিবির

Birbhum Blood Donation

Birbhum Blood Donation

Birbhum Tea Seller:বীরভূম ভলান্টারি ব্লাড ডোনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চায়ের আড্ডায় গ্রীষ্মকালীন রক্ত সংকটের কথা শুনে বিপুলের ইচ্ছে প্রকাশ করেন ব্লাড ব্যাংকের পাশে দাঁড়ানোর ।

  • Share this:

দুবরাজপুর : কোনও বিশেষ অনুষ্ঠানে নয়, এ বার রক্তদান শিবির হল চায়ের দোকানেই । নজির তৈরি করলেন বীরভূমের দুবরাজপুরের চা বিক্রেতা বিপুল ওঝা । চা বিক্রি করেই সংসার চলে তাঁর । আর সেই চায়ের দোকানেই বসে আড্ডার আসর । বিভিন্ন আলোচনা ভেসে আসে তাঁর কানেও ।

এই আড্ডা থেকেই রক্তদান শিবির করার ভাবনা আসে চা বিক্রেতা বিপুলের মনে । বীরভূম ভলান্টারি ব্লাড ডোনার্স অ্যাসোসিয়েশনের চায়ের আড্ডায় গ্রীষ্মকালীন রক্ত সংকটের কথা শুনে বিপুলের ইচ্ছে প্রকাশ করেন ব্লাড ব্যাংকের পাশে দাঁড়ানোর । তার পর ইচ্ছে বাস্তবায়িত করতে তিনি একটি রক্তদান শিবির করার জন্য সহযোগিতা চান অ্যাসোসিয়েশনের কাছ থেকে ।

আরও পড়ুন : বিয়ের পরদিন শ্বশুরবাড়ি থেকে উদ্ধার কিশোরী ‘বধূ’, নাবালক ‘দম্পতির’ ঠাঁই থানায়

তাঁর এ রকম ইচ্ছে শুনতেই রক্তদান শিবির আয়োজনে তৎপর হয়ে পরেন বীরভূম ভলেন্টারি ব্লাড ডোনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সদস্যরা । তাঁরা চায়ের দোকানেই আয়োজন করে ফেলেন শিবিরের । রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের সম্পূর্ণ শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত বাসে আয়োজন করা হয় এই রক্তদান শিবিরের । BVBDA -এর হাত ধরে দুবরাজপুরের বিপুল ওঝার চায়ের দোকান থেকে শুরু হয় জেলার মধ্যে ধারাবাহিক ভ্রাম্যমাণ রক্তদান শিবিরের । এই শিবিরে চা বিক্রেতা বিপুল ওঝা-সহ আরও ২০ জন রক্তদান করেন ।

আরও পড়ুন : ঝড় ও শিলাবৃষ্টির তাণ্ডবে বিধ্বস্ত শিলিগুড়ির একাংশ, দিনভর অন্ধকারে একাধিক গ্রাম

বীরভূম ব্লাড ডোনার্স অ্যাসোসিয়েশনের সহ সভাপতি প্রিয়নীল পাল বলেন , ‘‘রাজ্য সরকারের ভ্রাম্যমাণ রক্তদান শিবিরের লক্ষ্য যাতে সবাই রক্তদানে এগিয়ে আসে সেই লক্ষ্যকে পূরণ করতেই আমরা চায়ের আড্ডাকেই বেছে নিয়েছি রক্তদান করার জন্য । এই শিবিরের মাধ্যমে এই সময় রক্তের সংকট অনেকটা কমবে,আগামী এক মাসে কম করে ২৪ টা রক্তদান শিবির আয়োজিত হবে সারা জেলা জুড়ে ।’’ চা বিক্রেতা বিপুল ওঝা বলেন , ‘‘ আমার চায়ের দোকানে চা খেতে খেতে গল্প করেন অনেকেই । আর সেই আলোচনা কানে আসে আমার ।

আরও পড়ুন : নাবালিকা স্কুলপড়ুয়াকে বাড়ির কাছেই বাগানে তুলে নিয়ে গেল দুষ্কৃতীরা, পরিণতি মর্মান্তিক

তবে একদিন আমার চায়ের দোকানের রক্তদানের সঙ্গে যুক্ত কয়েক জন চা খেতে খেতে রক্তদানের আলোচনা করছিলেন , তখনই আমার কানে আসে রক্তদান শিবিরের কথা । আমার ইচ্ছে হয় যদি একটা রক্তদান শিবিরের আয়োজন করা হয় । তার পরই আমি সে কথা তাঁদের জানাই । তবে তাঁদের জানাতেই তাঁরা আমার চায়ের দোকানেই বাতানুকূল বাসে রক্তদানের ব্যবস্থা করেন । সেখানে আমি ছাড়া আরও ২০ জন রক্ত দান করি । এই শিবির আয়োজন করতে পারায় আমি সত্যিই খুব খুশি । আমার ইচ্ছে প্রকাশ করতেই তারা যে এত তাড়াতাড়ি বাস্তবায়িত করে ফেলবেন, সত্যিই আমি ভাবতে পারিনি । তাঁদের অসংখ্য ধন্যবাদ ।’’

Published by:Arpita Roy Chowdhury
First published:

Tags: Birbhum, Blood donation camp

পরবর্তী খবর